BREAKING NEWS

১৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ১ ডিসেম্বর ২০২০ 

Advertisement

এক আংটিতে এত হীরে! গিনেস বুকে দ্যুতি ছড়াচ্ছে ভারতীয় ডিজাইনারের নাম

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: October 25, 2020 6:47 pm|    Updated: October 25, 2020 6:49 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: হীরের আংটি (Diamond Ring) এখন আর তত দুষ্প্রাপ্য কিংবা দুর্মূল্য নয়। একটু সঞ্চয় করে যে কোনও চাকরিজীবী সারাজীবনের অন্যতম দাবি সম্পদ হিসেবে একটা হীরের আংটি কিনতেই পারেন। এনগেজমেন্ট রিং হিসেবে তো হীরের চাহিদা বাড়ছে বই কমছে না। কিন্তু আপনার কেনা আংটিতে কটি হীরে থাকবে বলে ধারণা? এক, দুই করে গুনতে গুনতে পাঁচের বেশি যে কেউ এগোতেই পারবেন না, তা হলফ করে বলা যায়। আর এখানেই আমার, আপনার সঙ্গ কোট্টি শ্রীকান্তের পার্থক্য। হায়দরাবাদের এক স্বর্ণ সংস্থার মালিক তথা ডিজাইনারের তৈরি একটা আংটিতে কটি হীরে আছে জানেন? আন্দাজও করা যাবে না। পদ্মফুল আকারের আংটিতে হীরের সংখ্যা ৭৮০১! তাঁর এই সৃষ্টিই গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে (Guiness Book of World Records) দ্যুতি ছড়িয়েছে।

ব্রহ্মকমল – হিমালয়ের কোলে ফোটা দুষ্প্রাপ্য এক ফুল। সেই ফুলই কোট্টি শ্রীকান্তের সৃজনের অনুপ্রেরণা। ভেবেই রেখেছিলেন, হীরের আংটি যখন গড়তেই বসেছেন, তখন তাতে ফুটিয়ে তুলবেন ব্রহ্মকমল। সেইমতো নিষ্ঠাভরে কাজ শুরু করেন আজ থেকে বছর দুই আগে। সেপ্টেম্বর, ২০১৮ থেকে তাঁর অসীম ধৈর্য, মনোযোগ আর হাতের জাদুতে হীরকে আকার পেয়েছে একটি পদ্ম। কাজ কিন্তু সহজ ছিল না মোটেই। এ ধরনের একটি ফুল ফোটাতে হলে তাকে স্তরে স্তরে সাজাতে হয়। মোট ছ’টি স্তর আছে এতে। পাঁচটি স্তরে মোট আটটি পাপড়ি, আর শেষ স্তরে রয়েছে ছটি পাপড়ি। ফুলের একেবারে কেন্দ্রে রয়েছে তিনটি রেণু, তাও হীরেখচিত। ১১ মাসের অক্লান্ত পরিশ্রমে ব্রহ্মকমলের আদলে অঙ্গুরীয় তৈরি করে ফেলেন কোট্টি শ্রীকান্ত। গুনে দেখেন, আংটিতে রয়েছে মোট ৭৮০১টি হীরে! একটিও কম নয়। সেটা ২০১৯, আগস্ট।

[আরও পড়ুন: পাদ্রী আশীর্বাদ দেওয়ার জন্য হাত তুলতেই ‘হাই-ফাইভ’ খুদের, মিষ্টি ভিডিওয় মুগ্ধ নেটিজেনরা]

এরপর নিজে সৃষ্টিকর্ম গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডের জন্য পাঠান হায়দরাবাদের ডিজাইনার। গত মাসে গিনেস কমিটি তাঁর এই সৃষ্টিকে বিশ্ব দরবারে স্বীকৃতি প্রদান করে। ৭৮০১টি হীরে দিয়ে কীভাবে শ্রীকান্ত আংটি তৈরি করলেন, তার একটি ভিডিও নিজেদের সোশ্যাল মিডিয়া পেজে শেয়ার করেছে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড কমিটি।

গিনেসের স্বীকৃতি পেয়ে স্বভাবতই উচ্ছ্বসিত কোট্টি শ্রীকান্ত। বলছেন, ”অন্য ধরনের অলংকার সৃষ্টিতে আমার যে ভাবনা, যে নিষ্ঠাস, তাকে স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য আমি কৃতজ্ঞ গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড কমিটির কাছে। আরও অনুপ্রেরণা পেলাম।” নিজের শোরুমে গত ২০ তারিখ থেকে এই বহুমূল্য আংটি রেখেছেন জনসাধারণের দেখার জন্য। আর তা চোখে পড়ামাত্রই জনমানসে ফিসফাস শুরু হয়ে গিয়েছে – কত দাম হবে ৭৮০১ হীরেখচিত আংটির? এর উত্তর অবশ্য মেলেনি।

[আরও পড়ুন: পদবি ‘‌করোনা’‌, অন্যদের বিশ্বাস করাতে সঙ্গে পাসপোর্ট নিয়ে ঘুরছেন এই ব্যক্তি]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement