১৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  বৃহস্পতিবার ২ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

অরুন্ধতী প্রসঙ্গে এবার আরও আক্রমণাত্মক পরেশ রাওয়াল

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: May 26, 2017 5:54 am|    Updated: May 26, 2017 5:54 am

Arundhati Roy must understand the adverse condition faced by jawans, says Paresh Rawal

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ‘সেনাকে লক্ষ্য করে পাথর নিক্ষেপকারীদের কাছে অরুন্ধতী রায় ভগবানের মতো, উনি শান্তির পায়রা। তাঁর কথার কোনও অবহেলা করবে না পাথর নিক্ষেপকারীরা।’ বিতর্কিত টুইট মুছলেও অরুন্ধতী প্রসঙ্গে এমনই কটাক্ষ বিজেপি সাংসদ ও অভিনেতা পরেশ রাওয়ালের। একটি বেসরকারি সংবাদ চ্যানেলকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে পরেশ রাওয়াল বলেছেন, “আমার টুইটের ভুল ব্যাখা করা হয়েছে। আমি বলতে চেয়েছি অরুন্ধতীকে জিপে বসালে আর সেনা জিপের দিকে পাথর ছুড়বে না। কারণ, কাশ্মীরের পাথর নিক্ষেপকারীরা অরুন্ধতীর শুভানুধ্যায়ী।”

গত ৯ এপ্রিল এক কাশ্মীরি পাথর নিক্ষেপকারীকে জিপের সামনে বেঁধে উত্তেজনাপ্রবণ এলাকা থেকে বেরিয়ে আসেন মেজর লিটুল গগৈ। তাঁর দাবি, জম্মু ও কাশ্মীরের উত্তেজনাপ্রবণ বদগাঁও এলাকায় হামলাকারীদের হাত থেকে সেনা ও ভোটকর্মীদের বাঁচাতেই তিনি ওই পদক্ষেপ করেন। তাঁর বুদ্ধিমত্তার প্রশংসা করেন খোদ সেনাপ্রধান মেজর জেনারেল বিপিন রাওয়াত, প্রতিরক্ষামন্ত্রী অরুণ জেটলি। কিন্তু কংগ্রেস-সহ কয়েকটি বিরোধী দল ও বিচ্ছিন্নতাবাদীরা সেনার এই পদক্ষেপের সমালোচনা করে। ওই ঘটনার প্রসঙ্গে অরুন্ধতী রায়কে নিয়ে একটি ভুল খবর প্রকাশিত হয় কয়েকটি ভুয়ো খবরের ওয়েবসাইটে। যেখানে লেখা হয়, একটি পাক সংবাদপত্রকে অরুন্ধতী নাকি বলেছেন, “৭০ লক্ষ ভারতীয় সেনাও কাশ্মীরের আজাদি স্লোগানকে স্তব্ধ করতে পারবে না।”

মাইক্রো ব্লগিং সাইটে ওই ভুয়ো খবর পড়ে বেজায় চটে যান পরেশ রাওয়াল। তিনি পাল্টা টুইট করে বসেন, “বিষাক্ত অরুন্ধতীকে জন্মের শংসাপত্র দিয়ে ম্যাটারনিটি ওয়ার্ডও ক্ষমাপ্রাথী।” এই টুইট নিয়ে দেশ জুড়ে বিতর্কের ঢেউ উঠলে শেষমেশ ওই টুইট ডিলিট করে দেন বিজেপি সাংসদ। তাঁর টুইটের ভুল ব্যাখ্যা করা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। মনে করা হচ্ছিল, তিনি বোধহয় তাঁকে কৃতকর্মের জন্য ক্ষমাপ্রাথী। কিন্তু ফের একের পর এক বিস্ফোরক মন্তব্য করে ফের পরেশ রাওয়াল প্রমাণ করে দিলেন, তাঁর অবস্থান থেকে একচুলও সরে আসেননি তিনি।

সংবাদ চ্যানেলকে পরেশ রাওয়াল বলেন, “জেএনইউ-র আন্দোলনকারী নেত্রী শীলা রশিদ যখন গৌতম গম্ভীরকে জিপে বেঁধে ঘোরানোর কথা বলেন, ছবি পোস্ট করেন, তখন কেউ কিছু বলে না। কোনও বিতর্ক হয় না। দ্বিগ্বিজয় সিং যখন বলেন, যাঁরা বিজেপি-পিডিপি জোট করেছেন, তাঁদের সেনা জিপে বেঁধে ঘোরানো উচিত-তখনও কোনও বিতর্ক হয় না। আমি বললেই যত দোষ। অরুন্ধতীকে নিয়ে ওই কথা বলেছি, কারণ তাঁর জানা উচিত আমাদের দেশের সেনা কী প্রতিকূলতার মধ্যে কাজ করে! সেনাকে সমর্থন জানানো প্রত্যেকের উচিত।”

দেখুন ভিডিও:

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে