BREAKING NEWS

১২ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৯  রবিবার ২৯ মে ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

সীমান্তে পাকিস্তানি সেনাদের গুলি করার হুমকি তালিবানের, ডুরান্ড লাইন মানতে নারাজ জেহাদিরা

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: December 25, 2021 9:32 am|    Updated: December 27, 2021 1:04 pm

Taliban clashes with Pak troops, dismantles border fence | Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: পাকিস্তানকে (Pakistan) গ্রাস করছে সন্ত্রাসের ‘ফ্র্যাঙ্কেনস্টাইন’। নিজের হাতে তৈরি দানবের কামড়ে ক্ষতবিক্ষত হচ্ছে ইসলামিক দেশটি। এবার পাক-আফগান সীমান্তে পাকিস্তানি ফৌজের দেওয়া বেড়া উপড়ে ফেলে তাদের গুলি করার হুমকি দিল তালিবান জঙ্গিরা। ডুরান্ড লাইনে ঘটা এই ঘটনায় তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে ইসলামাবাদ।

[আরও পড়ুন: ইউক্রেন সীমান্তে বাড়ছে রুশ সেনার জমায়েত, স্যাটেলাইট ছবিতে মিলছে আসন্ন যুদ্ধের ইঙ্গিত!]

সংবাদ সংস্থা এএনআই সূত্রে খবর, রবিবার পাকিস্তানি ফৌজের সঙ্গে সীমান্ত নিয়ে সংঘাতে জড়ায় তালিবান জঙ্গিরা। ঘটনার সূত্রপাত হয় পাক সীমান্ত লাগোয়া আফগানিস্তানের নানগরহার প্রদেশে। সেখানে সীমান্ত বরাবর বেড়া দেওয়ার কাজ শুরু করে পাকিস্তানি ফৌজ। কিন্তু সেই ফেন্সিং ভেঙে গুঁড়িয়ে দেয় সেখানে মোতায়েন তালিবান সীমান্তরক্ষীরা। শুধু তাই নয়, বাধা দিলে পাক ফৌজিদের গুলি করারও হুমকি দেয় তারা। এই ঘটনায় রীতিমতো বিপাকে পড়েছে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রশাসন। বাধ্য হয়ে মুখরক্ষায় কাবুলের তালিবান প্রশাসনের কাছে ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে ইসলামাবাদ। তাৎপর্যপূর্ণ ভাবে, আফগানিস্তান-পাকিস্তান সীমান্ত সংঘাত নতুন কিছু নয়। এবার তালিবানও স্পষ্ট করে দিল যে দুই দেশের সীমান্ত নির্ধারণকারী ডুরান্ড লাইন মানবে না তারা।

বলে রাখা ভাল, আফগানিস্তানের সঙ্গে প্রায় ২ হাজার ৬০০ কিলোমিটার সীমান্ত ভাগ করেছে পাকিস্তান। আর অতীতকাল থেকেই সেই সীমান্ত নিয়ে সংঘাত চলছে কাবুল ও ইসলামাবাদের মধ্যে। ১৯৪৭ সাল থেকে কোনও আফগান সরকার ডুরান্ড লাইনকে আন্তর্জাতিক সীমান্ত হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি। পাক নীতিনির্ধারকরা মনে করছিলেন তালিবান ক্ষমতায় এলে তারা সেই স্বীকৃতি দেবে। কিন্তু সেই আশায় জল ঢেলে দিল জেহাদিরা।

এদিকে, সীমান্ত সংঘাত নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে তুলোধোনা করছে বিরোধীরা। পাক সেনেটের চেয়ারম্যান তথা পিপিপি দলের নেতা রাজা রব্বানি স্পষ্ট বলেন, “ওরা (তালিবান) ডুরান্ড লাইনকে স্বীকৃতি দিতে নারাজ। আমরা কেন সেই সরকারকে আন্তর্জাতিক মান্যতা পাইয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছি।” শুধু তাই নয়, আফগানিস্তানে তেহরিক-ই-তালিবানের শক্তি সংগ্রহ নিয়েও উদ্বেগ প্রঅকাশ করেন তিনি। সবমিলিয়ে, পাকিস্তানের জন্য বিপদ যে ক্রমে বাড়ছে তা স্পষ্ট।

[আরও পড়ুন: তালিবান আমলে আফগানিস্তানে কাজ হারিয়েছেন অন্তত ৬ হাজার সাংবাদিক]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে