BREAKING NEWS

০৫ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৯  রবিবার ২২ মে ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

‘নারায়ণ, নারায়ণ,’ মোদি-আসারামের ভিডিও পোস্ট করে কটাক্ষ আইসিসির

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: April 25, 2018 5:54 pm|    Updated: April 25, 2018 5:54 pm

ICC’s hilarious tweet on Asaram Bapu Verdict

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আসারাম বাপুর ধর্ষণ কাণ্ডের সঙ্গে এবার জড়িয়ে গেল আইসিসির নাম! অবাক লাগলেও এটাই সত্যি।

ধর্ষণে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন স্বঘোষিত ধর্মগুরু আসারাম বাপু। সঙ্গীদেরও পরিণতি একই। পাঁচ বছর আগে এক নাবালিকাকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছিল এই ধর্মগুরুর বিরুদ্ধে। বুধবার যোধপুরের বিশেষ আদালতে দোষী সাব্যস্ত করা হল পাঁচজনের মধ্যে তিন অভিযুক্তকেই। যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশও দেওয়া হয় আসারামকে। আর আদালতের রায়ের পরই সোশ্যাল মিডিয়ায় এই সংক্রান্ত একটি পোস্ট করে বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থা। আইসিসির টুইটার হ্যান্ডেলে একটি ভিডিও পোস্ট করা হয়। যেখানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে একটি জনসভায় একই ফ্রেমে দেখা যাচ্ছে ধর্ষক আসারাম বাপুকে। ভিডিওর সঙ্গে লেখা ‘নারায়ণ, নারায়ণ’। অর্থাৎ ধর্ষক আসারামের সঙ্গী হিসেবে মোদিকেও বিঁধল আইসিসি। আর এরপরই নেটদুনিয়ায় শুরু হয় বিতর্ক। আইসিসি অবশ্য কিছুক্ষণের মধ্যেই বিতর্কিত পোস্টটি মুছে ফেলে। কিন্তু ততক্ষণে যা আগুন লাগার, লেগে গিয়েছে। সেই পোস্টের স্ক্রিনশট এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল।

[বেটিং চক্রে এবার গ্রেপ্তার প্রাক্তন ক্রিকেটার, উদ্ধার একাধিক মোবাইল]

মোদি সরকারের সমালোচনায় প্রায়ই সরব হতে দেখা যায় অল্ট নিউজের সহ-কর্ণধার প্রতীক সিনহাকে। তিনিই প্রথমে এই ভিডিওটি পোস্ট করেছিলেন। সঙ্গে লেখেন, “মোদি ও আসারামের সুসম্পর্কের মুহূর্ত আপনাদের সঙ্গে ভাগ করে নিলাম।” মোদি গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন সেখানের এক জনসভায় হাজির হয়েছিলেন আসারাম বাপু। তখনই এক ফ্রেমে হাসি মুখে দেখা গিয়েছিল দুজনকে। এ ভিডিও বেশ পুরনো হলেও এই সময় তা নতুন করে পোস্ট করা বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

tweet_web

এর আগে কোটি টাকার আর্থিক কারচুপি করে দেশ ছেড়ে পলাতক নীরব মোদির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর একটি ছবিও ভাইরাল হয়ে গিয়েছিল। প্রশ্ন উঠেছিল, তাঁর এত ঘনিষ্ঠ হওয়া সত্ত্বেও কেন নীরব মোদিকে গ্রেপ্তার করা যাচ্ছে না। এবার ধর্ষক গুরুর সঙ্গেও যে মোদির সুসম্পর্ক ছিল, এই ভিডিও সেটাই ফের মনে করিয়ে দিল। আর তাই আইসিসিও ভারতের রাজনীতিকে কটাক্ষ করতে ছাড়ল না। অর্থাৎ এমন ঘটনাকে পরোক্ষে ‘জাতীয় লজ্জা’ বলেই প্রতিপন্ন করল আইসিসি।

[আসন্ন বিশ্বকাপে মুখোমুখি ভারত-পাক, টক্কর ১৬ জুন]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে