২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৬ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

দেশজুড়ে অব্যাহত কৃষক বিক্ষোভ, বাড়ল পাঞ্জাবের রেল রোকো আন্দোলনের সময়সীমা

Published by: Biswadip Dey |    Posted: September 26, 2020 4:39 pm|    Updated: September 26, 2020 4:42 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নতুন কৃষি বিলের প্রতিবাদে পাঞ্জাবে (Punjab) শুরু হওয়া ‘রেল রোকো’ আন্দোলন (Rail roko agitation) চলার কথা ছিল শনিবার পর্যন্ত। কিন্তু শুক্রবারই কিষান মজদুর সংঘর্ষ সমিতির রাজ্য সম্পাদক সারওয়ান সিংহ পান্ধের জানিয়ে দিয়েছেন, আন্দোলনের সময়সীমা আরও তিনদিন বাড়ানো হয়েছে। অর্থাৎ ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে আন্দোলন।

আগামী দু’দিনের কর্মসূচি সম্পর্কে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘‘২৭ সেপ্টেম্বর মহিলারা আন্দোলনে যোগ দেবেন আন্দোলনে। পরের দিন ভগৎ সিংয়ের জন্মদিন। ওই দিন, ২৮ সেপ্টেম্বর আন্দোলনে যোগ দেবেন যুব সম্প্রদায়।’’

[আরও পড়ুন: ‘কৃষি বিল নিয়ে গুজব ছড়ানো হচ্ছে’, দীনদয়ালের জন্মদিনে বিরোধীদের তোপ মোদির]

তিনি আরও বলেন, ‘‘আমরা আমাদের প্রতিবাদস্থলে কোনও রাজনৈতিক নেতাদের আসতে দেব না। নতুন কৃষি বিল প্রত্যাহার না করা পর্যন্ত আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব।’’ এর আগে গত ১৭ সেপ্টেম্বর শিরোমণি অকালি দলের সদস্য ও সাংসদ হরসিমরত কৌর বাদল কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেন এই বিলের বিরোধিতা করে।

[আরও পড়ুন: ভেজাল রুখতে কড়া কেন্দ্র, এবার থেকে সরষের তেলে মেশানো যাবে না ভোজ্য তেলও!]

‘রেল রোকো’-র কারণে ইতিমধ্যেই ফিরোজপুর ডিভিশনের বহু বিশেষ ট্রেন বাতিল হয়েছে। যাত্রীদের সুরক্ষা ও রেলের সম্পত্তির নিরাপত্তার দিকে তাকিয়েই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পাঞ্জাবের মতোই কৃষি বিলের বিরুদ্ধে আন্দোলন চলছে ওড়িশা ও হরিয়ানাতেও। যদিও এই বিল থেকে কৃষকরা উপকৃত হবেন বলেই মনে করছে কেন্দ্রীয় সরকার। কেন্দ্রের মতে, এই তিনটি বিল ছোট কৃষকদের জন্য অত্যন্ত সুবিধাজনক হবে। তাঁরা মান্ডির বাইরেই তাঁদের সবজি ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করতে পারবেন।

গত রবিবার বিল পাশ করার সময়ে উত্তাল হয়ে ওঠে রাজ্যসভা। বিল পাশের সময় ৮ বিরোধী সাংসদের বিরুদ্ধে উচ্চকক্ষে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অভিযোগ উঠেছিল। সোমবার রাজ্যসভার চেয়ারম্যান এম ভেঙ্কাইয়া নায়ডু তাঁদের সাসপেন্ড করেন। বিলের প্রতিবাদে শুক্রবার ভারত বনধ ডেকেছিল পাঞ্জাবের বেশ কয়েকটি কৃষক সংগঠন। এক বিবৃতিতে পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং জানিয়েছেন, তাঁর সরকার কৃষকদের পাশে রয়েছে। সেই কারণে আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে ১৪৪ ধারা ভঙ্গের কোনও অভিযোগ নথিবদ্ধ করা হবে না।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement