৮ ফাল্গুন  ১৪২৬  শুক্রবার ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সারমেয়দের প্রভুভক্তি নিয়ে নতুন করে বলার কিছুই নেই। প্রভুর প্রাণ বাঁচাতে অনেক সময় নিজের জীবনও বাজি রাখে পোষ্যরা। কিন্তু মালকিনের স্তন ক্যানসার শনাক্ত করেছে জার্মান শেপার্ড, তা আগে শুনেছেন কখনও? অবাক লাগলেও এটাই সত্যি। পোষ্য দুই সারমেয়র সাহায্যেই যথা সময়ে ধরা পড়ল মহিলার স্তন ক্যানসার (Breast Cancer)। তাদের সৌজন্যে চিকিৎসা করিয়ে পুনর্জন্ম হল ওই মহিলার।

Dog-lover

সারমেয়দের নিয়েই জগৎ পঁয়ষট্টি বছর বয়সি ওয়েলসের লিন্ডা মাংকলের। চারটি জার্মান শেপার্ডের দেখভাল করতে করতেই সময় কেটে যায় তাঁর। সারমেয় বিয়া এবং তার মেয়ে ইনিয়া যেন কোলছাড়া হতে চায় না ওই মহিলার। তবে সম্প্রতি তাঁদের আচরণে বেশ ঘাবড়ে যান লিন্ডা। কিন্তু কী এমন আচরণ করেছিল দুই সারমেয়? মহিলা জানান,  একদিন বাড়ির সোফায় বসে থাকাকালীন তাঁর কোলে উঠে বসে বিয়া এবং ইনিয়া। খেয়াল করেন সারমেয়রা তাঁর স্তন শুঁকতে শুরু করেছে। মাথা দিয়ে স্তনে ধাক্কা দিচ্ছে। বারবার বারণ করা সত্ত্বেও কোনও কথা শুনছে না তারা। দিন যত যেতে থাকে, ততই যেন স্তন নিয়ে মাথাব্যথা বাড়তে থাকে ওই দুই জার্মান শেপার্ডের।

Dog-lover

 

[আরও পড়ুন: OMG! ভিডিও কলেই রোকা সারলেন যুগল, প্রেমের জোয়ারে ভাসছে নেটদুনিয়া]

একদিন পোশাক বদল করতে গিয়ে অবাক হয়ে যান লিন্ডা। তিনি খেয়াল করেন তাঁর স্তনে একটি মাংসপিণ্ড তৈরি হয়েছে। যা দেখে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন। তড়িঘড়ি চিকিৎসকের কাছে যান। চিকিৎসক এক মিনিট সময়ও নষ্ট না করে বেশ কয়েকটি পরীক্ষার কথা প্রেসক্রিপশনে লিখে দেন। তড়িঘড়ি ম্যামোগ্রাফি (Mammography) করান তিনি। তাতেই জানা যায়, ওই মহিলার শরীরে বাসা বেঁধেছে ক্যানসার। কর্কট রোগ স্তনেই থাবা বসিয়েছে বলেই জানান চিকিৎসকেরা। শুরু হয় চিকিৎসা। কেমোথেরাপিও করাতে শুরু করেন লিন্ডা। চিকিৎসা পর্ব চলাকালীনও বদলায়নি ওই দুই জার্মান শেপার্ডের আচরণ। মুখে কিছু বলতে না পারলেও প্রতিনিয়ত তাঁরা মালকিনের স্তনে ধাক্কা দিয়ে ওই মাংসল পিণ্ডের বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে খবর নিতে থাকে। তবে তিনবার কেমোথেরাপি করানোর পর আপাতত সুস্থ লিন্ডা।

Dog-lover

 

পোষ্যদের আচরণের কথা চিকিৎসককে জানান ওই মহিলা। প্রথম পর্যায়ে চিকিৎসকও অবাক হয়ে যান। তবে পরে তিনি ওই মহিলাকে বলেন, “একটি বিশেষ ক্ষমতার মাধ্যমে শুধুমাত্র গন্ধ শুঁকেই সারমেয়রা বুঝতে পারেন প্রভুর শরীরে কোনও কঠিন রোগ বাসা বেঁধেছে কি না। ক্যানসারের মতো জটিল রোগ ধরা ফেলাও অসম্ভব কিছু নয়।” অবশ্যই বাড়ি ফিরে পোষ্যদের ধন্যবাদ জানানোর পরামর্শ দেন চিকিৎসক। সারমেয়দের জন্য পুনর্জন্ম পেয়ে অত্যন্ত খুশি ওই মহিলা।

Dog-lover

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং