BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ভাসানচরের কাছে বঙ্গোপসাগরে সলিলসমাধি চিনি ও গমবোঝাই দুই জাহাজের, নিখোঁজ ১৩

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: August 16, 2020 1:27 pm|    Updated: August 16, 2020 1:30 pm

An Images

সুকুমার সরকার, ঢাকা: চিনি ও গমবোঝাই দুটি জাহাজ ডুবে গেল বঙ্গোপসাগরে (Bay of Bengal)। শনিবার বাংলাদেশের ভাসানচরের কাছে ২ হাজার টন অপরিশোধিত চিনি বোঝাই জাহাজ এমভি সিটি-১৪’এর সলিলসমাধি ঘটে। এর ঠিক পরপরই হাতিয়া চ্যানেলের কাছে গমবোঝাই অপর একটি জাহাজ ডুবে যায়। এটির নাম – এমভি আকতার বানু। এর মধ্যে এমভি সিটি-১৪ জাহাজের ১২ জন নাবিকের সবাইকে জীবিত উদ্ধার করা সম্ভব হলেও, অপর জাহাজের ১৩ নাবিকের খোঁজ মেলেনি এখনও।

বিআইডব্লিউটি’র উপ-পরিচালক মোহাম্মদ সেলিম গতরাতে মিডিয়াকে জানান, এমভি সিটি-১৪ নামের জাহাজটি চট্টগ্রাম বন্দরের মাদার ভেসেল থেকে চিনি বোঝাই করে নারায়ণগঞ্জের রূপসা ঘাটের উদ্দেশে রওনা দেয়। এটি হাতিয়ার কাছে ওয়ান লাইটার পার হয়ে ভাসানচর ও ঠ্যাঙার চরের কাছাকাছি এলাকায় সাগরের উত্তাল ঢেউয়ের মুখে পড়ে। তিন নম্বর সতর্কতা সংকেত থাকায় ওই সময় সমুদ্র বেশ উত্তাল ছিল। জাহাজের মধ্যে জল ঢুকতে থাকে। এক পাশের চিনি গলে যায় এবং তার ভারে জাহাজ কাত হয়ে পড়ে। এরপর আস্তে আস্তে ডুবতে থাকে এমভি সিটি-১৪। তবে মূল চ্যানেলের বাইরে দুর্ঘটনাটি ঘটায় অন্যান্য জাহাজ চলাচলে কোনও সমস্যা হয়নি।

[আরও পড়ুন: করোনায় মৃত বাংলাদেশের বিখ্যাত চিত্রশিল্পী মুর্তজা বশির, শোকপ্রকাশ হাসিনার]

বন্দরের কর্মকর্তা আরও জানান, এমভি সিটি-১৪ জাহাজটির ঠিক পিছনেই ছিল রূপসী-১ নামে আরেকটা জাহাজ। রূপসী-১ই দুর্ঘটনাগ্রস্ত জাহাজের ১২ জন নাবিকের সবাইকে জীবিত উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে। লাইটার জাহাজ পরিচালনাকারী সংস্থা ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট সেলের যুগ্ম-সচিব আতাউল করিম রঞ্জু জানান, চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙর থেকে প্রায় ২ হাজার টন গম বোঝাই করে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেয় এমভি আকতার। সেও মাঝসমুদ্রে এভাবে দুর্ঘটনার মুখে পড়ে ডুবে যায়। এই জাহাজে থাকা ১৩ জন নাবিক এখনও নিখোঁজ। তাঁদের খোঁজে তল্লাশি চলছে।

[আরও পড়ুন: বিদেশ থেকে আসা বাংলাদেশিদের ৭০ শতাংশই কর্মহীন, জানাচ্ছে সমীক্ষা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement