BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

৪৮ ঘণ্টা পরও খোঁজ নেই নোডাল অফিসারের, মানসিক অবসাদের তত্ত্ব খারিজ স্ত্রী’র

Published by: Sayani Sen |    Posted: April 20, 2019 2:28 pm|    Updated: April 20, 2019 3:52 pm

An Images

পলাশ পাত্র, তেহট্ট:  নদিয়ার দায়িত্বপ্রাপ্ত নোডাল অফিসার অর্ণব রায় নিখোঁজের পর কেটে গিয়েছে প্রায় ৪৮ ঘণ্টা৷ এখনও তাঁর সন্ধান পাওয়া যায়নি৷ তার মাঝেই বিতর্ক মাথাচাড়া দিয়েছে তাঁর মানসিক পরিস্থিতি নিয়ে৷ এবার সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে সেই বিতর্কে জল ঢাললেন নিখোঁজ আধিকারিকের স্ত্রী অনীশা যশ৷ উলটে তাঁর অভিযোগ, সংবাদমাধ্যম বিষয়টি অতিরঞ্জিত করছে৷

[ আরও পড়ুন: বিরোধী এজেন্টরা যেন বুথে বসতে না পারে, হুমকি ভাঙড়ের তৃণমূল নেতার]

ছ’মাস ধরে একে-অপরকে চিনতেন অর্ণব-অনীশা৷ পরস্পরের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা হওয়ার পরই বিয়ের সিদ্ধান্ত৷ দাম্পত্য সম্পর্ক দু’বছরের৷ কাজের ব্যস্ততা থাকলেও, স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের উষ্ণতা ছিল একইরকম৷ কিন্তু বৃহস্পতিবার দুপুরের পর থেকে বদলেছে চেনা সংসারের ছবিটা৷ নিখোঁজ হয়ে গিয়েছেন কৃষ্ণনগরে ইভিএম এবং ভিভিপ্যাটের দায়িত্বে থাকা আধিকারিক অর্ণব রায়৷ সারা রাতভর খোঁজাখুঁজি করেও পাওয়া যায়নি তাঁকে৷ দফায় দফায় পুলিশ সুপার, জেলাশাসকের সঙ্গে বৈঠক করেন অর্ণবের স্ত্রী অনীশাও৷ কিন্তু তাতেও কোনও সূত্র পাওয়া যায়নি৷ মোবাইল নম্বর সুইচড অফ থাকায় তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করাও যাচ্ছে না৷ সময় যত গড়াচ্ছে, ততই চড়ছে উদ্বেগের পারদ৷ কেউ বা কারা রাজনৈতিক চক্রান্ত করে কি অপহরণ করেছে তাঁকে? উঠেছে বড়সড় প্রশ্ন৷

[ আরও পড়ুন: ‘জেতার জন্য বাংলাদেশি এনে প্রচার’, ফিরদৌস-নূর প্রসঙ্গে কটাক্ষ মোদির]

ইতিমধ্যেই গুজব রটেছে, মানসিক অবসাদ থেকেই নাকি নিখোঁজ হয়ে গিয়েছেন অর্ণব৷ সেই গুজবেরই জবাব দিলেন নিখোঁজ নোডাল অফিসারের স্ত্রী৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে স্পষ্টই জানিয়ে দিয়েছেন, তাঁর স্বামী মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন না৷  যদি নিজে ইচ্ছা করে কোথাও চলে যেতেন তিনি, তাহলে সঙ্গে করে ভোটার আইডেনটিটি কার্ড এবং প্যান কার্ড নিয়ে যেতেন অর্ণব৷ চোখের জল মুছতে মুছতে অনীশা সাংবাদিকদের জানান, বৃহস্পতিবার সকালে বাড়ি থেকে বেরোনোর পর ছ’বার স্বামী সঙ্গে কথা হয়েছিল তাঁর৷ কৃষ্ণনগর গর্ভনমেন্ট কলেজে দেখা হয়েছিল দু’জনের৷ সেই শেষ দেখা স্বামী-স্ত্রীর৷ মানসিক অবসাদে নিখোঁজ হয়ে যাওয়ার তত্ত্বে আমল না দিয়ে উচ্চপর্যায়ের তদন্ত দাবি করেছেন অনীশা৷ একই অবস্থা অর্ণবের বাবা-মায়ের৷ কখন খোঁজ মিলবে ছেলের, সেই অপেক্ষায় প্রহর গুনছেন তাঁরা৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement