BREAKING NEWS

১৩ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  বুধবার ২৭ মে ২০২০ 

Advertisement

‘৫ মিনিট দাঁড়িয়ে মোদিকে সম্মান জানান’, নেটদুনিয়ায় বার্তা পেয়ে কী জবাব প্রধানমন্ত্রীর?

Published by: Sulaya Singha |    Posted: April 8, 2020 8:09 pm|    Updated: April 8, 2020 9:25 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে সম্মান জানাতে সকলে ৫ মিনিটের জন্য উঠে দাঁড়ান। সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে এমনই একটি বার্তা। যা গিয়ে পৌঁছায় খোদ প্রধানমন্ত্রীর কানে। টুইট করে সেই বার্তার জবাবও দিলেন মোদি।

এদিন টুইটারে মোদি লেখেন, “জানতে পারলাম, কে যেন প্রচার করছে আমাদের সম্মান জানাতে পাঁচ মিনিট দাঁড়িয়ে থাকতে হবে। মনে হল, আমায় বিতর্কে জড়ানোর জন্যই এমন কোনও ফন্দি করা হয়েছে। তবে যদি সত্যিই কোনও শুভাকাঙ্খি এমনটা করে থাকেন তাহলে বলব, এমন কিছু করার প্রয়োজন নেই। যদি সত্যিকরেই আমার প্রতি ভালবাসা ও সম্মান দেখাতে চান, তাহলে এই করোনা পরিস্থিতিতে অন্তত একটি গরিব পরিবারের দায়িত্ব নিন। এর চেয়ে ভালভাবে আমায় সম্মান জানানোর আর কিছুই হতে পারে না।”

[আরও পড়ুন: ১১ এপ্রিলই লকডাউন নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত! মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন মোদি]

২১ দিনের লকডাউনে বিপন্ন স্বাভাবিক জীবন। বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনা মোকাবিলায় বাড়িতে থাকা ছাড়া আর কোনও উপায় নেই। সেই কারণেই বারবার জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেওয়ার সময় সকলকে বাড়িতে থাকার অনুরোধ জানাচ্ছেন মোদি। সেই সঙ্গে কখনও হাততালি দিয়ে জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত চিকিৎসক ও কর্মীদের সম্মান জানানোর আহ্বান করেছেন, তো কখনও ৯ মিনিটের জন্য বাড়ির আলো বন্ধ করে প্রদীপ, মোমবাতি জ্বালিয়ে শক্তির জাগরণের ডাক দিয়েছেন। প্রতি ক্ষেত্রেই সাড়া মিলেছে বিস্তর। মোদির নানা মন্তব্য, করোনা মোকাবিলায় তাঁর পদক্ষেপে হয়তো আপ্লুত হয়েছেন কোনও অনুরাগী। সেই কারণেই হয়তো সম্মান জানাতে এমন বার্তা দিয়েছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। উলটোটাও হতে পারে। স্রেফ মজা করেই হয়তো এমনটা করেছেন কেউ। সেই ব্যক্তির খোঁজ না মিললেও মোদি তাঁর বার্তাকে ঢাল করে ফের একবার মানুষকে একজোট হয়ে লড়াইয়ের আহ্বান জানালেন।

দেশের এমন সংকটজনক পরিস্থিতিতে অনেকেই কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারকে আর্থিক সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। অনেকে আবার দুস্থ পরিবারের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের মুখে অন্ন তুলে দিয়েছেন। যে কারণে প্রত্যেককে ধন্যবাদও জানিয়েছেন মোদি। এবার তিনি টুইট করে বলতে চাইলেন, করোনার প্রকোপ না কাটা পর্যন্ত প্রত্যেকে যদি অন্তত একটি গরিব পরিবারেরও দায়িত্বও নেয়, তাহলেই এই লড়াইয়ে জয় সহজ হবে।

[আরও পড়ুন: বেসরকারি হাসপাতালেও বিনামূল্যে হোক করোনা পরীক্ষা, কেন্দ্রকে পরামর্শ সুপ্রিম কোর্টের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement