BREAKING NEWS

১৩ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  সোমবার ৩০ নভেম্বর ২০২০ 

Advertisement

করোনা আতঙ্কেও ঝুঁকি নিয়ে কাজ, মহিলা সাফাইকর্মীকে কুর্নিশ বিদ্যা বালানের

Published by: Sandipta Bhanja |    Posted: April 3, 2020 6:35 pm|    Updated: April 3, 2020 6:35 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রাস্তার আস্তাকুঁড়ে আবর্জনা পরিষ্কার করা সাফাইকর্মীদের কুর্নিশ জানালেন বিদ্যা বালান। ঠিক যেভাবে ডাক্তার-স্বাস্থ্যকর্মী, পুলিশ তথা জরুরি পরিষেবার সকলেই প্রাণপাত করে করোনা আতঙ্কের মাঝেও দেশ তথা সমাজের স্বার্থে কাজ করে চলেছেন। সাফাইকর্মীরাও যে একপ্রকার সেই তালিকাতেই পড়ে, তা বললেও ভুল হবে না বোধহয়!  

পাড়ায় আসা সাফাই কর্মীর মুখটা শেষ কবে ঠিক করে দেখেছি, আমাদের অনেকেই হয়তো বলতে পারবেন না! কিংবা ওদের কোনও সুবিধে-অসুবিধের ব্যাপারেও সাধারণত তো আমরা খোঁজ রাখি না। প্রয়োজন বলেও মনে করি না। দরকারও পড়ে না যদিও! তবে এই লকডাউনে আমার-আপনার অফিস যাওয়া থেকে বিরতি থাকলেও কিংবা ‘ওয়ার্ক ফ্রম হোম’ থাকলেও ওঁদের কিন্তু কাজ থেকে ছুটি নেই। চারদিকে এমন করোনা আতঙ্কের মধ্যেও ওঁরা রোজ আসছেন বাড়ি বাড়ি। পাড়ায় ঢুকেই হুইসেল বাজাচ্ছেন। জানান দিচ্ছেন যে বাড়ির নোংরা-আবর্জনা নেওয়ার জন্য এসে গিয়েছেন। রাস্তায় পড়ে থাকা ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কার করে নিয়ে যাচ্ছেন। যাতে আপনার এলাকার চারপাশে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা বজায় থাকে। এমন কঠিন পরিস্থিতিতেও কিন্তু লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন সাফাইকর্মীরা। প্রাণের ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও প্রতিদিন বাড়ি বাড়ি এসে নোংরা আবর্জনা নিয়ে গিয়ে নির্দিষ্ট স্থানে ফেলছেন। উপরন্তু করোনার জীবাণু ধ্বংস করতে বিভিন্ন জায়গায় কীটনাশক ছড়িয়ে দিয়ে যাচ্ছেন। সেই সমস্ত মানুষগুলিকেই কুর্নিশ জানালেন বলিউড অভিনেত্রী বিদ্যা বালান।  

ইনস্টাগ্রামে একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন বিদ্যা। সেখানে দেখা যাচ্ছে বিএমসির এক মহিলা সাফাইকর্মী রাস্তায় পড়ে থাকা আবর্জনা কুড়িয়ে যথাস্থানে ফেলছেন। সকাল সকাল নিজের ব্যালকনি থেকে সেই দৃশ্য দেখে মহিলাকে কুর্নিশ জানালেন। বিদ্যা বারান্দা থেকেই চিৎকার করে ধন্যবাদ বললেন। ‘ম্যাডাম’ বলে সম্বোধন করে বললেন, “ধন্যবাদ, ঈশ্বর আপনার এবং আপনার পরিবারের সকলকে ভাল রাখুন সর্বদা।”

[আরও পড়ুন: ‘এটা ধর্মীয় সভা করে ভাইরাস ছড়ানোর সময় নয়’, নিজামুদ্দিন ইস্যু নিয়ে সরব রহমান]

আজ দশ দিনে পড়ল লকডাউন। বাকি এগারো দিন। গোটা দেশজুড়ে সবাই গৃহবন্দি। কড়া সতর্কতা জারি হয়েছে চারদিকে। অতঃপর বাইরে পা রাখার উপায় নেই। যদিও কিছু মানুষ লকডাউন উপেক্ষা করে এখনও রাস্তায় বেরচ্ছেন। বাড়ির প্রতিটা সদস্য বাড়িতে থাকার ফলে খাবারের প্যাকেট কিংবা অন্য কোনও বর্জ্য পদার্থও জমা হচ্ছে বাড়িতে। এমন কঠিন পরিস্থিতির মধ্যেও কিন্তু কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন ওঁরা। করোনা আতঙ্কেও ছুটি নেই সাফাইকর্মীদের।  এই কটা দিনের পরিস্থিতি হয়তো সকলকে শিখিয়ে দিয়েছে সমাজের নিচু স্তরের ব্যক্তিদেরও যে একইরকম সম্মান প্রাপ্য। 

[আরও পড়ুন: পরিযায়ী শ্রমিকদের উপর জীবাণুনাশক স্প্রে! যোগী সরকারের সমালোচনায় সরব স্বস্তিকা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement