যৌন নির্যাতন

ফের ধর্ষণের পর পুড়িয়ে হত্যা, উত্তরপ্রদেশে জোড়া দগ্ধ দেহ উদ্ধারে চাঞ্চল্য

বিজনৌর, বাহরাইচের ঘটনায় এখনও অধরা দুষ্কৃতীরা।

Two burnt bodies of women recovered from different places in UP
Published by: Sucheta Sengupta
  • Posted:January 18, 2020 2:34 pm
  • Updated:January 18, 2020 2:36 pm

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নির্ভয়ার ধর্ষকদের ফাঁসি আর সময়ের অপেক্ষামাত্র। হায়দরাবাদ গণধর্ষণ-খুনে অভিযুক্তদের এনকাউন্টারে খতম করে শাস্তি দেওয়া হয়েছে। এত দৃষ্টান্তের পরও নারীদের উপর যৌন অত্যাচার কিছুতেই যেন কমছে না। উত্তরপ্রদেশের বিজনৌর এবং বাহরাইচ – দুই জায়গায় দুই মহিলার দগ্ধ দেহ উদ্ধার হয়েছে। তাঁদের ধর্ষণ করা হয়েছে বলেই প্রাথমিক ধারণা পুলিশের। ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে তা নিশ্চিত করতে চাইছেন তদন্তকারীরা। অভিযুক্তরা পলাতক। দ্রুত তাঁদের গ্রেপ্তারির দাবি উঠেছে।

প্রথম ঘটনা বিজনৌরের এক গ্রামের। শুক্রবার সন্ধেবেলা গ্রামের এক কুঁড়েঘরের কাছে বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার হয়  মহিলার দগ্ধ দেহ। সামনে তিনটি কার্তুজ পড়ে ছিল। যা দেখে তদন্তকারীরা প্রাথমিকভাবে মনে করছেন, মহিলাকে গুলি করা হয়েছিল। তারপরও মৃত্যু নিশ্চিত করতে দেহটি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এমনভাবেই দগ্ধ হয়েছেন মহিলা যে শনাক্তকরণ করা প্রায় অসম্ভব। তবু ডিএনএ পরীক্ষা করে তাঁর পরিচয় জানার আপ্রাণ চেষ্টা করছে পুলিশ। লক্ষ্মীনিবাস মিশ্র নামে এক পুলিশ আধিকারিকের বক্তব্য, ”আমরা ডিএনএ পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করছি, যাতে তাঁর পরিচয় জানা যায়।”

[আরও পড়ুন: স্রেফ সন্দেহের বশেই গ্রেপ্তারি, CAA বিক্ষোভ রুখতে বিশেষ ক্ষমতা পেল দিল্লি পুলিশ!]

দ্বিতীয় ঘটনা বাহরাইচের। জঙ্গলের ধারে এক তরুণীর নগ্ন এবং দগ্ধ দেহ উদ্ধার হয়েছে। আনুমানিক বয়স ২০ বছর। তাঁর মুখ একেবারেই পুড়ে গিয়েছে। বাহরাইচের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবীন্দ্র সিং জানিয়েছেন, ”বাহরাইচের এক জঙ্গলের ধার থেকে মহিলার দগ্ধ দেহ উদ্ধার হয়েছে। তাঁর শরীরে কোনও পোশাক ছিল না। মহিলার আনুমানিক বয়স ২০ বছর হবে। মুখে আঘাত এবং পোড়া দাগ রয়েছে। তা সত্ত্বেও আমরা তাঁকে শনাক্তকরণের চেষ্টা করছি। প্রাথমিক তদন্তে বোঝা গিয়েছে যে এই মহিলা গ্রামের বাসিন্দা নন। বাইরে থেকে এসেছেন। অথবা বাইরে কোথাও তাঁকে খুন করে জঙ্গলের ধারে ফেলে রাখা হয়েছে। দোষীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করব।”

নারী নির্যাতনের মতো অপরাধে যোগীর রাজ্য শীর্ষে। বদায়ুঁ, উন্নাও থেকে শুরু করে আজকের বাহরাইচ, বিজনৌর – শুধু যৌন হেনস্তা নয়, প্রমাণ লোপাট করতে নির্যাতিতাদের পৃথিবী থেকে সরিয়ে দেওয়ার মতো গুরুতর অপরাধেও হাত কাঁপে না ঘাতকদের। বদায়ুঁতে তিন নাবালিকাকে ধর্ষণের পর খুন করে বাড়ির সামনে দেহ ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছিল, উন্নাওয়ে নির্যাতিতা বিচার চাইতে আদালতের দ্বারস্থ হলে, রাস্তাতেই তাঁকে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছিল। এসব ঘটনায় সমালোচনার ঝড় বয়ে গিয়েছিল দেশজুড়ে। কিন্তু তাতেও পরিস্থিতির এতটুকু বদল যে হয়নি, বিজনৌর-বাহরাইচে জোড়া দগ্ধ মৃতদেহ উদ্ধারই তার প্রমাণ। এক্ষেত্রে অভিযুক্তরা এখনও পুলিশের নাগালের বাইরে।

[আরও পড়ুন: ‘রাহুলকে ভোট দেওয়া ভয়ংকর ভুল’, গান্ধী পরিবারকে বেনজির আক্রমণ রামচন্দ্র গুহর]

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ