৪ আশ্বিন  ১৪২৬  রবিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রবল বৃষ্টির জেরে হিমাচল প্রদেশের বিভিন্ন জায়গায় একদিনে কমপক্ষে ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে। জখম হয়েছে আরও আটজন। রবিবার এই পরিসংখ্যান তুলে ধরে জানিয়েছে হিমাচল প্রদেশের প্রশাসন।

[আরও পড়ুন: প্রেম প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় কিশোরীকে খুন, অভিযোগ নিতে অস্বীকার পুলিশের]

সিমলা প্রশাসন সূত্রে খবর, ২২ জনের মধ্যে সিমলাতে আটজন, কুলু, সোলান, চম্বা ও স্যারমউরে ২ জন করে মোট আটজন, আর উনা ও লাহুল-স্পিতি জেলায় একজন করে মোট দু’জনের মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, শিমলা শহরের আরটিও অফিসের কাছে একটি জায়গায় ধস নামে। এর জেরে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে ও একজন জখম হয়েছে।

অন্যদিকে নারখণ্ড এলাকায় একটি বাড়িতে গাছ পড়ে মৃত্যু হয়েছে নেপালের দু’জন নাগরিকের। জখম হয়েছেন আরও তিনজন। পাশাপাশি রবিবার সকালেই প্রবল বৃষ্টির জেরে লোয়ার সিমেট্রি এলাকায় একটি বাড়ির দেওয়াল ভেঙে মৃত্যু হয়েছে এক শ্রমিকের। জখম হয়েছে আর ছ’জন। মৃতের নাম শাহ আলম। তিনি বিহারের কিষাণগঞ্জ জেলার বাসিন্দা বলে জানা গিয়েছে। হাটকোটি কেঞ্চি এলাকার কাছে অবস্থিত জাতীয় সড়কে ধস নেমে চাপা পড়ে একটি লরি। এর জেরে মৃত্যু হয় ট্রাক চালকের।

এপ্রসঙ্গে সিমলা জেলার জেলাশাসক অমিত কাশ্যপ জানান, প্রবল বৃষ্টিতে বিপর্যয় বাড়ছে। চারিদিক ভূমিধসে মানুষের প্রাণহানি ঘটছে, তাই সোমবার সিমলার সমস্ত স্কুল বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এর পাশাপাশি কুলুর সমস্ত সরকারি ও বেসরকারি স্কুলও বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন।

[আরও পড়ুন: নেতাজির ‘মৃত্যু দিবসে’ শ্রদ্ধা জানিয়ে বিতর্কে পিআইবি, রহস্য উন্মোচনে সরব মমতা]

আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে জানানো হয়েছে, আগামী দুদিন আরও বেশি ঝড়বৃষ্টি হতে পারে হিমাচলের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে। তাই প্রশাসনকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

রবিবার সকালে কিন্নর জেলার রিব্বা এলাকায় প্রবল বৃষ্টির জেরে ভূমিধসে ৫ নম্বর জাতীয় সড়ক কার্যত বন্ধ হয়ে পড়ে।  শনিবার থেকে প্রবল বৃষ্টির জেরে চারিদিক ধস নামছে। এর ফলে হিমাচলের বেশিরভাগ রাস্তায় যান চলাচল থমকে গিয়েছে।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং