৩ মাঘ  ১৪২৬  শুক্রবার ১৭ জানুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo ফিরে দেখা ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

৩ মাঘ  ১৪২৬  শুক্রবার ১৭ জানুয়ারি ২০২০ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সরকার গঠনের আগে থেকেই এই একটি বিষয় নিয়ে মতবিরোধ ছিল মহারাষ্ট্রের তিন শাসক শরিকের মধ্যে। কার দখল কোন মন্ত্রিত্ব যাবে, বেশ কয়েক কাউন্ড আলোচনার পরও তার সমাধানসূত্র পাওয়া যায়নি। সেই দীর্ঘসূত্রিতার সুযোগ নিয়ে দিন দু’তিনেকের সরকার গড়ে ফেলেছিল বিজেপিও। সেসব বিতর্ক পিছনে ফেলে এবার দপ্তর বণ্টনের কথা ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে


নতুন সরকার গঠিত হওয়ার পর মন্ত্রিত্ব বণ্টনের দেরি নিয়ে ইতিমধ্যেই বার কয়েক মহা আগাড়িকে খোঁচা দিয়েছে বিজেপি। আসলে, শরিকি জট কাটিয়ে পোর্টফোলিও ঘোষণা করতে প্রায় ২ সপ্তাহ সময় লেগে গিয়েছে মহাজোটের। আর সেজন্যেই কটাক্ষ শুনতে হয়েছে বিরোধী বিজেপির কাছ থেকে। দপ্তর বণ্টনের সময় তিন শরিককেই সমান গুরুত্ব দেওয়ার চেষ্টা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে।

[আরও পড়ুন: বাংলা-সহ গোটা দেশেই হবে NRC, মমতাকে কড়া বার্তা অমিত শাহের]

মহাজোটে শিব সেনার শক্তি সবচেয়ে বেশি। তাই বেশি গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি মন্ত্রক গিয়েছে সেনার দখলে। গুরুত্বপূর্ণ দপ্তরগুলির মধ্যে শিব সেনা নিজেদের দখলে রাখছে স্বরাষ্ট্র ও নগরোন্নয়ন দপ্তর। মহারাষ্ট্রের নিরিখে নগরোন্নয়ন দপ্তরটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ। প্রচুর টাকার লেনদেন হয় এই দপ্তরের মাধ্যমেই। মহাজোটের দ্বিতীয় শক্তি তথা শরদ পওয়ারের নেতৃত্বাধীন এনসিপির ভাগে পড়ছে অর্থ এবং আবাসন মন্ত্রক। কংগ্রেসের দখলে যাচ্ছে রাজস্ব দপ্তর। এছাড়াও শিব সেনার দখলে গিয়েছে বন ও পরিবেশ, সংরক্ষণ, পর্যটন, মৃত্তিকা, জল সংরক্ষণ দপ্তর, সংসদ বিষয়ক দপ্তর। পূর্ত দপ্তরও গিয়েছে শিব সেনার দখলে।

[আরও পড়ুন: অযোধ্যা রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন খারিজ করল সুপ্রিম কোর্ট]

এনসিপি’র দখলে গিয়েছে গ্রামোন্নয়ন, জল সম্পদ, বিশেষ সহায়তা, সামাজিক ন্যায়বিচার, আবগারি, দক্ষতা উন্নয়নের মতো দপ্তরগুলি। কংগ্রেসের হাতে গিয়েছে শক্তি, নবীকরণযোগ্য শক্তি, চিকিৎসা শিক্ষা, স্কুল শিক্ষা, পশুপালন, ডেয়ারি শিল্প এবং মৎস্য দপ্তর। তিন শরিকের মধ্যে শিব সেনা সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পেলেও, দপ্তর বিন্যাসে অখুশি নয় এনসিপি এবং কংগ্রেস।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং