BREAKING NEWS

১৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

দেশীয় গবেষণায় অগ্রাধিকার! PM CARES থেকে করোনার টিকা তৈরিতে বরাদ্দ ১০০ কোটি

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: May 15, 2020 8:50 am|    Updated: May 15, 2020 10:59 am

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: অবশেষে PM CARES অর্থাৎ জরুরি পরিস্থিতিতে নাগরিক সহায়তার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির তৈরি তহবিলের টাকার সদ্ব্যবহার শুরু হয়েছে। পরিযায়ী শ্রমিকদের সাহায্য, ভেন্টিলেটর কেনার পাশাপাশি ওই তহবিল থেকে করোনার প্রতিষেধক তৈরির লক্ষ্যে বরাদ্দ করা হয়েছে ১০০ কোটি টাকা। যা করোনা গবেষণায় গতি আনবে বলে মত গবেষকদের।

ভারতে এই মুহূর্তে ২৫টি ওষুধ নিয়ে গবেষণা চলছে। এর মধ্যে ১০টি ওষুধ তৈরির কাজে সরাসরি সাহায্য করছে সরকার। এতদিন এই সংস্থাগুলি যৎসামান্য সাহায্য পেত ডিপার্টমেন্ট অফ বায়োটেকনোলজির মাধ্যমে। এবার PM CARES তহবিল থেকে ১০০ কোটি টাকা সাহায্য করা হবে এদের। অর্থ বরাদ্দের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে মুখ্য বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টা কে বিজয়রাঘবনকে। এ প্রসঙ্গে ডিপার্টমেন্ট অফ বায়োটেকনোলজির কর্তা রেণু স্বরূপ বলছেন,”আগামী ২ দিনের মধ্যেই সাহায্যের টাকা পৌঁছে দেওয়া হবে। কাদের সাহায্য করা যায় আমরা ভেবে দেখব। তবে নিশ্চিতভাবেই শুধু দেশীয় পদ্ধতিতে যারা গবেষণা করছে তারাই সাহায্য পাবে।” রেণু স্বরূপের (Renu Swarup) সংস্থা অর্থাৎ ডিপার্টমেন্ট অফ বায়োটেকনোলজিই করোনার ওষুধ নিয়ে যারা গবেষণা করছে, তাঁদের অর্থ সাহায্যের দায়িত্বে আছে। ইতিমধ্যেই তাঁরা দশটি গবেষণা সংস্থাকে আর্থিক সাহায্য করেছে। PM CARES থেকে এই দশটি সংস্থার কোনওটি আর্থিক সাহায্য পাবে কিনা সেটা অবশ্য স্পষ্ট নয়।

[আরও পড়ুন: ‘পরিযায়ী শ্রমিকরা দেশের আত্মসম্মান, মাথা নোয়াতে দেওয়া যাবে না’, টুইট রাহুলের]

স্বরূপ বলছেন, এখন যে দশটি সংস্থা সাহায্য পাচ্ছে তাঁদের অধিকাংশই বিদেশি সংস্থার সঙ্গে যুক্ত। তাই এদের মধ্যে কেউ সাহায্য পাবে কিনা তা ঠিক হয়নি। এরা ছাড়াও আরও ১৫টি সংস্থা গবেষণা করছে। তাদের প্রস্তাবও ভেবে দেখা হবে। একেকটি সংস্থা গবেষণার একেকটি পর্যায়ে আছে। সবার অগ্রগতি খতিয়ে দেখবে একটি কমিটি।

[আরও পড়ুন: কার্ড ছাড়াই আগামী দু’মাস বিনামূল্যে রেশন পাবেন পরিযায়ী শ্রমিকরা, বড় ঘোষণা কেন্দ্রের]

একটা বিষয় স্পষ্ট প্রধানমন্ত্রী যেভাবে আত্মনির্ভর হওয়ার কথা বলছেন, PM CARES এর বরাদ্দ সেটা মাথায় রেখেই করা হবে। প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে এই তহবিলের ৩১০০ কোটি টাকার মধ্যে ২ হাজার কোটি টাকা করোনা চিকিৎসার ভেন্টিলেশনে ব্যবহার হবে। ১ হাজার কোটি টাকা ব্যবহার হবে পরিযায়ী শ্রমিকদের উন্নয়নের খাতে। বাকি ১০০ কোটি টাকা করোনার প্রতিষেধক প্রস্তুতির কাজে বরাদ্দ করা হবে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement