BREAKING NEWS

৩০ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৮  সোমবার ১৪ জুন ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

করোনার কোপে কাজ নেই, অর্থকষ্টে দিন কাটছে শাহিদ কাপুরের সৎ বাবার

Published by: Suparna Majumder |    Posted: May 24, 2021 2:13 pm|    Updated: May 24, 2021 2:17 pm

Shahid Kapoor's step father Rajesh Khattar allegedly facing money problem | Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আর্থিক অনটনে দিন কাটছে শাহিদ কাপুরের (Shahid Kapoor) সৎ বাবা রাজেশ খট্টরের। রাজেশ (Rajesh Khattar) নিজেও হিন্দি টেলিভিশনের চেনা মুখ। একাধিক সিনেমায় গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন। আবার বলিউডের তরুণ অভিনেতা ইশান খট্টরের বাবা তিনি। এক সংবাদমাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে রাজেশের স্ত্রী অভিনেত্রী বন্দনা সাজনানি তাঁদের অর্থকষ্টের কথা জানান।

১৯৯০ সালে শাহিদ কাপুরের নাম নীলিমা আজিমকে (Neelima Azeem) বিয়ে করেছিলেন রাজেশ খট্টর। তারপরই দু’জনের ছেলে ইশান খট্টরের (Ishaan Khatter) জন্ম হয়। ২০০১ সালে নীলিমা ও রাজেশের বিচ্ছেদ হয়। ২০০৮ সালে বন্দনা সাজনানিকে বিয়ে করেন রাজেশ। বিয়ের ১১ বছর পর ২০১৯ সালের আগস্ট মাসে তাঁদের ছেলে বনরাজের জন্ম হয়।  ‘বেহদ’, ‘বেপনাহ’র মতো হিন্দি সিরিয়ালে অভিনয় করেছেন রাজেশ। তাঁর অভিনয় করা সিনেমার তালিকায় রয়েছে ‘ডন’, ‘ডন ২’, ‘রেস ২’, ‘খিলাড়ি ৭৮৬’, ‘ট্রাফিক’।

[আরও পড়ুন: দর্শকদের মন ভরাতে ব্যর্থ সলমন, তবে প্রথম বলিউড ছবি হিসেবে অনন্য নজির গড়ছে ‘রাধে’]

সংবাদমাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে বন্দনা জানান, ২০১৯ সাল থেকেই তাঁদের পরিবারে একের পর এক বিপত্তি এসে চলেছে। সন্তানের জন্মের পর বেশ কিছুদিন অসুস্থ ছিলেন বন্দনা। তাঁর ছেলেকেও অসুস্থতার কারণে আইসিইউতে ভরতি হতে হয়েছিল। করোনার (Corona Virus) দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময় রাজেশ আবার মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হন। কোভিড পজিটিভ হয়ে হাসপাতালে ভরতি হতে হয় তাঁকে। রাজেশের বাবাও করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভরতি ছিলেন। পরে তিনি প্রাণ হারান। হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েই বাবার শেষকৃত্য সম্পন্ন করতে হয়েছে রাজেশকে।

করোনা (COVID-19) কালে হাসপাতালে বেড পাওয়া খুবই কষ্টকর। বেসরকারি ক্ষেত্রে তা আবার বেশ খরচ সাপেক্ষ বিষয়। এমন পরিস্থিতিতে রাজেশের হাতে কাজ নেই। বহু সময় ধরে শুটিং বন্ধ ছিল। বন্দনাও হিন্দি টেলিভিশনের জনপ্রিয় অভিনেত্রী। কিন্তু ২০১৯ সাল থেকে এখনও পর্যন্ত একটি মাত্র বিজ্ঞাপনের কাজ পেয়েছিলেন বলে জানান। এমন পরিস্থিতিতে ক্রমাগত হাসাপাতালের খরচ চালিয়ে যেতে রাজেশ খট্টরের সমস্ত সঞ্চিত অর্থ শেষ হয়ে গিয়েছে। এখন সংসার চালানোই দায় বলে জানিয়েছেন বন্দনা। সাহায্য নয় কাজ চেয়েছেন অভিনেত্রী। যাতে কঠিন এই সময়ের সঙ্গে খেটে মোকাবিলা করা যায়।

[আরও পড়ুন: অতিমারীতে অব্যাহত মানবসেবা, এবার অক্সিজেন প্লান্ট বসাচ্ছেন সোনু সুদ]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement