BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

প্রচারে বেরিয়ে ‘নাগিন ডান্স’ করলেন কর্ণাটকের মন্ত্রী, ভাইরাল ভিডিও

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: April 11, 2019 10:04 am|    Updated: May 21, 2020 6:52 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রতিবার ভোট এলেই নিত্যনতুন পদ্ধতিতে ভোটারদের মন ভোলানোর চেষ্টা করেন রাজনৈতিক নেতারা। নির্বাচনী জনসভায় গিয়ে বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি দেওয়ার ফাঁকে কেউ সাফাইকর্মীদের পা ধুইয়ে দেন। কেউ ভোটারদের বাসন মাজার কথা বলেন, রান্না করেন। কেউ কেউ তো আবার বিলাসবহুল মার্সিডিজ গাড়ি থেকে গমের খেতে নেমে মহিলাদের সঙ্গে গম কাটেন। আঁটি বেঁধে মাথায় নেন। দুদিকে পাখা লাগিয়ে ট্র্যাক্টরও চালান। এবার সেই ‘করিতকর্মা‘ রাজনৈতিক নেতাদের তালিকায় নাম লেখালেন কর্ণাটকের এক মন্ত্রী।

লোকসভা ভোটের প্রচারে বেরিয়ে অনুগামীদের নিয়ে ‘নাগিন ডান্স‘ করলেন কর্ণাটকের আবাসনমন্ত্রী এমটিবি নাগারাজ। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা বীরাপ্পা মইলির হয়ে প্রচারে ছিক্কাবল্লপুরা লোকসভা কেন্দ্রের হোসকোটের একটি গ্রামে গিয়েছিলেন নাগারাজ। সেখানে বাসিন্দাদের দলীয় প্রার্থীর হয়ে ভোট চাইবার সময় অনুগামীদের নিয়ে ১৯৫৪-তে রিলিজ হওয়া বিখ্যাত হিন্দি সিনেমা ‘নাগিন’-এর গানে নাচতে থাকেন। প্রায় ১০ মিনিট পর ৬৭ বছরের ওই কংগ্রেস নেতার বয়সের কথা চিন্তা করে স্থানীয় বাসিন্দা ও অনুগামীরা তাঁকে নাচ থামানোর অনুরোধ করেন। নাগারাজুর নাচের ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়াতে পোস্ট হতেই ভাইরাল হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বেঙ্গালুরু থেকে ২৭ কিলোমিটার দূরে হোসকোটের একটি গ্রামে দলীয় প্রার্থীর হয়ে প্রচার করছিলেন নাগারাজ। সেসময় ভোটারদের নজর কাড়ার জন্য নতুনত্ব কিছু করার তাগিদে, রীতিমতো ব্যান্ড বাজিয়ে অনুগামীদের নিয়ে নাগিন ডান্স শুরু করেন। ঘটনাস্থলে উপস্থিত এক কংগ্রেস কর্মীর কথায়, স্থানীয় ভাষায় নাগারাজু নামের অর্থ কিং কোবরা। তাই নিজের নামের সঙ্গে সামঞ্জস্য রাখতে গিয়েই নাগিন সিনেমার গানের সঙ্গে নেচেছেন তাঁদের প্রিয় এমটিবি। তবে এই প্রথমবার নয়, এর আগে বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠানেও নেচেছেন তিনি।অ্যাসোসিয়েশন ফর ডেমোক্র্যাটিক রিফর্মস নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার রিপোর্ট অনুযায়ী কর্ণাটকের ওই মন্ত্রী দেশের সবথেকে ধনী বিধায়ক। গত বছর তাঁর সম্পত্তির মোট পরিমাণ ছিল এক হাজার কোটি টাকারও বেশি।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement