৩ আষাঢ়  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: গান্ধীজির হত্যাকারী নাথুরাম গডসেকে ‘দেশভক্ত’ বলায়, আগেই সাধ্বী প্রজ্ঞার বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছেন প্রধানমন্ত্রী৷ তাঁকে নোটিস পাঠিয়েছে বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব৷ এবার এই ইস্যুতে ভোপালের বিজেপি প্রার্থীকে একহাত নিলেন নোবেলজয়ী সমাজকর্মী কৈলাস সত্যার্থী৷ কটাক্ষের সুরে তিনি জানালেন, প্রজ্ঞার মতো মানুষরা দেশের আত্মাকে হত্যা করছে৷

[ আরও পড়ুন: প্রচার শেষ হতেই শিবের দ্বারস্থ মোদি, গেলেন কেদারনাথ মন্দির দর্শনে]

সাধ্বীর বিরুদ্ধে সুর চড়িয়ে টুইটারে কৈলাস সত্যার্থী লেখেন, ‘‘গান্ধীর শরীরকে হত্যা করছে গডসে৷ কিন্তু সাধ্বীর মতো মানুষরা ভারতের শান্তি, অহিংসা, ধৈর্য ও আত্মাকে হত্যা করছে৷ গান্ধীজি সমস্ত রাজনীতির ঊর্ধ্বে৷’’ এখানেই শেষ নয়, বিজেপি নেতাদের কাছে রাজধর্ম পালনের দাবি জানিয়ে, এখনই সাধ্বী প্রজ্ঞাকে দল থেকে বহিষ্কারের কথাও টুইটারে লেখেন তিনি৷ গতকালই এই ইস্যুতে প্রজ্ঞার বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিয়েছে বিজেপি শিবির৷ তাঁকে শোকজ নোটিস পাঠিয়েছে বিজেপি৷ দশদিনের মধ্যে উত্তর চাওয়া হয়েছে তাঁর কাছে৷ এছাড়া সাধ্বীর বক্তব্যের নিন্দা করেছেন অমিত শাহ৷ শেষদিনের প্রচারে এবিষয়ে মুখ খুলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও৷ জানান, ‘‘গান্ধীজিকে অপমান করায়, আমি কোনওদিন প্রজ্ঞা ঠাকুরকে ক্ষমা করতে পারব না৷’’

[ আরও পড়ুন: বিধিভঙ্গ করে প্রচার, সানি দেওলকে নোটিস নির্বাচন কমিশনের ]

ঘটনার সূত্রপাত, দক্ষিণী অভিনেতা তথা এমএনএম প্রধান কমল হাসানের একটি মন্তব্যকে কেন্দ্র করে৷ তামিলনাড়ুর একটি জনসভায় গডসেকে ‘স্বাধীন ভারতের প্রথম সন্ত্রাসবাদী ’ বলে দাবি করেন তিনি৷ কমল হাসানের এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতেই গডসেকে ‘দেশভক্ত’ বলে পালটা দাবি করেন স্বাধ্বী৷ তাঁর এই মন্তব্যকে কেন্দ্র করে তুঙ্গে ওঠে রাজনৈতিক তরজা৷ সরাসরি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও বিজেপি সভাপতি অমিত শাহকে আক্রমণ করেন ভোপাল লোকসভা কেন্দ্রের কংগ্রেস প্রার্থী দিগ্বিজয় সিং। বিজেপিকে আক্রমণ করেন অন্যান্য কংগ্রেস নেতারাও। চাপে পড়ে অবশেষে বিজেপির উত্তরপ্রদেশের মিডিয়া ইনচার্জ লোকেন্দ্র পরাশর জানান, নাথুরাম গডসে সম্পর্কে সাধ্বী প্রজ্ঞা সিং ঠাকুর যা বলেছেন, সেটি তাঁর ব্যক্তিগত মতামত। বিজেপি তাঁর মন্তব্যের সঙ্গে সহমত পোষণ করে না৷ এরপরই ক্ষমা চান প্রজ্ঞা৷ জানান, পার্টির সিদ্ধান্তই তাঁর সিদ্ধান্ত৷ ইতিমধ্যেই দলের যে সব নেতা গডসেকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে বিজেপি।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং