২ ভাদ্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ২০ আগস্ট ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

২ ভাদ্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ২০ আগস্ট ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: গত রবিবার অর্থাৎ ২৩ জুন ফেডারেশন অফ সিনে টেকনিশিয়ান্স অ্যান্ড ওয়ার্কার্স অফ ইস্টার্ন ইন্ডিয়া-র মিটিং হয়েছিল। নেতৃত্বে ছিলেন এই সংগঠনের কার্যকারী সভাপতি স্বরূপ বিশ্বাস। তার আগে গত ২১ জুন, শুক্রবার বিজেপির পক্ষ থেকে টলিপাড়ায় আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয় বিজেপির পথ চলা। আজ এক সপ্তাহ পর, ২৯ জুন, শনিবার ইস্টার্ন ইন্ডিয়া মোশন পিকচারস এবং কালচারাল কনফেডারেশনের প্রথম বৈঠক হয়। সূত্রের খবর, প্রধান অতিথি হিসেবে আমন্ত্রিত ছিলেন রাজ্যের গেরুয়া শিবিরের সভাপতি দিলীপ ঘোষ, আসানসোলের সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়। তবে, আমন্ত্রিত থাকলেও উপস্থিত ছিলেন না লকেট চট্টোপাধ্যায়।

[আরও পড়ুন: টলিউডে তুঙ্গে গেরুয়া-সবুজ তরজা, নাম না করে বিজেপিকে তোপ অরূপ বিশ্বাসের]

ভোট পরবর্তী পরিস্থিতিতে রাজ্যে গেরুয়া ধ্বজ্জা ওড়ানোর যথাযথ হাওয়া দেখেই কোমর বেঁধে নেমে পড়েছে বিজেপি। বাংলায় ‘ঘাসফুল বনাম পদ্মফুল’ সংঘাতের সেই জল গড়িয়েছে টলিউড ইন্ডাস্ট্রির দুয়ার অবধি। শুধু রাজনীতির ময়দান নয়, গ্ল্যামার ইন্ডাস্ট্রিতেও চাই আধিপত্য, দাবি বিজেপির। আর টলিউডে সেই গেরুয়া-সুবজ লড়াইয়ের দুন্দুভি ইতিমধ্যেই বেজে গিয়েছে। বিনোদন জগতে আধিপত্য বিস্তারে ব্যাপক উদ্যোগী হয়ে উঠেছে টলিউডের সদ্যোজাত বিজেপি ঘনিষ্ঠ সংগঠন ইস্টার্ন ইন্ডিয়া মোশন পিকচারস। টলিউড ইন্ডাস্ট্রির যাবতীয় সমস্যার সমাধান এখনও অধরা থাকাতেই গেরুয়া ব্রিগেডের পক্ষ থেকে এহেন প্রয়াস বলে জানা গিয়েছে বিজেপি ঘনিষ্ঠদের তরফে। দিন কয়েক আগেই লকেট চট্টোপাধ্যায় একাধিক অভিযোগ তুলেছিলেন। তাঁর বক্তব্য, বাইরে থেকে রেইকি করতে আসা শুটিং টিম, রাজ্য সরকারের মদতপুষ্ট লোকেদের ঠিক করা চড়া বাজেট ধরার জন্য ফিরে যান। যার জন্য বাংলার অনেক ভাল লোকেশন ব্যবহৃত হয় না। এছাড়াও, তিনি বলেছিলেন শিল্পী, কলাকুশলী তথা টেকনিশিয়ানদের সমস্যা কীভাবে সমাধান করা যায় সেটাই এই সংগঠনের মূল লক্ষ্য।

[আরও পড়ুন: প্রতিশ্রুতিই সার, সাতদিনে বকেয়া মেটানোর আশ্বাস পেয়েও ক্ষুব্ধ টলিপাড়ার টেকনিশিয়ানরা]

এই সংগঠনের মাথায় রয়েছেন অগ্নিমিত্রা পল। তাঁর বক্তব্য, এটা ঠিক রাজনৈতিক সংগঠন নয়। আমাদের সংগঠনের গাইডলাইন অনুযায়ী যে কোনও ব্যক্তিই সমস্যায় পড়লে সাহায্যের জন্য আসতে পারেন। তাঁদের ফিরিয়ে দেওয়া হবে না। ইতিমধ্যেই বহু মানুষ সাড়া দিয়েছেন। তিনি আরও জানান, এখানে হাজার হাজার মানুষ কাজ পাচ্ছেন না। কারণ তাঁরা তোষামোদ করেন না। মানুষ ভয়ে কথা বলতে পারছেন না। এই পরিস্থিতি তো বেশিদিন চলতে পারে না। এক সপ্তাহ হল কয়েকজন শিল্পীদের বকেয়া পারিশ্রমিক মিটেছে। কিন্তু টেকনিশিয়ানদের পারিশ্রমিকের কোনও সুরাহা হয়নি এখনও।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং