BREAKING NEWS

১৭ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  শনিবার ৪ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

NPR চেয়েছিল কংগ্রেসও, ভিডিও প্রকাশ্যে আসতেই সাফাই চিদম্বরমের

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: December 27, 2019 12:03 pm|    Updated: December 27, 2019 12:04 pm

Chidambaram, Amit Malviya clash on twitter over NPR

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: অস্বস্তি এড়াতে পালটা আক্রমণের পথই বেছে নিলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরম। তাঁর দাবি, কংগ্রেস যে ন‌্যাশনাল পপুলেশন রেজিস্টার বা NPR চেয়েছিল, তার চেয়ে অন‌্য রকম এবং বিপজ্জনক এনপিআর চালু করতে চাইছে বিজেপি।

বুধবার বিজেপি নেতা অমিত মালব্য টুইটারে প্রাক্তন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পি চিদম্বরমের একটি পুরনো ভিডিও প্রকাশ করেন। তাতে দেখা যায়, NPR করলে কী সুবিধা হতে পারে তা নিয়ে চিদম্বরম বিস্তারিত ব‌্যাখ‌্যা করছেন। অমিত মালব্য অভিযোগ করেন, কংগ্রেস দ্বিচারিতা করছে। কংগ্রেস সরকারে থাকার সময় স্বয়ং মন্ত্রী NPR-এর কথা বলেছিলেন। পরে এনডিএ সরকার যখন NPR চালু করতে চাইছে, তখন কংগ্রেস বিরোধিতা করছে।

[আরও পড়ুন: কেন্দ্রের পেনশন প্রকল্পের জন্য বাধ্যতামূলক আধার, ঘোষণা অর্থমন্ত্রকের]

বৃহস্পতিবার টুইটারে অভিযোগের জবাব দিলেন চিদম্বরম। তাঁর বক্তব্য, তিনি যে NPR চালু করতে চেয়েছিলেন আর বিজেপি এখন যা করতে চাইছে, দু’টি এক নয়। টুইটে চিদম্বরম বলেন, ‘বিজেপি শাসিত সরকারের আরও বড় এবং ক্ষতিকর উদ্দেশ‌্য রয়েছে। সেইজন্য গতকাল তাদের অনুমোদন করা জাতীয় জনসংখ্যাপঞ্জি ২০২০-এর বিষয় এবং মূল ভাবনা খুবই সাংঘাতিক।’ অমিত মালব্য যে ভিডিওটি পোস্ট করেছেন, তা ২০১০ সালের।

এদিন চিদম্বরম টুইট করে বলেন, ‘বিজেপি যে এনপিআর চালু করতে চায়, তা আগের চেয়ে ভিন্ন ও বিপজ্জনক। ২০১০ সালে এনপিআর চালুর সময়কার একটি ভিডিও পোস্ট করেছে বিজেপি। আমি তাতে খুশি হয়েছি। দয়া করে শুনুন, আমি কী বলেছিলাম। আমি বলেছিলাম, যাঁরা দেশের স্বাভাবিক বাসিন্দা, তাঁদের সংখ্যা গোনা হবে। সেখানে ধর্মের কোনও কথা ছিল না। আমরা বাসিন্দার কথা বলেছিলাম, নাগরিকত্বের কোনও কথা সেখানে ছিল না।’

চিদম্বরমের বক্তব্য, ২০১১ সালের জনগণনার প্রস্তুতি হিসাবে ২০১০ সালে এনপিআর করা হয়েছিল। তার সঙ্গে জাতীয় নাগরিকপঞ্জির কোনও সম্পর্ক নেই। তাছাড়া বাসিন্দাদের ধর্ম ও জন্মস্থান সম্পর্কেও কোনও প্রশ্ন ছিল না। চিদম্বরম বলেন, ‘বিজেপির উদ্দেশ্য যদি সৎ হয়, তাহলে সরকার নিঃশর্তে জানাক, তারা ২০১০ সালে যেভাবে এনপিআর হয়েছিল, ফের সেভাবেই করবে। তার সঙ্গে এনআরসি-র কোনও সম্পর্ক নেই।’

দেশের অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করতে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি করা হয়। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে তা অসমে করা হয়েছে। বিরোধীদের অভিযোগ, নয়া নাগরিকত্ব আইনের সঙ্গে সঙ্গে এনআরসি-তে মুসলিমদের টার্গেট করা হতে পারে। যদিও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেছিলেন, এনপিআর-এর সঙ্গে এনআরসি-র কোনও সম্পর্ক নেই। পশ্চিমবঙ্গ ও কেরলের মতো রাজ্য ইতিমধ্যে জানিয়ে দিয়েছে, তারা এনপিআর করতে দেবে না। কারণ এর মাধ্যমে যে তথ্য সংগ্রহ করা হবে, তা এনআরসি তৈরিতে কাজের লাগবে। এনআরসি-তে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন মুসলিমরা। মঙ্গলবার দেশজুড়ে এনপিআর অনুমোদন করে কেন্দ্রীয় সরকার।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে