BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

টাকা নিয়ে দর কষাকষির মধ্যেই ডিসানের বাইরে মৃত্যু বৃদ্ধার, স্বতঃপ্রণোদিত মামলা স্বাস্থ্য কমিশনের

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: August 13, 2020 11:03 am|    Updated: August 13, 2020 11:03 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভরতির টাকা নিয়ে দর কষাকষির মাঝেই ডিসান হাসপাতালের সামনে অ্যাম্বুল্যান্সে মৃত্যু হয়েছিল করোনা (Corona Virus) রোগীর। সেই ঘটনায় এবার হাসপাতালের বিরুদ্ধে স্বতঃপ্রণোদিত মামলা করল স্বাস্থ্য কমিশন। বুধবার হোয়াটসঅ্যাপে অডিও বার্তায় একথা জানান কমিশনের চেয়ারম্যান। রাজ্য স্বাস্থ্য কমিশনের ইতিহাসে এই কোনও বেসরকারি হাসপাতালের বিরুদ্ধে স্বতঃপ্রণোদিত মামলা দায়ের হল।

ঘটনার সূত্রপাত কয়েকদিন আগে। বেশ কিছুদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন তমলুকের বাসিন্দা মৃত বৃদ্ধার স্বামী। তাই চিকিৎসা করাতে কলকাতা এসেছিলেন দম্পতি। গত শনিবার মৃত্যু হয় ওই বৃদ্ধার স্বামীর। এরপর অসুস্থ হয়ে পড়েন বৃ্দ্ধাও। আশঙ্কাজনক অবস্থায় পার্ক সার্কাসের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করা হয় তাঁকে। সেখানে তাঁর করোনা পরীক্ষা করা হলে জানা যায়, তিনি আক্রান্ত। কিন্তু করোনা রোগীদের জন্য কোনও ব্যবস্থা ছিল না ওই হাসপাতালে। সেই কারণেই রোগীকে অন্যত্র স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত নেয় পরিবার। সেই মতো ওই করোনা আক্রান্তকে কলকাতার ডিসান হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

[আরও পড়ুন: কর্মসূত্রে বাইরে স্বামী-ছেলে-মেয়ে, কলকাতার ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার বৃদ্ধার পচাগলা দেহ]

পরিবারের অভিযোগ, ভরতির জন্য হাসপাতালের তরফে ৩ লক্ষ টাকা দাবি করা হয়। কিন্তু, সেই মুহূর্তে পুরো টাকা ছিল না তাঁদের কাছে। শেষে ২ লক্ষ ৮০ টাকা জমা দিয়েছিলেন তাঁরা। এই টালবাহানা শেষে দেখা যায় অ্যাম্বুল্যান্সেই মৃত্যু হয়েছে ওই বৃদ্ধার। এরপরই হাসপাতালের বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফেটে পড়েন রোগীর পরিজনরা। সেই ঘটনাতেই ডিসান হাসপাতালের বিরুদ্ধে স্বতঃপ্রণোদিত মামলা করল স্বাস্থ্য কমিশন। চেয়ারম্যান জানিয়েছেন, ডিসান নিয়ে যাওয়ার আগে মৃত বৃদ্ধা যেখানে ভরতি ছিলেন, সেখানকার সমস্ত তলব করা হয়েছে। ১৯ আগস্ট এই মামলার শুনানি হতে পারে। প্রসঙ্গত, আগেই নিজেদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ উড়িয়েছিল কর্তৃপক্ষ। তাঁদের দাবি, মৃত অবস্থাতেই হাসপাতালে আনা হয়েছিল ওই বৃদ্ধাকে।

[আরও পড়ুন: ভয় দেখিয়ে ডাক্তারি পড়ুয়াকে লাগাতার ‘ধর্ষণ’, কাঠগড়ায় কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের চিকিৎসক]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement