২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বাড়ছে চিনের সঙ্গে সংঘাত, হংকংয়ের প্রশাসকের উপর নিষেধাজ্ঞা চাপাল আমেরিকা

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: August 8, 2020 3:03 pm|    Updated: August 8, 2020 3:04 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: চিনের বিরুদ্ধে বড় পদক্ষেপ করল আমেরিকা। এবার হংকংয়ের ‘চিনপন্থী’ প্রশাসক ক্যারি লাম-সহ ১০ জন উচ্চপদস্থ চিনা আধিকারিকের উপর ভ্রমণ ও আর্থিক বিষয় সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা চাপাল ওয়াশিংটন। হংকংয়ের স্বায়ত্তশাসনের অধিকার ক্ষুণ্ণ করে নিপীড়ন চালাচ্ছে বেজিং যার জেরে এই পদক্ষেপ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন।

[আরও পড়ুন: ‘পা সোজা করার জায়গাও নেই’, চিনে অমানুষিক যাতনার কথা তুলে ধরলেন উইঘুর বন্দি]

মার্কিন ট্রেজারির সচিব স্টিভেন মুচিন জানিয়েছেন, হংকংবাসীর পাশে দাঁড়াবে আমেরিকা। তিনি অভিযোগ করেন, বেজিংয়ের দমননীতি চাপিয়ে হংকংয়ের গণতান্ত্রিক অধিকার ও স্বাধীনতা কেড়ে নিতে সাহায্য করছেন প্রশাসক লাম। শুক্রবার নিষেধাজ্ঞা বলবৎ হওয়ার পর মার্কিন বিদেশসচিব মাইক পম্পেও বলেন, “চিনের কমিউনিস্ট পার্টি ৫০ বছর আগে ব্রিটেন ও হংকংবাসীকে দেওয়া প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করেছে। তারা স্পষ্ট করে দিয়েছে যে হংকংয়ের স্বায়ত্তশাসনের অধিকার মানা হবে না।” তিনি আরও বলেন, “প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এটা স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে হংকংকে এক দেশ এক নীতি হিসেবেই দেখবেন এবং যারা হংকংবাসীর স্বাধীনতা কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করবে তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করা হবে।”

এদিকে, মার্কিন নিষেধাজ্ঞা নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন হংকংয়ের প্রশাসক ক্যারি লাম। তিনি বলেন, “আমেরিকায় আমার কোনও জমা টাকা নেই। আর সে দেশে যেতেও চাই না। ফলে ওসব নিষেধাজ্ঞায় আমার কিছু যে আসে না।” তাঁর অভিযোগ, চিনের বিরুদ্ধে হংকংকে দাবার ঘুঁটির মতো ব্যবহার করতে চাইছে আমেরিকা।

উল্লেখ্য, গত জুন মাসের ৩০ তারিখ আন্তর্জাতিক মঞ্চের প্রতিবাদ হেলায় উড়িয়ে হংকং নিয়ে বিতর্কিত জাতীয় নিরাপত্তা বিল পাশ করে চিন। ‘National security legislation for Hong Kong’ শীর্ষক বিলটিতে সই করেন চিনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। এর ফলে স্বায়ত্বশাসিত প্রদেশটির উপর বেজিংয়ের রাশ আরও মজবুত হয়েছে। এই আইন মোতাবেক, নতুন দপ্তর খোলা হবে হংকংয়ে। আইন লঙ্ঘনকারীদের বিচারের জন্য হংকংয়ের প্রশাসক ক্যারি ল্যাম নতুন বিচারকও নিয়োগ করবেন খুব শীঘ্রই। আগে নিয়ম ছিল হংকংয়ে কেউ কোনও অপরাধ করলে তার বিচার হংকংয়ের (Hong Kong) আইন মোতাবেক এখানেই হবে। অথচ সূত্রের খবর, নয়া আইনে জাতীয় নিরাপত্তার অভিযোগে যে কোনও ব্যক্তিতে অভিযুক্ত করে তাঁকে মূল চিনা ভূখণ্ডে নিয়ে যাওয়া যাবে। বিশ্লেষকদের মতে, নয়া আইন লাগু করে হংকংয়ে গণতন্ত্রকমীদের বাগে আনতে চাইছে বেজিং। এবার বেছে বেছে বিক্ষোভকারীদের নিশানা করবে শি জিনপিং সরকার। পাশাপাশি, এভাবেই ধীরে ধীরে হংকংয়ের বিশেষ মর্যাদাও রদ করবে চিন।

[আরও পড়ুন: চিনকে জোর ধাক্কা, মার্কিন সংস্থা থেকেই চিকিৎসা সামগ্রী কেনার নির্দেশ ট্রাম্পের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement