BREAKING NEWS

১১ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  শুক্রবার ২৭ নভেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘সামনে সবচেয়ে কঠিন চ্যালেঞ্জ’, জয়ের পর বিডেন-কমলাকে শুভেচ্ছা বারাক ওবামার

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: November 8, 2020 9:41 am|    Updated: November 8, 2020 9:42 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ‘হ্যালো, আমি বারাক ওবামা (Barack Obama) বলছি, এর আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ছিলাম। চিনতে পেরেছেন?’, নির্বাচনের দু’দিন আগে বহু সাধারণ আমেরিকাবাসী পেয়েছেন এই ফোন। যে ব্যক্তি সাধারণ ভোটারদের ফোন করে ‘বন্ধু’ বিডেনকে সমর্থন করতে অনুরোধ করছেন তিনি আর কেউ নন, তখনও পর্যন্ত আমেরিকার সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। এবারের নির্বাচনে যার রেকর্ড ভেঙে দিলেন ৭৭ বছরের জো বিডেন (Joe Biden)। ছায়াসঙ্গী বিডেনের এই জয়কে বারাক বর্ণনা করলেন ‘ঐতিহাসিক’ হিসেবে। বললেন, ওঁকে যে সব চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করতে হবে, তা আগে কাউকে করতে হয়নি।

এবারের আমেরিকার নির্বাচন অত্যন্ত কঠিন হতে চলেছে সে ইঙ্গিত আগে থেকেই ছিল। যদিও শেষপর্যন্ত দেখা গেল বেশ বড় ব্যবধানেই জিতে গিয়েছেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বিডেন। এর অনেকটা কৃতিত্ব প্রাপ্য ওবামারও। প্রচারে যখন বিডেন এবং ট্রাম্প সমানে সমানে টক্কর দিচ্ছেন, তখন নিজে আসরে নেমে তাঁর আমলের ভাইস প্রেসিডেন্টকে লড়াইয়ে সামান্য হলেও এগিয়ে দিয়েছেন তিনি। বিডেনের সমর্থনে হাতেগোনা যে কয়েকটি জনসভা তিনি করেছেন, তাতে ট্রাম্পের (Donald Trump) খামখেয়ালি মানসিকতা নিয়ে রসিকতাই বেশি করতে শোনা গিয়েছে ওবামাকে। বারবার প্রমাণ করার চেষ্টা করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে অযোগ্য প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। রাজনৈতিক কৌতুকের ধাঁচে তাঁর বক্তৃতাগুলি বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। শেষদিকে আরও উদ্যোগী হয়ে নিজে থেকে সাধারণ ভোটারদের ফোন করেছেন ওবামা। তাঁদের কাছে অনুরোধ করেছেন, ‘আপনারা ভোট দিন। বিডেনকে সমর্থন করুন।’ ওবামার প্রচারে বিডেন যে অনেকটা সুবিধা পেয়েছেন সেটা বলাই বাহুল্য।

[আরও পড়ুন: ‘প্রতিজ্ঞা করছি, আমি সকলের প্রেসিডেন্ট হব’, বার্তা বিডেনের, নেটদুনিয়ায় হাসির খোরাক ট্রাম্প]

কাঙ্ক্ষিত জয়ের পর বিডেন এবং কমলা হ্যারিসকে শুভেচ্ছাবার্তা পাঠিয়ে প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বললেন,”আমি অত্যন্ত গর্বের সঙ্গে আমাদের নতুন প্রেসিডেন্ট জো বিডেন ও ফার্স্ট লেডি জিল বিডেনকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। কমলা হ্যারিস (Kamala Harris) ও ডাগ এমহফকেও অভিনন্দন জানাই। এই নির্বাচনের মতো অভিজ্ঞতা আগে কখনও হয়নি। আমেরিকা এত বেশি মানুষের ভোট এর আগে দেখেনি। আমরা ভাগ্যবান যে জো’র মধ্যে প্রেসিডেন্ট হওয়ার সব যোগ্যতা আছে। কারণ জানুয়ারিতে যখন জো হোয়াইট হাউসে প্রবেশ করবে, তখন ওকে কিছু অপ্রত্যাশিত চ্যালেঞ্জের মুখে দাঁড়াতে হবে, যা এর আগে কোনও প্রেসিডেন্টকে করতে হয়নি। যেমন একটা মহামারী পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে হবে, একটা ভেঙে পড়া অর্থনীতিকে দাঁড় করাতে হবে। আজ আমেরিকা দু’ভাগে বিভক্ত, বিচারব্যবস্থা সংকটে, গণতন্ত্র বিপদে আর পরিবেশ দূষিত। আমি নিশ্চিত জো ভালভাবেই এসবের মোকাবিলা করবে।”

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement