৩১ ভাদ্র  ১৪২৬  বুধবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

৩১ ভাদ্র  ১৪২৬  বুধবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

বুদ্ধদেব সেনগুপ্ত, ওয়ানড়: বুধবার কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী সভা করলেন ওয়ানড়ের সুলতান বাখেরিতে। সেই সভা ঘিরেই সাধারণের উচ্ছ্বাস। একটা সময় এখানেই ছিল টিপু সুলতানের সেনা শিবির। শত্রুপক্ষকে পরাস্ত করতে এই সুলতান বাখেরিতেই অস্ত্রাগার বানিয়েছিলেন টিপু। বুধবারের সভাতে স্বাভাবিক নিয়মে রাহুল বিজেপিকে বিঁধেছেন। তবে, রাহুল এদিন স্পষ্ট করলেন, তিনি কেন হঠাৎ দক্ষিণ ভারতের ওয়ানড় আসনে দাঁড়িয়েছেন। তারপর সাদা বস্ত্র পরিধান করে বিখ্যাত তিরুনেল্লী মন্দিরে পুজোও দিলেন।

[আরও পড়ুন: কংগ্রেসের পরামর্শেই মোদির হয়ে সওয়াল করেছেন ইমরান, অভিযোগ নির্মলার]

সভামঞ্চে দাঁড়িয়ে রাহুল বললেন, “যখন দক্ষিণ ভারতে দাঁড়ানোর কথা বলা হয় আমাকে, ওয়ানড় ছিল আমার ‘অটোমেটিক চয়েস’। কারণ, এখানে একাধিক সম্প্রদায়ের ভাবনা ও ধর্মের মানুষ রয়েছেন। এবং তাঁদের অবস্থানটাও শান্তিপূর্ণ। কিন্তু আমার মনে অন্য একটা প্রশ্ন এসেছিল। সমগ্র দেশ থেকে কেন দক্ষিণ ভারতকে বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছে? আমি এখন সেটাই বুঝতে চাইছি। মালায়ালিরা কি দেশের অন্যদের থেকে কিছু কম গুরুত্বপূর্ণ? এ রাজ্যের ইতিহাস সমৃদ্ধ, সংস্কৃতিতেও উন্নত। তাহলে দেশের মানচিত্রে পিছিয়ে থাকবে কেন? সেই উত্তর খুঁজতেই আমেঠির পাশাপাশি দক্ষিণের কোথাও প্রতিনিধিত্ব করা উচিত বলে মনে হয়েছে।”

তিনি আরও জানান, এখানে তিনি কংগ্রেস সভাপতি নন। কারও ভাই বা কারও ছেলে হয়ে লড়তে এসেছেন। বই থেকে ইতিহাস পড়ে সব কিছু জানা যায় না। মানুষের সঙ্গে মেশাটা অত্যন্ত জরুরি। এখনকার মানুষদের সঙ্গে মিশে কেরলের সেই ঐতিহ্যকেই প্রত্যক্ষ করতে চান তিনি। বুধবার ওয়ানড়ে মোট তিনটি সভা করেছেন রাহুল। তবে ভোটের আগে তিনি আবার আসবেন বলেও জানালেন।

[আরও পড়ুন: ‘প্রিয়াঙ্কা গান্ধী চোরের স্ত্রী’, বেফাঁস মন্তব্য করে বিতর্কে উমা ভারতী]

কিছুদিন আগে তিরুবনন্তপুরমের কংগ্রেস প্রার্থী শশী থারুরকে রাহুলের দক্ষিণে আগমন নিয়ে প্রশ্ন করা হলেও একই উত্তর দিয়েছিলেন। থারুর জানান, দক্ষিণের মানুষের কথা দিল্লি অবধি পৌঁছে দেওয়াই কংগ্রেসের প্রধান টার্গেট। বিজেপিকে একহাত নিয়ে শশী আরও বলেছিলেন, “ক্ষমতা থাকলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কেরল বা তামিলনাড়ুর কোনও কেন্দ্র থেকে দাঁড়িয়ে দেখান।” আগামী ২০ এবং ২১ তারিখ দাদা রাহুলের হয়ে প্রচার করতে ওয়ানড়ে আসবেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বঢরা। দুই দিন প্রচার করতে পারেন বলে জানা যাচ্ছে। অন্যদিকে, বৃহস্পতিবার আসবেন বামেদের নেতা সীতারাম ইয়েচুরি। কেরলে ভোট মানেই মূলত বামেদের সঙ্গে লড়াই। তবু, বুধবার রাজ্যের বাম সরকারকে নিয়ে কোনও সভাতেই রা কাটেননি রাহুল। এখন আগামিকাল সীতারাম কী বলেন সেটাই দেখার।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং