BREAKING NEWS

১৯ চৈত্র  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ২ এপ্রিল ২০২০ 

Advertisement

শাহিনবাগে ‘ভারত ভাঙার’ হুমকি বিক্ষোভের মাস্টারমাইন্ডের, দায়ের দেশদ্রোহিতার মামলা

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: January 26, 2020 9:51 am|    Updated: January 28, 2020 10:27 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দেশ বিরোধিতার অভিযোগে কলুষিত হল দিল্লির শাহিনবাগের সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন বিরোধী শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ। দেশদ্রোহিতার অভিযোগে মামলা দায়ের হল বিক্ষোভের অন্যতম মাস্টারমাইন্ড শারজিল ইমামের বিরুদ্ধে। জেএনইউয়ের প্রাক্তনী শারজিলের বিরুদ্ধে অভিযোগ, শাহিনবাগের বিক্ষোভের মঞ্চে দেশ বিরোধী স্লোগান দিয়েছেন তিনি। তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করেছে অসম সরকার।

[আরও পড়ুন: সাধারণতন্ত্র দিবসের সকালে পরপর বিস্ফোরণ, অসমজুড়ে আতঙ্ক]

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে, যাতে দেখা যাচ্ছে শার্জিল ইমাম নামের ওই ব্যক্তি অসমকে ভারত থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেওয়ার ডাক দিচ্ছেন। তিনি বলছেন, “আমরা ৫ লক্ষ মুসলিম একসঙ্গে হয়ে অসম-সহ উত্তরপূর্বকে ভারত থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেব। স্থায়ীভাবে না হলেও কয়েক মাসের জন্য তো করতেই পারব। উত্তরপূর্ব ভারত বিচ্ছিন্ন হলে তবেই কেন্দ্র সরকার আমাদের কথা শুনবে।” আসলে, অসমে এনআরসি বিরোধিতায় মুসলিমদের একত্রিত হয়ে আন্দোলন করার ডাক দিচ্ছিলেন শারজিল। তবে, যে পন্থায় তিনি বিরোধিতা করতে বলছেন তা প্রকারান্তরে দেশদ্রোহিতারই শামিল বলে মনে করছে বিজেপি।

[আরও পড়ুন: পদ্ম তালিকায় ছড়াছড়ি মুসলিম মুখের, মরণোত্তর পদ্মবিভূষণ জেটলি-সুষমা-জর্জকে]

এই ভিডিও প্রকাশ্যে আসতেই বিজেপি মুখপাত্র সম্বিত পাত্র (Sambit Patra) প্রশ্ন তুলছেন, “এটা যদি দেশদ্রোহ না হয়, তাহলে কী?” অমিত শাহও এই ভিডিওকে হাতিয়ার করে বিরোধীদের আক্রমণ শানিয়েছেন। তিনি বলছেন, “আজ একটি ভিডিও প্রকাশ্যে এসেছে। অথচ ভোটের লোভে একের পর এক নেতা বলছেন তাঁরা শাহিনবাগের পক্ষে।” এই বক্তব্যের প্রেক্ষিতে শারজিল বিরুদ্ধে মামলা করেছে অসম সরকার। অসমের মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা (Himanta Biswa Sarma) সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, রাজ্যের বর্তমান আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিতে এই বক্তব্য রীতিমতো উসকানিমূলক। আমরা ওই ব্যক্তিকে আদালতে নিয়ে যাবে। ওঁর আইনানুগভাবে শাস্তি পাওয়া উচিত।
উল্লেখ্য, এই শারজিল শাহিনবাগ বিক্ষোভের মূল হোতা হিসেবে ধরা হয়। তাঁর উদ্যোগেই বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। তবে, শাহিনবাগের বিক্ষোভকারীরা বলছেন, শার্জিল এখন আর বিক্ষোভের নেতৃত্বে নেই। শুরুতে ছিলেন। পরে মতানৈক্যের জন্য বেরিয়ে গিয়েছেন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement