BREAKING NEWS

২৩ আষাঢ়  ১৪২৭  বুধবার ৮ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

‘মুসলিম বিদ্বেষ এবং অসহিষ্ণুতা রুখতে আমরা বদ্ধপরিকর’, ঘোষণা রাষ্ট্রসংঘের মহাসচিবের

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: May 24, 2020 11:10 am|    Updated: May 24, 2020 1:18 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনার আড়ালে বিশ্বজুড়ে বাড়ছে ঘৃণা, অসহিষ্ণুতা এবং মুসলিম বিদ্বেষ। যা রুখতে বদ্ধপরিকর রাষ্ট্রসংঘ। শুক্রবার ইসলামিক দেশগুলির সঙ্গে বৈঠকে এমনটাই মন্তব্য করেছেন রাষ্ট্রসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস (António Guterres)। রাষ্ট্রসংঘের মহাসচিব বলছেন, আমাদের জাতিগত জাতীয়তাবাদ, মুসলিম বিদ্বেষ এবং ঘৃণা ছড়ানোর প্রতিবাদে একযোগে সরব হতে হবে।

বিশ্বজুড়ে মহামারির আকার নিয়েছে করোনা। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর পৃথিবীকে আর এত বড় বিপর্যয়ের মুখে পড়তে হয়নি। সাম্প্রতিক অতীতে মানবজাতির সবচেয়ে বড় শত্রু এই COVID-19। বিশ্বের প্রায় সব দেশেই প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে এর মারক প্রভাব পড়েছে। স্বাস্থ্য এবং অর্থব্যবস্থায় এই সংকটের মুহূর্তে সবার অলক্ষ্যে বাড়ছে হিংসা, এবং ঘৃণা। অ্যান্তোনিও গুতেরেসের মতে করোনা আবহে বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে মুসলিম বিদ্বেষ। এটা বন্ধ হওয়া দরকার। তিনি বলছেন,”এখন, আগের চেয়ে অনেক বেশি করে আমাদের সংহতি এবং সহাবস্থান প্রয়োজন। আমাদের সংহতি প্রয়োজন জাতিগত জাতীয়তাবাদ, ঘৃণা, ভুয়ো খবর এবং ধর্মীয় উসকানিমূলক বক্তব্যের বিরুদ্ধেও।” ইসলামিক দেশগুলির উদ্দেশ্যে রাষ্ট্রসংঘের বার্তা, “আপনাদের আমি পূর্ণ সমর্থন করি। ভুল, অসত্য, মুসলিম বিদ্বেষ, এবং সমস্তরকম অসহিষ্ণুতার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান।”

[আরও পড়ুন: গঠনগত পরিবর্তন হচ্ছে ভাইরাসের, চিনের নয়া সংক্রমণে খেই হারাচ্ছেন চিকিৎসকরা]

গুতেরেস বলছেন, বিশ্বব্যাপী লক্ষ লক্ষ মানুষ রমজান উদযাপন করছেন। চলুন আমরাও রমজানের ক্ষমা এবং সমবেদনার বার্তা ছড়িয়ে দিই। পারস্পারিক বোঝাপড়া এবং পারস্পারিক সম্মান প্রদর্শনের নজির তৈরি করি। অ্যান্তোনিও গুতেরেস এদিন পৃথিবীর সব প্রান্তের সব মানুষকে ঘৃণার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে অনুরোধ করেছেন। তিনি বলছেন, “এই পৃথিবীটা একটা শরীরের মতো। এর কোনও একটা অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার অর্থ গোটা পৃথিবী ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া।” উল্লেখ্য, রাষ্ট্রসংঘের মহাসচিব আগেই বিভিন্ন রাষ্ট্রের নেতাদের কাছে তাঁর অনুরোধ করেছেন, অবিলম্বে এই ঘৃণা ও বিদ্বেষের আবহ বন্ধ করতে। সংবাদমাধ্যম বিশেষ করে সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিকে তিনি অনুরোধ করেছেন ঘৃণা ছড়ায় এই ধরনের তথ্য সরিয়ে দিয়ে, আরও বেশি শিক্ষামূলক তথ্য ছড়িয়ে দিতে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement