১৫ ফাল্গুন  ১৪২৬  শুক্রবার ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

ওয়েবসাইট থেকে উধাও অসমের NRC তালিকা! কী জানাল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক?

Published by: Sulaya Singha |    Posted: February 12, 2020 12:38 pm|    Updated: February 12, 2020 12:38 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ন্যাশনাল রেজিস্টার অফ সিটিজেনস (NRC) ওয়েবসাইট খুলতেই চক্ষু চড়কগাছ। ওয়েবসাইট থেকে উধাও অসমের নাগরিকপঞ্জির চূড়ান্ত তালিকা! ব্যাপারটা কী? তবে কি নতুন করে নিয়মে কোনও বদল ঘটছে চলেছে? কৌতূহল দূর করল খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।

গত বছর আগস্টে অসমের নাগরিকপঞ্জির তালিকা প্রকাশ করেছিল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে www.nrcassam.nic.in -এ অসম এনআরসি-তে বাদ পড়া এবং অন্তর্ভুক্তদের লম্বা তালিকা আপলোড করে দেওয়া হয়। এনআরসি’র ওয়েবসাইট থেকে সহজেই সেই তালিকা দেখা যাচ্ছিল। কিন্তু আচমকাই সমস্ত তথ্য একেবারে গায়েব! ওয়েবসাইটে গেলে এই সংক্রান্ত কোনও তালিকাই দেখাচ্ছিল না। কৌতূহল দূর করতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফে জানানো হয়, যান্ত্রিক ত্রুটির কারণেই তালিকাটি দেখা যাচ্ছে না। এই সমস্যা সমাধান করা হচ্ছে। শীঘ্রই আবার আগের অবস্থায় ফিরবে ওয়েবসাইট।

NRC

[আরও পড়ুন: দিল্লির ফলাফল নিয়ে ভাইরাল মজার মিম-ভিডিও, হেসে খুন নেটিজেনরা]

কিন্তু কেন ঘটল এমন ঘটনা? এনআরসি কর্তৃপক্ষের দাবি, এতদিন এই ওয়েবসাইটির দেখভালের দায়িত্বে ছিল আইটি কোম্পানি উইপ্রো। কিন্তু তাদের সঙ্গে নতুন করে চুক্তি না করাতেই এই ঘটনা ঘটেছে। এনআরসি‘র দায়িত্বে থাকা আধিকারিক বলেন, “উইপ্রোর সঙ্গে গত বছর অক্টোবরেই চুক্তি শেষ হয়ে যায়। কিন্তু আমার আগে দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিক নতুন করে চুক্তি করেননি। সেই কারণেই ১৫ ডিসেম্বর থেকে সমস্ত ডেটা অফলাইনে চলে যায়। আমি ২৪ ডিসেম্বর দায়িত্বে আসি।” তিনি আরও জানান, ফেব্রুয়ারির গোড়াতে এ নিয়ে উইপ্রোকে চিঠিও দেওয়া হয়েছিল। তবে এখনও ওয়েবসাইটে কিছু দেখাচ্ছে না। উইপ্রো ডেটা লাইভ করে দিলেই সব স্বাভাবিক হয়ে যাবে। আশা করা হচ্ছে, আগামী দু-তিনদিনের মধ্যেই সব ঠিক হয়ে যাবে।

যদিও ওয়েবসাইট থেকে ডেটা উধাও হয়ে যাওয়ার মধ্যে রাজনীতির গন্ধ পাচ্ছে অসমের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস। ইতিমধ্যেই এই ঘটনায় মোদি সরকারকে কাঠগড়ায় তুলেছে তারা। বিরোধীদের অভিযোগ, কোনও বিশেষ অভিসন্ধি থেকেও এই কাজ করা হয়ে থাকতে পারে। তবে এমন ঘটনায় বেশ চিন্তায় অসমবাসী। এনআরসি নিয়ে অনেকেরই দুঃসহ অভিজ্ঞতা হয়েছে। তালিকাতে একই পরিবারের কারও নাম আছে, তো কারও নেই। ডেটা গায়েব হয়ে যাওয়ায় এরপর যদি আবার গন্ডগোল হয়, সেই আতঙ্কেই রয়েছেন অসমের মানুষ।

[আরও পড়ুন: ৩ কোটি মানুষের তথ্য ফাঁসের জের, ফেসবুকের উপর কড়া নজরদারির নির্দেশ আদালতের]

An Images
An Images
An Images An Images