BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

জলের দাবিতে আন্দোলনের জের, রাস্তায় ফেলে মহিলাকে মারধর বিজেপি বিধায়কের

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: June 3, 2019 3:19 pm|    Updated: June 3, 2019 5:52 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: গরম বাড়তেই পরিশ্রুত পানীয় জলের অভাব দেখা দিয়েছে এলাকায়। সমস্যা সমাধান করতে কয়েকজনকে নিয়ে স্থানীয় বিধায়কের সঙ্গে কথা বলতে গিয়েছিলেন এনসিপি-র এক মহিলা সমর্থক। কিন্তু, এবিষয়ে কথা বলার আগেই ওই বিজেপি বিধায়ক রাস্তায় ফেলে তাঁকে চড়, ঘুসি ও লাথি মারে। রবিবার ঘটনাটি ঘটেছে আমেদাবাদের নারোদা এলাকায়। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশের কাছে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন আক্রান্ত মহিলা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, কিছুদিন ধরেই পরিশ্রুত পানীয় জলের সমস্যায় ভুগছিলেন নারোদা এলাকার মানুষ। বিষয়টিকে কেন্দ্র করে এলাকায় বিক্ষোভও দেখান স্থানীয় বাসিন্দারা। তাঁদের সেই আন্দোলনে যোগ দিয়েছিলেন এনসিপি-এর সমর্থক নিতু তেজওয়ানি নামে এক মহিলাও। রবিবার এই নিয়ে কথা বলতে নারোদার বিজেপি বিধায়ক বলরাম থাওয়ানির অফিসে গিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু, সেখানে যাওয়ার পরে কোনও কথা না শুনে তাঁকে মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ।

[আরও পড়ুন- আন্দোলনের চাপে মাথা নোয়াল কেন্দ্র, শিক্ষাক্ষেত্রে বাধ্যতামূলক নয় হিন্দি]

ওই সময়ের একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়াতে পোস্ট হওয়ার পরেই ভাইরাল হয়েছে। তাতে দেখা যাচ্ছে, প্রকাশ্য রাস্তায় একটি মহিলাকে মাটিতে পড়ে আছেন। আর তাঁর চারপাশে দাঁড়িয়ে আছে কিছু লোক। এদের মধ্যে দু-তিনজন লোক ওই মহিলাকে সমানে ঘুষি ও লাথি মারছে।

[আরও পড়ুন- তুচ্ছ অসুস্থতা, নাকে নল-অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে পরীক্ষাকেন্দ্রে তরুণী]

এপ্রসঙ্গে আক্রান্ত ওই মহিলা বলেন, “আমাদের এলাকায় পরিশ্রুত পানীয় জলের প্রচণ্ড অভাব দেখা দিয়েছে। তাই বলরামের সঙ্গে কথা বলতে গিয়েছিলাম। কিন্তু, কোনও কথা না বলে আচমকা আমার উপর চড়াও হয় বলরামের অফিসে থাকা এক ব্যক্তি। রাস্তায় টেনে নিয়ে এসে আমাকে মারধর করতে থাকে। পরে বলরামও অফিস থেকে বেরিয়ে এসে চড় ও ঘুসি মারতে থাকে। এর জেরে রাস্তায় পড়ে যাই আমি। তখন বলরাম আমাকে লাথিও মারে। বিষয়টি দেখতে পেয়ে ছুটে আসে আমার স্বামী। তখন অফিসের ভিতর থেকে বেরিয়ে এসে তাঁকে লাঠি দিয়ে মারতে থাকে বলরামের সঙ্গীরা। ছাড় পাননি আমার সঙ্গে থাকা স্থানীয় কিছু মহিলাও।”

বিষয়টি নিয়ে জলঘোলা হতেই ভুল স্বীকার করেন ওই বিজেপি বিধায়ক। প্রথমে আত্মরক্ষার জন্য ওই কাজ করেছেন বলে দাবি করলেও পরে নিজের কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা চান। বলেন, “আবেগের বশে একটা ভুল করে ফেলেছি। এর পিছনে অন্য কোনও উদ্দেশ্য ছিল না। গত ২২ বছর ধরে রাজনীতি করছি। কিন্তু, কোনওদিন এই ধরনের ঘটনা ঘটেনি। আসলে আমার অফিসেই প্রথম হামলা চালানো হয়েছিল। তাই মেজাজ ঠিক ছিল না। তবে যাই হোক না কেন, পুরো ঘটনাটির জন্য আমি ওই মহিলার কাছে ক্ষমা চাইব।”

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement