BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘রাস্তায় এসে প্রদীপ জ্বালান’, বেফাঁস মন্তব্য করে বেকায়দায় দেবেন্দ্র ফড়ণবিস

Published by: Paramita Paul |    Posted: April 5, 2020 4:54 pm|    Updated: April 5, 2020 4:56 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ‘রাস্তায় বেরিয়ে প্রদীপ জ্বালান’। এমন আবেদন জানিয়ে নেটিজেনদের রোষের মুখে মহারাষ্ট্রের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়ণবিস। তাঁকে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে বলেও দাবি তোলে কংগ্রেস নেতৃত্ব। শেষপর্যন্ত চাপের মুখে রবিবার নতুন এক ভিডিওতে বাড়ির মধ্যে প্রদীপ, মোমবাতি জ্বালনোর আবেদন জানান ফড়ণবিস। প্রসঙ্গত, লকডাউনের মাঝেই দেশবাসীর আত্মশক্তি জাগ্রত করতে ও একতার সূত্রে বাঁধতে রাত নটায় ৯ মিনিটের জন্য বাড়ির আলো নিভিয়ে বাতি জ্বালানোর আবেদন জানিয়েছেন। এই আবেদন ঘিরে নেটিজেনদের রোষের মুখে পড়েন প্রধানমন্ত্রীও।

করোনার প্রকোপ রুখতে সরকারি নির্দেশে ঘরবন্দি দেশবাসী। বৈদ্যুতিন আলো নিভিয়ে প্রদীপ বা বাতি জ্বালানোর পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তবে তা ঘরের মধ্যে থেকেই, রাস্তায় বের হতে নিষেধ করেছেন তিনি। কিন্তু তাঁর দলেরই এক নেতা রীতিমতো রাস্তায় নেমে প্রদীপ প্রজ্বলনের আবেদন জানান। এ বিষয়ে একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্টও করেন দেবেন্দ্র ফড়ণবিস। এরপরই নেটিজেনদের কোপের মুখে পড়েন তিনি।

নেটিজেনদের অভিযোগ, একদিকে সরকার ঘরে থাকার নির্দেশ দিচ্ছে। বলছে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। আবার সেই দলেরই নেতা বলছেন রাস্তায় নেমে প্রদীপ জ্বালান। ফলে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা যাবে না। ফলে করোনা আরও ছড়াতে পারে। প্রসঙ্গত, ইতিমধ্যে দেশের মধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা সর্বাধিক মহারাষ্ট্রে। সংক্রামিতের সংখ্যা ৭০০ ছুঁইছুঁই।

[আরও পড়ুন : ১৫ এপ্রিল কি উঠে যাচ্ছে লকডাউন? জল্পনা বাড়াল যোগীর দাবি]

দেবেন্দ্র ফড়ণবিশের সমালোচনা করে মহারাষ্ট্রের কংগ্রেসের মুখপাত্র শচিন সাওয়ান্ত বলেন, “এমন দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্তব্যের তীব্র নিন্দা করছি। এর আগে মোদিজির ডাকে বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা রাস্তায় নেমে থালা-বাসন বাজিয়ে সামাজিক দূরত্বকে প্রহসনে পরিণত করেছিলেন। ওঁরা কি মহারাষ্ট্রকে দ্বিতীয় মারকাজ তৈরি করতে চান।” এহেন মন্তব্যের জন্য বিজেপিকে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে বলেন তিনি। এরপরই তড়িঘড়ি নতুন একটি ভিডিও বার্তা দেন দেবেন্দ্র ফড়ণবিস।

[আরও পড়ুন : কোয়ারেন্টাইন থেকে বেরিয়েই ডিউটিতে ফিরতে চান করোনামুক্ত নার্স]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement