৩০ ভাদ্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সমুদ্রতটে পড়ে রয়েছে বিশালবপু তিমি৷ নিথর, নিস্পন্দ৷ এতটা জায়গাজুড়ে পড়ে রয়েছে যে দূর থেকে দেখে বোঝার উপায় নেই, ওটা একটা তিমির দেহ৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পশ্চিম উপকূলজুড়ে এই দৃশ্য আজকাল বেশ চোখে পড়ছে৷ যা বেশ উদ্বেগে ফেলেছে জীববিজ্ঞানীদের৷ গত এক বছরের এধরনের বিলুপ্তপ্রায় তিমির মৃত্যুর সংখ্যা উদ্বেগজনকভাবে বেড়েছে বলে জানাচ্ছেন তাঁরা৷

[আরও পড়ুন: ফুটপাথে প্যাকেট বোমা বিস্ফোরণ, ফ্রান্সের লিয়ঁ শহরে জখম ১৩]

উত্তর ক্যালিফোর্নিয়ার লিমানটুর সৈকতে শনিবার আরও একটি ধূসর তিমির দেহ দেখতে পেয়ে গবেষণায় নেমেছেন সমুদ্রবিজ্ঞানীরাও৷ তাঁদের একাংশের মতে, খাদ্যাভাবে এমন বিশালদেহী জলজ প্রাণী মৃত্যুর মুখে ঢলে পড়ছে৷ যুক্তি হিসেবে তাঁরা তুলে ধরছেন, সমুদ্রের ধারে পড়ে থাকা মৃতদেহগুলিতে স্পষ্ট অপুষ্টির ছাপ৷ অনেক সময়ে মা-শাবকের নিথর দেহও দেখা যাচ্ছে একত্রে৷ এই ক’মাসে অন্তত ১০ শতাংশ ধূসর তিমির মৃত্যু হয়েছে বলে দেখা যাচ্ছে পরিসংখ্যানে৷ এখানকার মেরিন ম্যামাল সেন্টারের তরফে তিমির মৃত্যুর কারণ বুঝতে একটি বিশেষজ্ঞ দল গঠন করা হয়েছে৷ যারা সমুদ্রের তলদেশে নেমে খুঁজবেন কারণ৷

whale

আবার আরেকদলের মতে, এ ধরনের তিমির বংশবৃদ্ধি বেশি হয়৷ সেক্ষেত্রে এই অতিরিক্ত বংশবৃদ্ধিই তাদের মৃ্ত্যুর কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে কি না, তা নিয়েও শুরু হয়েছে গবেষণা৷ স্থানীয় পশুবিজ্ঞানী শন জনসনের কথায়, ‘এবছর এই অঞ্চলে আকস্মিকভাবে তিমির মৃত্যু হয়েছে৷ গোটা পশ্চিম উপকূল ঘিরেই এদের দেহ ছড়ানো৷ এটা একটি অস্বাভাবিক লাগছে৷ সাধারণত বছরে খুব বেশি হলে, আমরা ১০টি তিমির দেহ দেখতে পাই৷’ এর জন্য কেউ কেউ আবার বিশ্ব উষ্ণায়নকে দায়ী করছে৷ বলা হচ্ছে, সমুদ্রতলের জলের তাপমাত্রা বাড়ছে, সেই গরমে অত বড় প্রাণীরা ছটফট করতে করতে পাড়ের দিকে চলে আসছে, আর তাতেই মৃত্যু হচ্ছে৷

[আরও পড়ুন: নেই খাবার-পানীয় জল, মাঝসাগরে জাহাজে আটকে দুই ভারতীয়]

ধূসর তিমির মৃত্যুরহস্য হয়তো উদ্ঘাটিত হবে৷ কিন্তু উদ্বেগ তাতেও কিছু কমছে না৷ কারণ, এভাবেই বিপন্ন হয়ে পড়ছে পৃথিবীর বহু জলচর জীব৷ যা থেকে তাদের রক্ষা করা জীববিজ্ঞানীদের কাছে রীতিমত চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াচ্ছে৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং