BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ভারত থেকে ছিনিয়ে নেওয়া যাবে না কাশ্মীরকে

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 11, 2016 10:02 am|    Updated: August 11, 2016 10:02 am

An Images

নন্দিতা রায়, নয়াদিল্লি: পৃথিবীর কোনও শক্তিই ভারত থেকে জম্মু-কাশ্মীরকে ছিনিয়ে নিতে পারবে না৷ সংসদে দাঁড়িয়ে এই প্রত্যয়ী মন্তব্য সদ্য পাকিস্তান-ফেরত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের৷ সেই সঙ্গে ইসলামাবাদকে দিলেন কড়া বার্তাও৷ সপ্তাহ দু’য়েক আগেই পাক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ মন্তব্য করেন, তিনি সেই দিনের স্বপ্ন দেখেন,  যেদিন কাশ্মীর পাকিস্তানের হবে৷ কূটনৈতিক মহলের ধারণা, শরিফের সেই মন্তব্যেরই এদিন জবাব দিয়েছেন রাজনাথ৷

বুধবার রাজ্যসভায় দিনভর কাশ্মীর নিয়ে আলোচনার পরে জবাবি ভাষণে রাজনাথের মন্তব্য অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ৷ শুধু শরিফকে জবাব দেওয়াই নয়, রাজনাথ এদিন কাশ্মীরের অস্থির পরিস্থিতির পিছনে পাকিস্তানের মদত রয়েছে বলেও অভিযোগ করেছেন৷ তিনি বলেন, “আমার একথা বলতে কোনও দ্বিধা নেই যে, কাশ্মীরে যা ঘটছে তার পিছনে পাকিস্তানের মদত রয়েছে৷”

তিনি আরও বলেন, “ভারত যদি পাকিস্তানের সঙ্গে কোনও কথা বলে, তা কেবলমাত্র পাক অধিকৃত কাশ্মীর নিয়ে বলবে, কাশ্মীর নিয়ে কখনওই নয়৷” একইসঙ্গে রাজনাথ এদিন কাশ্মীরের বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতাদেরও আক্রমণের নিশানা করেছেন৷ তিনি বলেন, “কাশ্মীরের বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতারা সেখানকার মানুষকে প্ররোচনা দিচ্ছে৷”

রাজ্যসভায় এদিন সর্বসম্মতিক্রমে কাশ্মীর নিয়ে প্রস্তাবও গ্রহণ করা হয়েছে৷ উল্লেখ্য, প্রায় দুই দশক আগে একইভাবে লোকসভায় কাশ্মীর নিয়ে প্রস্তাব গৃহীত হয়েছিল৷ সংসদের চলতি অধিবেশনের শেষ দিন শুক্রবার ১২ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উপস্থিতিতে কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে সর্বদল বৈঠক হবে বলেও রাজনাথ জানান৷ কাশ্মীরে সর্বদলীয় প্রতিনিধিদল পাঠানো হবে কি না, সে বিষয়েও রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতির সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা বলেন তিনি৷

রাজনাথ বলেন, কাশ্মীরের দায়িত্বভার সেনাবাহিনীর হাতে ছেড়ে দেওয়া হবে বলে গুজব ছড়ানো হচ্ছে৷ কিন্তু কেন্দ্র এমন কিছু ভাবছে না৷ কাশ্মীরের মানুষের কাছে দেশ-বিরোধী স্লোগান না দেওয়ার জন্যও আবেদন করেছেন রাজনাথ৷

বিরোধীদের দাবিতে এদিন প্রায় ছ’ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে কাশ্মীরের অস্থির পরিস্থিতি নিয়ে রাজ্যসভায় আলোচনা হয়৷ ২৯ জন বক্তার পর জবাবি ভাষণ দেন রাজনাথ৷ আলোচনার শুরুতেই রাজ্যসভার বিরোধী দলনেতা গুলাম নবি আজাদ বলেন, কাশ্মীরের সব ধর্মের মানুষ দীর্ঘদিন ধরেই সন্ত্রাসের শিকার হয়ে আসছেন৷ কাশ্মীরের বাসিন্দা আজাদ বলেন, কাশ্মীরে আবার নতুন করে অস্থিরতা সৃষ্টির জন্য মুফতি সরকারের ‘ভুল নীতি’ দায়ী৷ কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি বলেন, কাশ্মীরের বিষয় নিয়ে রাজনীতি করা উচিত নয়৷ তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্যসভার দলনেতা ডেরেক ও ব্রায়েন সরকারের কাছে আবেদন করেন, কাশ্মীরের জমি ও মানুষকে আলাদাভাবে যেন না দেখা হয়৷ বাম সাংসদ সীতারাম ইয়েচুরি ‘প্যালেট গান’ ব্যবহারের ক্ষেত্রে সরকারকে সতর্ক হতে হবে এবং এর বিকল্প খুঁজে বের করতে হবে বলে দাবি করেন৷

এদিকে এদিনই সুপ্রিম কোর্ট একটি মামলার শুনানিতে বলেছে, কাশ্মীরে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সরকারকে মানবিক হতে হবে৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement