BREAKING NEWS

২০ শ্রাবণ  ১৪২৭  বুধবার ৫ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

হিন্দু জাগরণ মঞ্চের সভা ঘিরে উত্তেজনা চন্দ্রকোণা রোডে, আটকানো হল নেত্রীকে

Published by: Paramita Paul |    Posted: December 13, 2019 5:29 pm|    Updated: December 13, 2019 5:33 pm

An Images

সম্যক খান, মেদিনীপুর : হিন্দু জাগরণ মঞ্চের সভা ঘিরে উত্তেজনা ছড়াল চন্দ্রকোণা রোডে। শুক্রবার সকালে এই এলাকায় সম্মেলনের আয়োজন করেছিল হিন্দু জাগরণ মঞ্চ। কিন্তু গতকাল রাতে অনুমতি প্রত্যাহার করে নেয় প্রশাসন। কিন্তু সেকথা জানতেন না অনেকেই। ফলে সকাল থেকেই সংগঠনের সমর্থকরা হাজির হন অনুষ্ঠানস্থলে। অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আসার সময় তাঁদের এক সর্বভারতীয় নেত্রীকে আটকানো হয়। এরপরই উত্তেজনা ছড়ায়। পরে ১৪৪ ধারা জারি করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ।

জানা গিয়েছে, চন্দ্রকোণা রোডে হিন্দু জাগরণ মঞ্চের সম্মেলন হওয়ার কথা ছিল। সেই সভায় যোগ দিতে আসার কথা ছিল নেত্রী সাধ্বী সরস্বতীর। এদিন সকালে তিনি আড়াবাড়ি গেস্ট হাউস থেকে বেরতেই তাঁকে আটকে দেয় পুলিশ। জানানো হয়, অনুষ্ঠানের অনুমতি নেই। এরপরই সমর্থক ও পুলিশের মধ্যে খণ্ডযুদ্ধ বেঁধে যায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ১৪৪ ধারা জারি করে পুলিশ। পরে চন্দ্রকোণা রোড ফুটবল ময়দানে পুলিশের কড়া নজরদারিতে সম্মেলন হয়। তবে অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পারেননি সাধ্বী সরস্বতী। পরে ভিডিওর মাধ্যমে সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন তিনি।

[আরও পড়ুন : পূর্ব মেদিনীপুরে আক্রান্ত সায়ন্তন বসু, বিজেপি নেতার গাড়ি ভাঙচুর]

এদিন সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে সাধ্বী সরস্বতী বলেন, “শুধুমাত্র প্র্রশাসনের কথা মাথায় রেখে আজ অনুষ্ঠান করতে যায়নি। কিন্তু এই প্রথম নয়, আর আগেও আমার অনুষ্ঠান আটকানো হয়েছে। রাজ্যের প্রশাসনের কাছে আমাদের একটাই প্রশ্ন, কেন বারবার হিন্দুদের এই অনু্ষ্ঠান বাতিল করা হয়?” একই সঙ্গে এনআরসি-CAB-কে সমর্থন করে তাঁর বক্তব্য, “মানুষকে ভুল বোঝানো হচ্ছে। মানুষ আগে বিষয়টা সম্পর্কে জানুক, তারপর প্রতিবাদ করবে।”

[আরও পড়ুন : CAB বিরোধী আন্দোলনে বেলডাঙা স্টেশনে আগুন-ভাঙচুর, অবরোধ জাতীয় সড়কেও]

অনুষ্ঠানের অনুমতি প্রসঙ্গে গড়বেতার তিন নম্বর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি আকাশদীপ সিংহ জানান, “এই মাঠে অনুষ্ঠানের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। প্রশাসনের কাছ থেকেও অনুমতি মিলেছিল।” প্রশাসন সূত্রে খবর, পরে সার্বিক পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে অনুমতি প্রত্যাহার করা হয়। পরে উপস্থিতি সমর্থকদের অনুরোধে কড়া নজরদারিতে তাঁদের অনুষ্ঠান করতে দেওয়া হয়।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement