BREAKING NEWS

১ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বিয়ে করার আশায় লকডাউনে ৮৫০ কিমি রাস্তা সাইকেলে পাড়ি, কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে ঠাঁই যুবকের

Published by: Sayani Sen |    Posted: April 19, 2020 12:07 pm|    Updated: April 19, 2020 10:19 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কারও প্রেমে পড়লে মানুষ কত কিছুই না করে! বিয়ে নিয়ে মতবিরোধ থাকলেও, সাত পাকে বাঁধা পড়ার স্বপ্নও থাকে বেশিরভাগ মানুষের। লকডাউনের আবহেও সেই স্বপ্নকে সত্যি করতে প্রায় ৮৫০ কিলোমিটার রাস্তা সাইকেলে চড়ে পার করার আশায় বাড়ি ছেড়ে বেরিয়ে পড়েন এক যুবক। যদিও গন্তব্যস্থল থেকে মাত্র ১৫০ কিলোমিটার আগে পুলিশ তাঁদের আটক করে। শেষ পর্যন্ত যদিও বিয়ে হয়নি। পরিবর্তে কোয়ারেন্টাইন সেন্টারেই থাকতে হবে ওই যুবককে।

টাইলসের কারখানায় কাজ করেন সোনু কুমার চৌহান। পরিবারের লোকজনই তাঁর বিয়ের বন্দোবস্ত করেন। স্থির হয় ১৫ এপ্রিল উত্তরপ্রদেশের এক তরুণীর সঙ্গে চার হাত এক হবে সোনুর। বিয়ে বলে কথা! প্রস্তুতি হলে হয়? তাই সেই অনুযায়ী প্রস্তুতি চলছিলই। তবে আচমকাই লকডাউন। কীভাবে যে সাত পাকে বাঁধা পড়বেন সোনু, সেই ভাবনায় প্রায় মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে প্রত্যেকের। তবে এক সময়ে সকলেই স্থির করেছিলেন বিয়ে স্থগিত রাখবেন। করোনা পরিস্থিতি কেটে গেলেই না হয় সারা যাবে শুভ কাজ। কিন্তু বছর চব্বিশের সোনু নাছোড়বান্দা। তিনি স্থির করলেন ৮৫০ কিলোমিটার রাস্তা সাইকেলে চড়ে গিয়ে বিয়ে করবেন। যেমন ভাবনা, তেমনই কাজ। পাঞ্জাবের লুধিয়ানা থেকে সাইকেলে চড়ে বেরিয়ে পড়লেন ওই যুবক। সঙ্গী তিন বন্ধু। কখনও ক্লান্ত হয়েছেন আবার কখনও বা খিদেতে চিনচিন করে উঠেছে পেট। কিন্তু সোনু তাঁর সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেননি। এভাবেই প্রায় সপ্তাহখানেক ধরে সাইকেল চালান সোনু এবং তাঁর বন্ধুবান্ধব।

[আরও পড়ুন: ‘কেন্দ্রের সাথে কথা বলুন’, পরিযায়ী শ্রমিকদের ফেরানোর দাবিতে মমতাকে চিঠি অধীরের]

কিন্তু গন্ডগোলটা বাধল রবিবার। মহারাজগঞ্জের পিপরা রসুলপুরের কাছে পুলিশের সোনু-সহ চারজনকে দেখে সন্দেহ করে। তাঁদের পথ আটকান রাস্তায় কর্তব্যরত পুলিশকর্মীরা। কী কারণে লকডাউনেও সাইকেল চালিয়ে যাচ্ছেন তাঁরা, সেই প্রশ্ন করেন। সোনু উত্তর দেন। তিনি জানান, বিয়ের জন্য প্রায় ৮৫০ কিলোমিটার রাস্তা সাইকেলে চড়ে যাওয়ার পরিকল্পনায় বাড়ি থেকে বেরিয়েছেন তাঁরা। কিন্তু পুলিশ গন্তব্যস্থলে পৌঁছতে দেয়নি তাঁদের। গন্তব্যস্থল থেকে প্রায় ১৫০ কিলোমিটার আগে আটক করা হয় সোনু ও তাঁর বন্ধুবান্ধবদের। সোনু বলেন, “বাড়িতে বিয়ের আয়োজন করা হয়েছে তাই যাচ্ছিলাম। যদিও করোনা সংক্রমণের আশঙ্কার কথা মাথায় রেখে একেবারে ছোট করেই বিয়ের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। কিন্তু পুলিশ আমাকে বাড়ি পৌঁছতে দিল না। কি আর করা যাবে! আগে সুস্থ আছি কি না দেখি তারপর না হয় বিয়ে হবে।” আপাতত ওই যুবকদের বলরামপুরের এক কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে পাঠানো হয়েছে। আগামী ১৪ দিন পর্যবেক্ষণে রাখা হবে তাঁদের। সুস্থ থাকলে তাঁদের পাঠিয়ে দেওয়া হবে বাড়িতে।

[আরও পড়ুন: গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন, চিন থেকে আমদানি করা PPE ব্যবহার করছে না অসম]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement