BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘আমার সঙ্গে তৃণমূলের ৪০ জন বিধায়ক যোগাযোগ রেখেছে’, বিস্ফোরক মোদি

Published by: Sayani Sen |    Posted: April 29, 2019 3:53 pm|    Updated: April 29, 2019 4:32 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  লোকসভা নির্বাচনের পরই রাজনীতিতে আসতে চলছে বড় পরিবর্তন৷ ৪০জন তৃণমূল বিধায়ক বিজেপির সঙ্গে  যোগাযোগ রাখছেন৷ গেরুয়া শিবিরে যোগ দিতে পারেন তাঁরা৷ শ্রীরামপুরের বিজেপি প্রার্থী দেবজিৎ সরকারের সমর্থনে জনসভা থেকে রাজনৈতিক সমীকরণের সম্ভাব্য বদল নিয়ে বিস্ফোরক দাবি করেন মোদি৷ কিছুক্ষণের মধ্যেই তার পালটা জবাব দিলেন ডেরেক ও’ ব্রায়েন৷ জনসভা নাকি ঘোড়া কেনাবেচা করতেই  বাংলায় এসেছিলেন মোদি, টুইটে সেই প্রশ্ন তোলেন তিনি৷ 

[ আরও পড়ুন: বেড-টি পেতে দেরি, সকাল থেকে আসানসোলের কোনও খবরই জানেন না মুনমুন]

লোকসভা নির্বাচনে বাংলায় তৃণমূল এবং বিজেপি প্রার্থীদের মধ্যে চলছে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই৷ কে এ রাজ্য থেকে কতগুলি আসন নিজেদের ঝুলিতে ভরতে পারেন, তা নিয়ে চলছে টানাপোড়েন৷ রাজনীতির কারবারিরা যখন লোকসভা নির্বাচনের আসন ভাগাভাগি নিয়ে চিন্তাভাবনায় মগ্ন, তখন সভা থেকে বিস্ফোরক তথ্য ফাঁস করলেন নরেন্দ্র মোদি স্বয়ং৷

[ আরও পড়ুন: ‘গুলি চালানোর সাহস কীভাবে হয়?’ কেন্দ্রীয় বাহিনীকে তোপ শতাব্দীর]

তিনি বলেন, ‘‘২৩ মে গোটা দেশের পাশাপাশি এ রাজ্যেও বইবে গেরুয়া ঝড়৷ ইতিমধ্যেই ৪০ জন তৃণমূল বিধায়ক নিয়মিত বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে৷ লোকসভা নির্বাচনের ফলপ্রকাশের পর তাঁরা গেরুয়া শিবিরে নাম লেখাবেন৷’’ 

ভোটের ফল ঘোষণার পর সত্যি যদি তৃণমূল বিধায়কেরা দলবদল করেন, তাহলে যে কোনও সমীকরণ যে একেবারে বদলে যাবে,এনিয়ে নতুন করে বলার নেই৷ তাই মোদির এই মন্তব্যের পরই রাজনৈতিক মহলে শুরু হয়েছে জোর জল্পনা৷ আলোচনার মাঝেই মোদির দাবি নিয়ে সুর চড়ালেন ডেরেক ও’ ব্রায়েন৷ মোদিকে ‘এক্সপায়ারি বাবু’ বলে কটাক্ষ করে টুইটে তিনি লেখেন,‘‘কোনও তৃণমূল বিধায়ক বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন না৷ আপনি ভোটপ্রচারে নাকি ঘোড়া কেনাবেচা করতে এসেছিলেন?’’ ঘোড়া কেনাবেচার অভিযোগ তুলে তৃণমূল নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হওয়ার চিন্তাভাবনা করছে বলেও জানান ডেরেক৷   

এদিনের সভায় বক্তৃতার বেশিরভাগ অংশ জুড়েই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেন মোদি৷ অক্ষয়ের সঙ্গে মোদির ‘অরাজনৈতিক’ সাক্ষাৎকার নিয়ে আলোচনা কম হয়নি৷ মোদিকে মিষ্টি পাঠানো সৌজন্য ছাড়া যে কিছুই নয় তা-ও জানিয়েছিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী৷ তবে দিনকয়েক আগে জনসভার মঞ্চ থেকে মোদিকে কাঁকড় মেশানো লাড্ডু পাঠানোর হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন তিনি৷ শ্রীরামপুরের সভা থেকে মমতার এই বক্তব্যের পালটা জবাব দিলেন মোদি৷ তিনি বলেন, ‘‘দিদি বলেছেন মাটির রসগোল্লার সঙ্গে পাথর আসবে আমার কাছে৷ আমি আপাতত তার অপেক্ষায় আছি৷ আমার কাছে ওই রসগোল্লা আসলে, বাংলা থেকে পাথর কমবে৷ বাংলার ভাল হবে৷’’

[ আরও পড়ুন: মোদি-শাহর বিরুদ্ধে কেন নিষ্ক্রিয় কমিশন? প্রশ্ন তুলে সুপ্রিম কোর্টে কংগ্রেস]

আরও একবার সভা থেকে সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের কথা বলেন মোদি৷ এই প্রসঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজনীতি করার চেষ্টা করছেন বলেও অভিযোগ তাঁর৷ বাংলার মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যের প্রতিটি মানুষের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন, এই অভিযোগেও সুর চড়ান মোদি৷ দেশের উন্নতির জন্য বিজেপিকে ভোট দেওয়ার আরজি জানিয়েছেন তিনি৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement