৭ ভাদ্র  ১৪২৬  রবিবার ২৫ আগস্ট ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দীর্ঘদিনের নাটকের যবনিকা পতন৷ অবশেষে কর্ণাটক বিধানসভায় পতন ঘটল কংগ্রেস-জেডিএসের জোট সরকারের৷ আস্থা ভোটে প্রয়োজনীয় সমর্থন জোগাড় করতে পারলেন না মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামী৷ জয় হল ইয়েদুরাপ্পার নেতৃত্বাধীন বিজেপির৷ সূত্রের খবর, ৯৯টি ভোট পড়েছে কংগ্রেস-জেডিএসের পক্ষে৷ অন্যদিকে বিজেপি পেয়েছে ১০৫টি ভোট৷

[ আরও পড়ুন: ডাইনি অপবাদে ২ মহিলা-সহ তিনজনকে মলমূত্র খাওয়ানো হল ঝাড়খণ্ডে ]

প্রসঙ্গত, শনিবার পর্যন্ত আস্থা ভোটে গড়িমসি করছিলেন খোদ স্পিকার। কিন্তু, সোমবার তিনি নিজেই আস্থা ভোট করানোর নির্দেশ দেন সরকারপক্ষকে। জানিয়ে দেওয়া হয় সন্ধে ৬টার মধ্যে অনাস্থা প্রস্তাবে যাবতীয় আলোচনা শেষ করে ভোটাভুটির ব্যবস্থা করতে হবে। যা সরকারপক্ষকে রীতিমতো চাপে ফেলে দেয়। ডি কে শিবকুমার, সিদ্দারামাইয়ারা লাগাতার চেষ্টা করেন গিয়েছেন বিদ্রোহী বিধায়কদের সঙ্গে যোগাযোগ করার। কিন্তু, তাতে কোনও লাভ হয়নি। অবশেষে শিবকুমার হুমকি দেন, বিধায়করা যদি ফিরে না আসেন তাহলে তাদের বিধায়ক পদ বাতিল করা হবে। মঙ্গলবার কংগ্রেসের পরিষদীয় নেতা সিদ্দারামাইয়া হুঁশিয়ারির সুরে জানান, যারা দলের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন, কোনও ভাবেই তাঁদের ফেরত নেওয়া হবে না৷

[ আরও পড়ুন:  শিব সেজে মন্দিরে দাঁড়িয়ে আছেন তেজপ্রতাপ! লালুপুত্রকে দেখে হতবাক জনতা]

শেষে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামী জানান, ক্ষমতা কখনওই স্থায়ী হয় না৷ তিনি আস্থা ভোটকে ভয় পান না৷ তাই তিনি ভোটের জন্য তৈরি৷ এরপরই আস্থা ভোট শুরু হয়৷ অনাস্থার প্রস্তাব পেশ হয় বিধানসভায়৷ এবং জল্পনা মতোই ধ্বনিভোটে সমর্থন জোটাতে ব্যর্থ হন মুখ্যমন্ত্রী এইচডি কুমারস্বামী৷ ১০৫-৯৯ ভোটে বিজেপির কাছে পরাজিত হয় কংগ্রেস-জেডিএস জোট৷ সূত্রের খবর, আগামী দু’দিনের মধ্যেই রাজ্যপালের কাছে গিয়ে সরকার গড়ার প্রস্তাব পেশ করবে বিজেপি৷ আবারও কর্ণাটকের মসনদে বসতে চলেছেন ইয়েদুরাপ্পা৷ রাজ্যের পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন তিনি৷ আস্থা ভোটে জয়ের পর ইয়েদুরাপ্পা জানান, ‘‘ গণতন্ত্রের জয়৷ কর্ণাটকের মানুষ এই সরকারের জন্য নাজেহাল হয়ে উঠেছিল৷ আমরা কর্ণাটকের মানুষের জন্য কাজ করতে মুখিয়ে রয়েছি৷’’ 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং