৪ শ্রাবণ  ১৪২৬  শনিবার ২০ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সোমবার রাত থেকে এনআরএস হাসপাতালে যে উত্তেজনার স্ফুলিঙ্গ উৎপন্ন হয়েছে, ইতিমধ্যে তা দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়েছে রাজ্য তথা সমগ্র দেশে৷ চিকিৎসা ক্ষেত্র যেন পরিণত হয়েছে রণক্ষেত্রে। চারদিন ধরে চলছে চিকিৎসকদের কর্মবিরতি। চিকিৎসক আক্রমণ কাণ্ডে প্রতিবাদের জল গড়িয়েছে দেশের রাজধানী অবধি। এমনকী, শুক্রবার ভিনরাজ্যেও বিক্ষোভে নেমেছেন চিকিৎসকরা৷ সমগ্র দেশজুড়ে আউটডোর পরিষেবা বন্ধ রেখেছে এইমস-সহ অন্যান্য হাসপাতাল৷ রাজ্যের হাসপাতালগুলিতে ঢল নেমেছে গণইস্তফার৷ এককথায়, ভেঙে পড়েছে স্বাস্থ্য পরিষেবার কাঠামো৷ এমতাবস্থায়, শুক্রবার এনআরএস কাণ্ডে মুখ খুললেন ফ্যাশন ডিজাইনার অগ্নিমিত্রা পল। রাজভবনে গিয়ে রাজ্যপালের সঙ্গে দেখাও করে এবিষয়ে আলোচনাও করেন তিনি। 

[আরও পড়ুন:  ‘আমরা বিরক্ত’, এনআরএস কাণ্ডে তীব্র প্রতিক্রিয়া কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়ের]

শুক্রবার চিকিৎসকদের পাশে দাঁড়িয়ে একরাশ ক্ষোভ উগরে দিলেন রাজ্য সরকারের প্রতি। তাঁর অভিযোগের তীর মূলত মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দিকে। অগ্নিমিত্রা পল কিছুদিন আগে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। কিন্তু, এক্ষেত্রে কোনওরকম রাজনৈতিক রঙের উর্ধ্বে গিয়ে তিনি সোচ্চার হয়েছেন চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোর অচলাবস্থা নিয়ে। অগ্নিমিত্রা বলেন, “উনি শুধু তৃণমূলের মুখ্যমন্ত্রী নন, উনি গোটা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। জনসাধারণের প্রতিনিধি। ওনার কথা শুনে আমি অবাক হয়ে যাচ্ছি। রাজ্যের সাধারণ মানুষ হিসেবে এনআরএস কাণ্ড নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর এহেন প্রতিক্রিয়া আমাকে ভাবিয়ে তুলছে। একটা তিনদিনের শিশু মারা গিয়েছে। রোগীরা পরিষেবা পাচ্ছেন না, এত রোগীর মৃত্যু হচ্ছে, চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোর কী অবস্থা! কেন রাজ্য সরকার যথাযথ ব্যবস্থা নিচ্ছে না। কেন এক্ষেত্রেও রাজনৈতিক ইস্যু টেনে নিয়ে নিয়ে আসছেন বারবার মুখ্যমন্ত্রী?  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতি আমার অনুরোধ, রাজনৈতিক রং না মাখিয়ে বিষয়টির যথাযথ বিচার করুন। চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলে এই বিষয়টির সমাধান করুন।”

[আরও পড়ুন: ‘আপনি একবার এসে কথা বলুন’, ডাক্তারদের পাশে দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে বার্তা অপর্ণার]

অন্যদিকে, এনআরএস হাসপাতালে আন্দোলনরত চিকিৎসকদের পাশে দাঁড়াতে শুক্রবারই সেখানে যান রাজ্যের বুদ্ধিজীবী মহলের একাংশ। এদিন সেখানে উপস্থিত ছিলেন প্রখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক অপর্ণা সেন, নাট্যকার কৌশিক সেন, সংগীত পরিচালক দেবজ্যোতি মিশ্র-সহ বুদ্ধিজীবী মহলের একাধিক নামীদামি ব্যক্তি৷ চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেন। জানান, আন্দোলনে তাঁরা ডাক্তারদের পাশে আছেন। হাসপাতাল চত্বর থেকেই অপর্ণা সেন মুখ্যমন্ত্রীকে বলেন, “হাতজোড় করে অনুরোধ করছি। আপনি আসুন। কথা বলুন। এদের সমস্যা বোঝার চেষ্টা করুন।” একই কথা প্রতিধ্বনিত হল শিল্পী বোলান গঙ্গোপাধ্যায়ের গলাতেও। এই ইস্যুতে মুখ্যমন্ত্রীকে একহাত নিয়েছেন নাট্যকার কৌশিক সেনও। এনআরএসের ডাক্তারদের এই ভয়ানক পরিস্থিতি থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর কথা জানান তিনি। মুখ্যমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে সরাসরি নাট্যকারের বার্তা, “প্রশাসনকে বুঝতে হবে যে আপনারা ছাড়া চলবে না। একটা ব্যাপার আমরা সবাই বুঝে পারছি, এনাফ ইজ এনাফ! ওনাকে বুঝতে হবে, উনি সকলের মুখ্যমন্ত্রী। আমরা যদি পরিকাঠামো উন্নতি না করে ক্লাবকে টাকা দিতে থাকি, তাহলে চলবে না। দরকার হলে শিল্পের জন্য কাজ করতে হবে না। সেই টাকা চিকিৎসায় দিন। ফিল্ম ফেস্টিভাল বন্ধ করুন একবছর।” প্রসঙ্গত, সিঙ্গুর-নন্দীগ্রাম ইস্যুতে এই বুদ্ধিজীবী মহলের একাংশই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে দাঁড়িয়ে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং