BREAKING NEWS

২৮ আষাঢ়  ১৪২৭  মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

‘গৃহযুদ্ধে’র মধ্যেই আজ চার্চিলের বিরুদ্ধে জয়ের ধারা বজায় রাখতে মরিয়া ইস্টবেঙ্গল

Published by: Sulaya Singha |    Posted: February 29, 2020 2:25 pm|    Updated: February 29, 2020 2:25 pm

An Images

সোহম দে: ম্যাচের আগের দিন অর্থাৎ শুক্রবার যুবভারতীতে সাংবাদিক সম্মেলনে বেশ নির্লিপ্ত ছিলেন ইস্টবেঙ্গল কোচ মারিও রিভেরা। আলেজান্দ্রো জমানার ব‌্যর্থতা কাটিয়ে তাঁর মগজাস্ত্রই আবার ইস্টবেঙ্গলকে ঘুরে দাঁড়াতে সাহায্য করছে। জয়ের হ‌্যাটট্রিকের লক্ষ‌্যে আজ চার্চিল ব্রাদার্সের বিরুদ্ধে নামছে তাঁর দল।

‌ম‌্যাচের আগে রিভেরা ছিলেন আত্মবিশ্বাসী মেজাজে। ফুটবলারদের লড়াইয়ের প্রশংসায় পঞ্চমুখ তিনি। বলছেন, “দুটো ম‌্যাচ জয়ের পর আমরা যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী। আর যদি নিজেদের স্বাভাবিক ফুটবলটা খেলতে পারি তাহলে যে কোনও দলকেই হারাতে পারব।” তবে এমন স্বস্তির আবহেও তাঁর চিন্তা থেকেই যাচ্ছে। চিন্তার নাম আনসুমানা ক্রোমা। কয়েকদিন আগেই কোচকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে মানসিক অত‌্যাচারের অভিযোগ এনেছিলেন লাল হলুদ স্ট্রাইকার। আর সেই অভিযোগের জবাবে এদিন আদ‌্যোপান্ত ভদ্রলোক হিসাবে পরিচিত মারিও রিভেরাও বিরক্ত। যিনি প্রশ্ন তুললেন, ক্রোমা কি আদৌ টিমম‌্যান? মারিও বলেন, “কোনও ফুটবলারকে ম‌্যাচের মাঝপথে বসিয়ে দিলে তার খারাপ লাগতে বাধ‌্য। তবে সেই ফুটবলার বদল করার পর আমরা চার গোল দিয়ে জিতেছি। আর যদি কোনও ফুটবলার দলের জয়ে খুশি না হয় তাহলে তার কোনও সমস‌্যা আছে। সেই ফুটবলার আদৌ টিমম‌্যান নয়।”

[আরও পড়ুন: মহিলা বিশ্বকাপে অপরাজেয় ভারত, গ্রুপের শেষ ম্যাচেও সহজ জয় শেফালিদের]

জল্পনা তুঙ্গে, জনি অ‌্যাকোস্টা দলের সঙ্গে যোগ দিলে ছাঁটাই হবেন ক্রোমা। আর সেটা জানতে পেরেই নাকি ক্ষোভে ফেটে পড়েন স্ট্রাইকার। তবে সেই প্রসঙ্গ এড়িয়ে মারিও বললেন, “বাকি ফুটবলারদের মতো ক্রোমাও এই দলের অঙ্গ। চার্চিলের বিরুদ্ধে স্কোয়াডে থাকবে। যদি ও খুশি না থাকে সেটা ওর সমস‌্যা।” শতবর্ষের ইস্টবেঙ্গলে বিতর্কের অধ‌্যায়ের নতুন সংযোজন হতে পারে এই গৃহযুদ্ধ। তবে কোচের অনুশীলনে অন্তত সেই বিতর্কের রেশ নেই। বাকিদের মতো এদিন ক্রোমাও পুরো অনুশীলন করলেন। তবে তিনি খেলবেন কিনা সেই ব‌্যাপারে প্রশ্নচিহ্ন থেকেই গেল।

অনুশীলনের প্রসঙ্গে আসলে সেই আক্রমণের উপরেই জোর দিলেন ইস্টবেঙ্গল কোচ। ফুটবলারদের চারটে দলে ভাগ করে একে অপরের সঙ্গে ম‌্যাচও খেলান শুক্রবার। ইস্টবেঙ্গল কোচ আশায় আছেন যুবভারতীতে আক্রমণাত্মক ফুটবল উপহার দেবেন মার্কোসরা। মারিও বললেন, “আক্রমণাত্মক ফুটবলের ক্ষেত্রে যুবভারতী একদম আদর্শ। কল‌্যাণীর তুলনায় যুবভারতীর পিচ অনেক ভাল। আশা করছি এই স্টেডিয়াম আমাদের সাহায্য করবে।” আর উইলিস প্লাজা? বিপক্ষের তুরুপের তাস নিয়ে একটাই মন্ত‌ব‌্য করে গেলেন মারিও, “প্লাজা দারুণ ফুটবলার। তবে একা ওকে নিয়ে ভাবলে হবে না।”

[আরও পড়ুন: ‘ত্রাতা’ সেই টুটু বোস! ফুটবলারদের যাবতীয় বকেয়া মিটিয়ে দিল মোহনবাগান]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement