২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ২৩ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

‘ভ্যাকসিনের জন্য অপেক্ষা নয়, যা আছে তাই দিয়েই লড়াই করুন’, পরামর্শ WHO কর্তার

Published by: Biswadip Dey |    Posted: October 13, 2020 10:47 am|    Updated: October 13, 2020 12:01 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা ভ্যাকসিনের (COVID-19 vaccine) দিকে অধীর অপেক্ষায় তাকিয়ে রয়েছে সারা পৃথিবীর মানুষ। এই পরিস্থিতিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (WHO) ডিরেক্টর টেড্রোজ আধানম ঘেব্রিয়েসুস জানিয়ে দিলেন, কবে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন আসবে তার জন্য অপেক্ষা করা যাবে না। আপাতত হাতে যা চিকিৎসা ব্যবস্থা আছে তাই দিয়েই মানুষকে বাঁচাতে হবে করোনার প্রকোপ থেকে। তিনি বলেন, ‘‘যখনই কোনও ভ্যাকসিন নিরাপদ ও কার্যকরী বলে প্রমাণিত হবে, তখনই তা সমস্ত দেশে সমান ভাবে বণ্টনের ব্যবস্থা করা হবে। কিন্তু আমরা কেবল ভ্যাকসিনের জন্য অপেক্ষা করে বসে থাকতে পারি না। হাতে যা আছে তাই দিয়েই প্রাণ বাঁচাতে হবে।’’

পূর্বাঞ্চলীয় ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলের আঞ্চলিক কমিটির এক বৈঠকে এই মন্তব্য করেন ঘেব্রিয়েসুস। তিনি আরও বলেন, ‘‘এক বছর আগে যথন এই কমিটির বৈঠক হয়েছিল, তখন কোভিড-১৯ আমাদের সম্পূর্ণ অপরিচিত ছিল। কীভাবে পৃথিবীটা বদলে গেল!’’ করোনা অতিমারী পৃথিবীর স্বাস্থ্য ব্যবস্থাই কেবল নয়, সমাজ, অর্থনীতিতেও গভীর প্রভাব ফেলেছে বলে জানান তিনি। সেই সঙ্গে মনে করিয়ে দেন, যে সমস্ত দেশে ও অঞ্চলে সংক্রমণ বাড়ছে তাদের সতর্ক থাকতে হবে। ভাইরাস এখনও ছড়াচ্ছে এবং বহু মানুষের সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। অতি কষ্টে যেখানে পৌঁছনো গেছে, তাকে এত সহজে হারানো যাবে না।

[আরও পড়ুন: পুরুষ যৌন হরমোনের মাত্রা কমাচ্ছে করোনা, বাড়াচ্ছে মৃত্যুর সম্ভাবনা! চাঞ্চল্যকর দাবি গবেষকদের]

যে সব দেশে সংক্রমণ বাড়ছে, সেখানে সতর্কতামূলক পদক্ষেপের জন্য চারটি বিষয়ে ফোকাস রাখতে বলেছেন ঘেব্রিয়েসুস। তার মধ্যে অন্যতম হল বড় জমায়েতকে এড়িয়ে চলা। স্টেডিয়াম, নাইট ক্লাব, উপসনা স্থল ও অন্যান্য ভিড়ের জমায়েত থেকেই সারা পৃথিবীতে সংক্রমণ ব্যাপক চেহারা নিয়েছে বলে জানান তিনি। এছাড়া স্বাস্থ্য ব্যবস্থার উপর থেকে চাপ কমাতে দুর্বল ও গুরুতর অসুস্থ রোগীদের সাবধানে রাখার কথাও বলেন ঘেব্রিয়েসুস।

পাশাপাশি প্রয়োজন সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা, মাস্ক পরা ইত্যাদি সতর্কতামূলক পদক্ষেপের বিষয়ে সকলকে জানানো। একসঙ্গে মিলে লড়ে করোনাকে হারানো সম্ভব বলে জানান তিনি। এছাড়া আক্রান্তদের খুঁজে বের করা, তাঁদের আইসোলেট করে রেখে চিকিৎসা করা ও আক্রান্তদের সংস্পর্শে আশা ব্যক্তিদের কোয়ারান্টাইন করে রাখার উপরেও জোর দিয়েছে তিনি।

[আরও পড়ুন: পৃথিবীর খুব কাছে মঙ্গল! রাতের আকাশে খালি চোখেই দেখা যাবে লালগ্রহকে]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement