৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রথম আঘাতটা এসেছিল অসমের দীর্ঘদিনের কংগ্রেস সাংসদ ভুবনেশ্বর কলিতার কাছ থেকে। সংসদে ৩৭০ ধারা বাতিল হওয়ার পরেই কংগ্রেসের সমালোচনায় মুখর হয়েছিলেন এই বর্ষীয়ান নেতা। পরে অবশ্য বিজেপিতে যোগ দেন তিনি। এবার সেই পথে হেঁটে কংগ্রেস পথ ভুলেছে বলে মন্তব্য করলেন হরিয়ানার প্রাক্তন কংগ্রেসি মুখ্যমন্ত্রী ভূপিন্দার সিং হুডা।

রবিবার রোহতকে দলের একটি জনসভায় অংশ নিয়েছিলেন তিনি। আর সেখানে গিয়ে দলের ঘোষিত লাইনের উলটো পথে হাঁটেন। অন্য কংগ্রেস নেতারা কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা বাতিলের সিদ্ধান্তকে গণতন্ত্রের উপর চরম আঘাত বলে বর্ণনা করছেন। বিজেপিকে স্বৈরাচারী দল বলে কটাক্ষ করছেন। তখন কেন্দ্রীয় সরকারের কাশ্মীর নীতিকে সমর্থন করলেন হুডা।

[আরও পড়ুন: প্রবল বৃষ্টিতে পাহাড়ে ভূমিধস, হিমাচলে একদিনেই মৃত কমপক্ষে ২২]

এপ্রসঙ্গে রবিবারের জনসভায় তিনি বলেন, ‘সম্প্রতি কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার করা হয়েছে। আমার অনেক সহকর্মী এর বিরোধিতা করছেন। এসব দেখে আমার মনে হচ্ছে যে দল কিছুটা পথভ্রষ্ট হয়েছে। দলটা আর আগের মতো নেই। কিন্তু, যখনই দেশপ্রেম এবং আত্মসম্মানের প্রশ্ন আসে, তখন আমি কোনও কিছুর সঙ্গে আপোস করি না। তাই দলের সবাই এই পদক্ষেপের বিরোধিতা করলেও আমি একে সমর্থন জানাই। একটি জাতীয়তাবাদী পরিবারে আমার জন্ম হয়েছে। ফলে দেশ আমার কাছে সবার আগে। আর তাই ৩৭০ ধারা বাতিল হওয়া নিয়ে যাঁরা প্রতিবাদ করছে তাঁদের বলতে চাই, যেখানে আদর্শের ওপরে আঘাত আসে, সেখানে সংঘাত অনিবার্য।’

কেন্দ্রের পাশে দাঁড়ালেও গত পাঁচ বছর মনোহর লাল খাট্টারের বিজেপি সরকার হরিয়ানার জন্য কিছু করেনি বলেই দাবি করেন হুডা। জানান, তাঁর নেতৃত্বে কংগ্রেস যদি হরিয়ানার ক্ষমতা আসে তাহলে অন্ধ্রপ্রদেশের মতো রাজ্যবাসীর  জন্য চাকরিতে ৭৫ শতাংশ সংরক্ষণ করবেন।

[আরও পড়ুন: নেতাজির ‘মৃত্যু দিবসে’ শ্রদ্ধা জানিয়ে বিতর্কে পিআইবি, রহস্য উন্মোচনে সরব মমতা]

বাবার মতো না হলেও কেন্দ্রের পদক্ষেপের প্রশংসা করেছেন ভূপিন্দারপুত্র দীপেন্দর সিং হুডাও। তিনি বলেন, ‘আমাদের পরিবার সবসময়ই দেশপ্রেমকে সবকিছুর উপরে রেখেছে। তাছাড়া ৩৭০ ধারা একটি অস্থায়ী ব্যবস্থা ছিল। তাই অনেক আগেই তা তুলে দেওয়া উচিত ছিল। কিছু মানুষ রাজনৈতিক সুবিধার জন্য এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করছে। কিন্তু, আমি এটা বাতিল করার পদ্ধতির বিরোধিতা করলেও প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তকে সমর্থন জানাই।’ তাঁর এই মন্তব্যের পরই জল্পনা উসকে উঠছে, তাহলে সংঘাত অনিবার্য করেই কি শিবির বদলানোর পথে হাঁটছেন হুডা? 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং