১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ভোটের আগে হিংসার অভিযোগ খতিয়ে দেখতে অ্যাপ চালুর দাবি বীরভূমের বিরোধীদের

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: April 19, 2019 9:46 pm|    Updated: April 19, 2019 9:46 pm

An Images

নন্দন দত্ত, সিউড়ি: জেলা জুড়ে স্পর্শকাতর বুথের তালিকা বীরভূম প্রশাসনের হাতে তুলে দিল জেলা বামফ্রন্ট নেতৃত্ব। থানার ওসি-দের কাছে জমা দেওয়া অভিযোগপত্র যাচাইয়ের জন্য একটি অ্যাপ চালু করার দাবি জানাল বিজেপি। পাশাপাশি নিরপেক্ষ নির্বাচন নিয়ে প্রশাসনের কাজে সংশয় প্রকাশ করলেন রাজ্যের বিরোধীরা।

নিজের ভোট নিজেই দিতে পারবেন কি না, অন্যান্যবারের মতো এবারও এই প্রশ্ন ঘোরাফেরা করছে বীরভূমের ভোটারদের মনে৷ অবশ্য এই প্রশ্নের বিশেষ কোনও ইতিবাচক উত্তর তাঁদের এখনও পর্যন্ত দিতে পারেনি প্রশাসন, এমনই অভিযোগ কংগ্রেসের৷ এসব নিরসনে শুক্রবার সমস্ত দলের প্রার্থী ও তাঁদের এজেন্টদের নিয়ে সিউড়িতে বৈঠক করেন জেলাশাসক, পুলিশ সুপার-সহ নির্বাচনী আধিকারিকরা। নির্বাচনের শেষ পরিস্থিতি সম্পর্কে তাঁদের সবটা জানানোই ছিল প্রশাসনের মূল লক্ষ্য। এমনকি নির্বাচনী বিধি মেনে ব্যাংকের মাধ্যমে যাবতীয় লেনদেন করার যে নিয়ম, তা কংগ্রেস প্রার্থীরা মানছেন না বলে অভিযোগ শোনা গেল প্রশাসনের তরফে৷ এই প্রসঙ্গে কংগ্রেসের জেলা সভাপতি সঞ্জয় অধিকারী পালটা অভিযোগের সুরে বলেন, ‘লেনদেনের পদ্ধতি প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমাদের দেখিয়ে দেওয়া হয়নি।’

[ আরও পড়ুন: ‘গনিখানের নাম ভাঙানো মানব না’, স্লোগান তুলে ডালুবাবুকে ঘিরে ফের বিক্ষোভ]

আগামী ২৩ এপ্রিল ফের রাজনৈতিক দলগুলিকে হিসেব দাখিলের দিন দেওয়া হয়েছে প্রশাসনের তরফে৷ এদিনের বৈঠকে কংগ্রেসের রবিউল ইসলাম অভিযোগ তোলেন, প্রশাসন গ্রামে গ্রামে নিরাপত্তার নামে নাটক করছে। তৃণমূলের দু’পক্ষ বোমা হাতে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। পুলিশ হাত গুটিয়ে বসে আছে। সন্ত্রাসের কোনও অভিযোগ নিচ্ছে না। এই প্রসঙ্গেই বিজেপির পক্ষে থেকে জ্যোতির্ময় দত্ত অভিযোগ করেন, বিরোধীরা আক্রান্ত হয়ে থানায় অভিযোগ জানাতে গেলে তা নেওয়া হচ্ছে না। তাই দরকারে অ্যাপ চালু করে সেখানে জমা পড়া অভিযোগের নজরদারি করা হোক।

[ আরও পড়ুন: ‘সন্দেশ কিনলে দিল্লি ফ্রি’! নির্বাচনী মরশুমে চমক কোচবিহারের মিষ্টি বিক্রেতার]

সিপিএম জেলা কমিটির সদস্য গৌতম ঘোষ জেলার স্পর্শকাতর এবং অতিস্পর্শকাতর বুথের তালিকা এদিন জেলাশাসক-সহ নির্বাচনী আধিকারিকদের হাতে তুলে দেন। জেলার মোট ৩০২১ টি বুথের মধ্যে ১৩০০ বুথকে স্পর্শকাতর ঘোষণার দাবি জানানো হয়। বিরোধীরা সকলেই একটি বিষয়ে একমত হন৷ তাঁরা একযোগে দাবি জানান, বীরভূম জেলার প্রতি বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী দিয়ে ভোট করানো প্রয়োজন৷ জেলাশাসক মৌমিতা গোদারা এবং জেলা পুলিশ সুপার আভারু রবীন্দ্রনাথ তাঁদের দাবি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement