৩০ ভাদ্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

ধ্রুবজ্যোতি বন্দ্যোপাধ্যায়: লোকসভা ভোট ২০১৯-এর ফলাফলের পর দিনের আলোর মতো স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে এরাজ্যে ঘাসফুল শিবিরের শক্তিক্ষয়ের চিত্র৷ এনিয়ে এখনও তেমন কোনও প্রতিক্রিয়া দেননি তৃণমূল সুপ্রিমো৷ বৃহস্পতিবার বিকেলের দিকে অবশ্য খুব সংক্ষিপ্ত একটি মন্তব্য করেছিলেন টুইটারে৷ লিখেছিলেন, সব পরাজিতরাই পরাজিত নন৷ তারপর কেটে গিয়েছে প্রায় ২৪ঘণ্টা৷ ভোটের ফলাফল নিয়ে এখনও মুখ না খুললেও, কলম ধরেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ লিখে ফেলেছেন একটি কবিতা – ‘মানি না’৷ সাম্প্রদায়িকতা এবং উগ্রবাদের বিরোধিতা কবিতার ছত্রে ছত্রে৷

[আরও পড়ুন: দলবিরোধী কাজের অভিযোগ, তৃণমূল থেকে নির্বাসিত শুভ্রাংশু রায়]

কবিতার শুরু থেকেই তিনি সুর চড়িয়েছেন সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে৷ তাঁর স্পষ্ট বক্তব্য, যে কোনও ধর্মের উগ্র-নরম দুই দিকই আছে৷ কিন্তু তিনি বেছে নিয়েছেন নরম দিকটি৷ উগ্রতা, অন্ধবিশ্বাসে তাঁর কোনও আস্থা নেই৷ কবিতার মাঝামাঝি দিকটি অর্থবলকে কীভাবে কাজে লাগানো হয়, তার বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছেন৷ বিশ্বাস অর্থের বিনিময়ে বিকিয়ে গিয়েছে, এধরনের মনোভাব প্রকাশ পেয়েছে৷ শেষ পর্যায়ে তিনি সকলের কাছে আবেদন জানিয়েছেন, বিশ্বাস আর সহনশীলতায় ভরসা রেখে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার জন্য৷ 

একই কবিতা তিনি ইংরাজি এবং হিন্দিতেও লিখেছেন৷ তিনটি কবিতাই টুইটারে প্রকাশিত হয়েছে৷ এর আগেও বহু বিষয়ে প্রতিবাদের ক্ষেত্রে মুখ্যমন্ত্রীকে কলম ধরতে দেখা গিয়েছে৷ সম্প্রতি বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার ঘটনাতেও ‘লজ্জিত’ শিরোনামে কবিতা লিখেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ এমনকী ভোটের ফলপ্রকাশের আগের দিনও ‘জরুরী’ নামে একটি কবিতা লিখেছিলেন নেত্রী৷ তারও ছত্রে ছত্রে কাব্যের মোড়কে ছিল মোদি সরকারের বিভিন্ন জনবিরোধী সিদ্ধান্তের বিরোধিতা৷ সেসব বেশ জনপ্রিয়ও হয়েছে৷ তবে শুক্রবার ফলাফলের পরবর্তী পর্যায়ে কোনও বক্তব্য না রেখে এক কবিতাতেই নিজের প্রতিক্রিয় স্পষ্ট করে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী৷   

[আরও পড়ুন: সাধারণ মানুষের ভোগান্তির ইতি, কর্মবিরতি স্থগিতের সিদ্ধান্ত বার কাউন্সিলের]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং