১ শ্রাবণ  ১৪২৬  বুধবার ১৭ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুমিত বিশ্বাস, পুরুলিয়া: পর্যাপ্ত চিকিৎসক-সেবিকা নেই। তাই বিজ্ঞপ্তি জারি করে জরুরি বিভাগ ও ইন্ডোর পরিষেবাই বন্ধ করে অসুস্থ রোগীদের বাড়ি পাঠিয়ে দিল ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্র কর্তৃপক্ষ। পুরুলিয়ার বাঘমুন্ডির পাথরডি ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্র কর্তৃপক্ষের এমন কাজে হতবাক জেলা স্বাস্থ্যদপ্তর। এহেন বিজ্ঞপ্তিতে রীতিমতো বিতর্কে জড়িয়েছে পাথরডি ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্র কতৃর্পক্ষ।

এই ব্লক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে স্বাস্থ্য আধিকারিক ছাড়াও চিকিৎসকের অনুমোদিত পদ রয়েছে ছ’টি। কিন্তু সেই জায়গায় মেডিক্যাল অফিসার রয়েছেন একজন। সেবিকার অনুমোদিত পদ রয়েছে বারোটি। কিন্তু সেই জায়গায় সেবিকা আছেন ন’জন। এই ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ৩০টি শয্যা ছাড়াও এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রের তত্ত্বাবধানে চলে পুষ্টি পুনর্বাসন কেন্দ্রও। এখানে শয্য রয়েছে দশটি। সেই দশ শয্যার নিরিখে এখানে সবসময় দু’জন সেবিকা থাকা প্রয়োজন। কিন্তু একজনও নেই। ফলে ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে থাকা সেবিকাদের ওই কেন্দ্র সামলাতে হয়। এই সমস্যার কথা জানিয়ে ব্লক স্বাস্থ্য কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ বারবার জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরে চিঠি দিয়ে জানিয়েছিল। কিন্তু কোনও কাজ হয়নি। তাই বাধ্য হয়ে পোষ্টারে সমস্যার কথা জানিয়ে পরিষেবা বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়৷ ওই বিজ্ঞপ্তিতে লেখা আছে, “হাসপাতালে পরিমিত ডাক্তার-নার্স না থাকার কারণে হাসপাতালের জরুরি বিভাগ ও ইন্ডোর পরিষেবা বন্ধ থাকবে। কেবলমাত্র বহির্বিভাগ (অ্যালোপাথি ও হোমিওপ্যাথি) পরিষেবা চালু থাকবে।”

[ আরও পড়ুন: কারখানায় দুর্ঘটনায় মৃত শ্রমিক, ক্ষতিপূরণের দাবিতে বিক্ষোভে সহকর্মীরা]

জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক অনিল দত্তের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি৷ বাঘমুন্ডি ব্লক স্বাস্থ্য কেন্দ্রের আধিকারিক অমরেন্দ্র রায় বলেন, “এভাবে তো ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্র চালানো যায় না। তাই আর কোন উপায়ই ছিল না। নাহলে চিকিৎসক-রোগীর পরিবারের এবার সংঘাত বাঁধবে। আইনশৃঙ্খলার অবনতি হবে।” তাই বাধ্য হয়ে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে৷

এনআরএস কাণ্ডে রাজ্যের অন্যান্য জেলার মতো পুরুলিয়াতেও ছড়িয়েছে আন্দোলনের আঁচ৷ তবে প্রতীকী আন্দোলনের পাশাপাশি পরিষেবাও দিয়ে চলেছেন চিকিৎসকরা৷ কিন্তু তার মাঝেই পাথরডি ব্লক স্বাস্থ্য কেন্দ্রের এই বিজ্ঞপ্তি অস্বস্তিতে ফেলেছে জেলা প্রশাসনকেও। তবে এমন বিজ্ঞপ্তির খবর জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরে পৌঁছাতেই ব্লক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে তারা পর্যাপ্ত চিকিৎসক ও সেবিকা পাঠানোর আশ্বাস দেয়। কিন্তু তাতে কী? আশ্বাস পাওয়ার আগেই রোগীদের ছুটি দিয়ে দিয়েছে ব্লক স্বাস্থ্য কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ। তাছাড়া ব্লক স্বাস্থ্য কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ জানিয়েও দিয়েছে, সোমবারের মধ্যে পর্যাপ্ত চিকিৎসক-সেবিকা না মিললে আবারও একই পদক্ষেপ নেওয়া হবে৷

ছবি: অমিত সিংদেও

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং