২ আশ্বিন  ১৪২৬  শুক্রবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

২ আশ্বিন  ১৪২৬  শুক্রবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ছ’ঘণ্টার ব্যবধানে আটটি বিস্ফোরণ৷ কেঁপে উঠেছে শ্রীলঙ্কা৷ প্রাণহানি হয়েছে কমপক্ষে ১৫৯ জনের৷ এই ঘটনার পর থেকে চিন্তার ভাঁজ পর্যটন সংস্থার আধিকারিকদের কপালে৷ গ্রীষ্মের ভরা মরশুমে পর্যটকদের আনাগোনা বন্ধ হওয়ায় আর্থিক সংকটের আশঙ্কায় পর্যটন সংস্থার আধিকারিকরা৷

[ আরও পড়ুন: কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে শ্রীলঙ্কায় ফের জোড়া বিস্ফোরণ, জারি কারফিউ]

প্রতি বছর বহু ভারতীয়ই বেড়াতে যান শ্রীলঙ্কায়৷ পরিসংখ্যান বলছে ২০১৮ সালে কমপক্ষে ২ লক্ষ ৩০ হাজার ভারতীয়র গন্তব্য ছিল সমুদ্রে ঘেরা এই দেশ৷ মে-র শুরু থেকেই সাধারণত শ্রীলঙ্কায় বেড়াতে যাওয়ার হিড়িক লেগে যায়৷ পর্যটকদের আগাম বুকিং মনে আশা জুগিয়েছিল পর্যটন সংস্থাগুলির৷ ২০১৮-র পরিসংখ্যানকে ছাপিয়ে যাবে বলেই আশা ছিল কর্তৃপক্ষের৷ কিন্তু রবিবার সকালে সেই আশায় জল ঢেলেছে সন্ত্রাসবাদীরা৷ এদিন সকালে ইস্টারের প্রার্থনা চলাকালীন প্রচণ্ড বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে তিনটি চার্চ এবং তিনটি হোটেল৷ তাতেই প্রাণ হারান অন্তত ১৫৬ জন৷ এখানেই সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপের শেষ নয়৷ ঠিক কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে আবারও বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে দু’টি জায়গা৷ শেষ পাওয়া খবর পর্যন্ত তিনজনের মৃত্যু হয়েছে৷ ভয়ে কাঁটা এই মুহূর্তে শ্রীলঙ্কায় থাকা পর্যটকরা৷ যদিও তাঁরা সকলেই সুস্থ রয়েছেন বলে প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে৷ তাঁদের নিরাপদ আশ্রয়ে ফেরানোর তোড়জোড়ও শুরু হয়ে গিয়েছে৷

[ আরও পড়ুন: শ্রীলঙ্কার গির্জা ও হোটেলে ধারাবাহিক বিস্ফোরণ, ক্রমশই বাড়ছে মৃতের সংখ্যা]

এদিকে, এই বিস্ফোরণের পর কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে পর্যটন সংস্থার আধিকারিকদের কপালে৷ Yatra.com-এর আধিকারিক শরৎ ধল বলেন,‘‘গ্রীষ্মে বেড়াতে আসার জন্য অনেকেই শ্রীলঙ্কাকে বেছে নেন৷ কিন্তু এই বিস্ফোরণের জেরে বুকিং বাতিল হবে বলেই মনে হচ্ছে৷ আর্থিক ক্ষতিও হবে আমাদের৷’’ আরেক পর্যটন সংস্থার আধিকারিক বীণা পাটিলের গলাতেও একই আক্ষেপের সুর৷ আর্থিক ক্ষতির আশঙ্কা করছেন তিনিও৷ তবে কিছু কিছু পর্যটন সংস্থার আধিকারিকরা অবশ্য আপাতত শ্রীলঙ্কায় বেড়াতে পর্যটকদের নিরাপত্তা দেওয়ার কাজেই বেশি ব্যস্ত৷ বিখ্যাত পর্যটন সংস্থার কক্স অ্যান্ড কিংয়ের জনসংযোগ আধিকারিক করণ আনন্দ বলেন,‘‘আমাদের সমস্ত পর্যটক নিরাপদে রয়েছেন৷ তবে আকস্মিকতায় ভয় পেয়ে গিয়েছেন তাঁরা৷ পর্যটকদের দ্রুত গন্তব্যে ফেরানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে৷’’

[ আরও পড়ুন: চামড়াহীন শরীর নিয়ে জন্ম, বিরল রোগাক্রান্ত শিশুকে বাঁচানোর চ্যালেঞ্জ চিকিৎসকদের]

পর্যটকদেরও অবশ্য একই বক্তব্য৷ এমন ভয়াবহ বিস্ফোরণের পর আর সেদেশে যাওয়ার কথা ভাবতেও চাইছেন না অনেকে৷ যাঁরা আপাতত শ্রীলঙ্কায় রয়েছেন,তাঁদের চোখে-মুখে আতঙ্কের ছাপ৷ কতক্ষণে বাড়ি ফিরতে পারবেন, অপেক্ষার প্রহর গুনছেন ভীত সন্ত্রস্তরা৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং