BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

মধ্যবিত্তের নাগালের বাইরে ফ্যাবিফ্লু ওষুধের দাম, Glenmark-কে নোটিস কেন্দ্রীয় ড্রাগ কন্ট্রোলের

Published by: Paramita Paul |    Posted: July 19, 2020 6:58 pm|    Updated: July 19, 2020 6:58 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা (Corona Virus) চিকিৎসায় ব্যবহৃত ওষুধ  ফ্যাবিফ্লুর (Faviflu) দাম নিয়ে বিপাকে গ্লেনমার্ক। ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থাকে নোটিস ধরালো কেন্দ্রীয় সংস্থা সেন্ট্রাল ড্রাগস  স্ট্যান্ডার্ড কন্ট্রোল অর্গানাইজেশন (CDSCO)। সংস্থার বিরুদ্ধে ওষুধের দাম অনেকটা বেশি রাখা এবং ওষুধের কার্যকারিতা নিয়ে মিথ্যা দাবি করার অভিযোগ উঠেছে। প্রসঙ্গত, জুন মাসেই করোনার চিকিৎসায়  ফ্যাবিফ্লু (Faviflu) ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছিল DCGI।

ওষুধের মান নির্ধারক কেন্দ্রীয় সংস্থার দাবি, ফ্যাবিফ্লু (Faviflu)  নিয়ে এক সাংসদ তাঁদের চিঠি দিয়েছেন। সেই চিঠিতে বলা হয়েছে, মুম্বইয়ের গ্লেনমার্ক (Glenmark) সংস্থা এই ওষুধের জন্য যে দাম ধার্য করেছেন তা নিম্নবিত্ত, নিম্ন মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্তদের সাধ্যের বাইরে।  চিঠি অনুযায়ী, করোনায় চিকিৎসায় ফ্যাবিফ্লু (Faviflu) ব্যবহারের জন্য খরচ হবে প্রায় সাড়ে ১২ হাজার টাকা। CDSCO আরও জানিয়েছে ওই সংস্থা তাঁদের অনলাইন সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়েছিল, প্রতিটি ট্যাবলেটের দাম ১০৩ টাকা ধার্য করা হয়েছে।  করোনা আক্রান্ত রোগীকে মোট ১৪ দিন এই ওষুধ খেতে হবে। নিয়ম বলছে মোট ১২২টি ট্যাবলেট তাঁদের খেতে হবে। ফলে খরচ যা দাঁড়াবে তা অনেকেরই সাধ্যের বাইরে। 

[আরও পড়ুন : হাসপাতালে ডিস্কো ডান্স করে সাসপেন্ড করোনা আক্রান্ত কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারী]

এমনকী, এই ওষুধের ব্যবহার নিয়েও সংস্থার দাবিতে বিভ্রান্তি ছড়িয়েছে বলে CDSCO তাঁদের শোকজ নোটিসে দাবি করেছে। বলা হয়েছে, “গ্লেনমার্ক বলেছে ফ্যাবিফ্লু কো-মরবিড পরিস্থিতি যেমন-হাইপার টেনশন, ডায়াবেটিসের ক্ষেত্রেও এই ওষুধ ব্যবহার করা যাবে।” অথচ এর কোনও পরীক্ষামূলক প্রমাণ নেই বলেই জানিয়েছে CDSCO। সাংসদের চিঠি পাওয়ার পরই গ্লেনমার্ককে নোটিস পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় সংস্থা। 

প্রসঙ্গত, জুনের মাঝামাঝি করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য মুম্বইয়ের গ্লেনমার্ক ফার্মাসিউটিক্যালস (Glenmark Pharmaceuticals) -এর ফ্যাবিফ্লু (Faviflu) ওষুধটিকে ছাড়পত্র দেয় ইন্ডিয়ান ড্রাগ কন্ট্রোল (DCGI)। এরপর গত ২০ জুন সংস্থাটির তরফে ভারতে বাজারে এই ওষুধটি নিয়ে আসার কথা জানানো হয়। আরও উল্লেখ করা হয়, করোনার উপসর্গ হিসেবে সাধারণ জ্বর, সর্দি-কাশি থেকে শুরু করে বেশি জ্বর অথবা সর্দি-কাশি নিরাময়ে সফল হবে এই ওষুধ। প্রতিটির দাম ১০৩ টাকা করে পড়বে বলেও ঘোষণা করা হয়। যদিও সংস্থাটি সোমবার জানিয়েছে প্রতিটি ট্যাবলেট এবার থেকে ১০৩ টাকার বদলে পাওয়া যাবে মাত্র ৭৫ টাকায়।

[আরও পড়ুন : বেহাল চিকিৎসা ব্যবস্থা, ছাদ ফেটে কোভিড ওয়ার্ডে ঢুকছে বৃষ্টির জল, ভাইরাল ভিডিও]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement