১৯ আষাঢ়  ১৪২৭  সোমবার ৬ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

১৫ দিনের মধ্যে ফেরাতে হবে বাকি পরিযায়ীদের! রাজ্যগুলির চাপ বাড়িয়ে সাফ নির্দেশ শীর্ষ আদালতের

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: June 5, 2020 4:22 pm|    Updated: June 5, 2020 4:22 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: পরিযায়ী শ্রমিকদের বাড়ি ফেরাতে ফের রাজ্যগুলির উপর চাপ বাড়াল দেশের শীর্ষ আদালত। এদিন রাজ্যগুলিকে সর্বোচ্চ ১৫ দিনের সময় বেঁধে দিল সুপ্রিম কোর্ট ( Supreme Court)। এই এক পক্ষকালের মধ্যেই ভিন রাজ্যে আটকে থাকা বাকি পরিযায়ীদের বাড়ি ফেরাতে রাজ্যগুলিকে পরিবহনের ব্যবস্থা করতে হবে জানায় তিন বিচারপতির বেঞ্চ।

লকডাউনের মধ্যে বাড়ি ফেরার জন্য হাজার হাজার কিলোমিটার হেঁটেছেন পরিযায়ী শ্রমিকরা। কখনও তাঁরা রাস্তায় জল ও খাবারের ব্যবস্থা করতে পেরেছেন কখনও বা খালি পেটেই মাইলের পর মাইল যাত্রা করেছেন। কিন্তু এভাবে বাড়ি ফিরতে গিয়ে নিয়তির কবলে পড়ে অকালে প্রাণও হারিয়েছেন বহু শ্রমিক (Migrant Workers)। সেই পরিস্থিতি রুখতে আগেই রাজ্যগুলিকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেছিল সুপ্রিম কোর্ট। পরিযায়ী শ্রমিকদের থেকে ট্রেনের ভাড়া না নিয়ে তাদের নিজ দায়িত্বে বাড়ি ফেরাতে নির্দেশ দেয় রাজ্যগুলিকে। তবে এদিন শুনানি চলাকালীন পরিযায়ী শ্রমিকদের বাড়ি ফেরার নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দিল দেশের শীর্ষ আদালত। সর্বোচ্চ ১৫ দিনের মধ্যে প্রতিটি রাজ্যে আটকে থাকা পরিযায়ী শ্রমিকদের বাড়ি ফেরানোর নির্দেশ দেওয়া হয়। অর্থাৎ শ্রমিকদের বাড়ি ফেরার ক্ষেত্রে কোনও গড়িমসি আর সহ্য করবে না দেশের শীর্ষ আদালত। তাই দ্রুত শ্রমিকদের বাড়ি ফেরাতে রাজ্যগুলিকে কড়া নির্দেশ দেয় তিন বিচারপতির বেঞ্চ।

[আরও পড়ুন:সস্ত্রীক করোনায় কাবু মুম্বই বিস্ফোরণের ‘মাস্টার মাইন্ড’ দাউদ, চাঞ্চল্য অপরাধ জগতে]

এদিন শুনানি চলাকালীন সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহেতা কেন্দ্রের খতিয়ান তুলে ধরে জানান, “৩ জুন পর্যন্ত ৪ হাজার ২২৮ টি শ্রমিক স্পেশ্যাল ট্রেন চালানো হয়েছে। তার সাহায্যে ৫৭ লক্ষ পরিযায়ীদের বাড়ি ফেরানো হয়। ৪১ লক্ষ শ্রমিকের মধ্যে কেউ পায়ে হেঁটে কেউ বা গাড়ি ভাড়া করে বাড়ি পৌঁছেছেন। তবে এখনও প্রায় ১ কোটির মত শ্রমিক আটকে রয়েছেন। এই পরিযায়ী শ্রমিকদের বাড়ি ফেরাতে সবথেকে বেশি ট্রেন বিহার ও উত্তরপ্রদেশে দেওয়া হয়েছে।”

[আরও পড়ুন:কর্মীদের ‘করোনার মুখে ঠেলে’ বেমালুম হাওয়া আধিকারিক, ক্ষুব্ধ রেলকর্মীরা]

তবে কেন্দ্রের সমস্ত খতিয়ান দেখে তিন বিচারপতির বেঞ্চ জানায় যে, কেন্দ্র ও রাজ্যকে তারা ১৫ দিনের সর্বোচ্চ সময় দিতে চায়। এই সময়ের মধ্যেই প্রতিটি রাজ্যকে পরিযায়ীদের কর্মসংস্থান ও ত্রান দেওয়ার তালিকা প্রস্তুত করতে হবে। পাশাপাশি পরিযায়ী শ্রমিকদের রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। শুক্রবার শ্রমিকদের ট্রেনে রেজিস্ট্রেশনের বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে আইনজীবী কোলিন গঞ্জালভেস জানান, “দেশের শীর্ষ আদালতকে শ্রমিকদের রেজিস্ট্রেশনের বিষয়ে নজর দেওয়া প্রয়োজন। সঙ্গে এই পদ্ধতি আরও সহজলভ্য করে তুলতে হবে।” এভাবেই রাজ্যগুলির উপর চাপ বাড়িয়ে শ্রমিক বাড়ি ফেরার পর্বে দ্রুত ইতি টানতে চায় সুপ্রিম কোর্ট।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement