BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

হাতিয়ার সাঁইবাড়ির আবেগ, নববর্ষে জোরদার প্রচার আলুওয়ালিয়ার

Published by: Tanujit Das |    Posted: April 15, 2019 7:54 pm|    Updated: April 27, 2019 5:36 pm

An Images

সৌরভ মাজি, বর্ধমান: নববর্ষের দিনে সাঁইবাড়ির শহিদ বেদিতে মাল্যদান করে প্রচার সারলেন বর্ধমান-দূর্গাপুরের বিজেপি প্রার্থী এসএস আলুওয়ালিয়া। জানালেন, ‘‘আমার পুরনো সঙ্গীরা শহিদ হয়েছিলেন। তাঁরা সন্ত্রাসের বলি হয়েছিলেন। তাঁদের নমণ করি৷ শ্রদ্ধা জানাই। ওঁদের সামনে রেখে প্রার্থনা করি যাতে এই বাংলায় সন্ত্রাসের রাজনীতি শেষ হয়।” রাজনৈতিক মহলের মতে, খানিকটা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবেই সাঁইবাড়ির শহিদ বেদিতে মাল্যদান করেন বিজেপি প্রার্থী। কারণ, ১৯৭০-এর ১৭ মার্চের ওই গণহত্যার সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে বর্ধমানের আবেগ। নির্বাচনের মরশুমে যাকে কাজে লাগিয়ে পালে হাওয়া টানতে চাইলেন বিজেপি প্রার্থী।

[ আরও পড়ুন: তৃণমূলের হামলায় বাড়ছে নিরাপত্তাহীনতা, প্রচার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত ইশা খান চৌধুরির ]

সাঁইবাড়ির শহিদ বেদিতে মাল্যদান করে এসএস আলুওয়ালিয়া জানান, ওই সময় তিনি কংগ্রেস করতেন। সাঁইবাড়ির নিহতরা ছিলেন তাঁর সহকর্মী। এবং ওই মর্মান্তিক ঘটনার পরই আসানসোল থেকে সাঁইবাড়িতে এসেছিলেন তিনি। বর্ধমান-দূর্গাপুরের বিজেপি প্রার্থী অভিযোগ করেন, ‘‘বাংলায় সন্ত্রাসের রাজনীতি হয়েছে। সাইঁবাড়িতে হত্যাকাণ্ড হয়েছে, ভবানী শর্মা খুন হয়েছেন৷ মার্কসবাদী কমিউনিস্ট পার্টির সেই সন্ত্রাসের রাজনীতি বাংলার জনগণ ভালভাবে নেননি।’’ তিনি আরও বলেন, “বামেদের ওই সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে তৃণমূল আন্দোলন করেছে। ধরনায় বসেছে। বামেদের বিরুদ্ধে লড়াই করেছে। কিন্তু আজ তৃণমূলও সেই একই কাজ করছে। এর পরিণতিও ভাল হবে না। আট বছর আগে যে পরিবর্তন হয়েছিল, তখন মানুষ অনেক আশা করেছিলেন৷ কিন্তু তাঁরা এখন নিরাশ হয়েছেন।’’

[ আরও পড়ুন: জঙ্গিপুর কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থীর সমর্থনে কান্দিতে প্রচার করলেন দেব ]

সাঁইবাড়ির শহিদ বেদিতে মালা দেওয়ার আগে শহরের বিভিন্ন মন্দিরে পুজো দেন বিজেপি প্রার্থী। পুজো দেন কঙ্কালেশ্বরী কালীবাড়িতে, আলমগঞ্জের বর্ধমানেশ্বর শিব মন্দিরে, সর্বমঙ্গলা মন্দিরে, বড়মা কালীবাড়িতে৷ তিনি জানান, ‘‘১৪২৬ শুরু হচ্ছে। ভগবানের কাছে প্রার্থনা করলাম যাতে বাংলায় শান্তি, সমৃদ্ধি, ফিরে আসে৷ প্রার্থনা করলাম যাতে কোনও মা সন্তানহারা না হন৷ কোনও স্ত্রী যাতে স্বামীকে না হারান৷ কোনও ছেলে-মেয়ে যাতে তাদের বাবাকে না হারায়৷ বাংলার সন্ত্রাসের রাজনীতি যাতে বন্ধ হয়। জনগণ যাতে নিজের ভোট শান্তিপূর্ণ ভাবে প্রয়োগ করতে পারে৷” এদিন এসএস আলুওয়ালিয়ার সঙ্গে ছিলেন বিজেপির বর্ধমান সাংগঠনিক জেলার সভাপতি সন্দীপ নন্দী৷ জেলার শীর্ষ নেতা গোলাম জার্জিস৷ যুবমোর্চার জেলা সভাপতি শ্যামল রায় প্রমুখ।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement