BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

স্ত্রীর মৃত্যুর পর ৮ বছরের মেয়েকে লাগাতার ধর্ষণ বাবার

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: April 30, 2019 5:23 pm|    Updated: April 30, 2019 5:23 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: স্ত্রীর মৃত্যুর পর নিজের আট বছরের মেয়েকে লাগাতার ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার হল এক ব্যক্তি। ঘটনাটি ঘটেছে হরিয়ানার গুরুগ্রামের পাটৌদি এলাকায়।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ক্লাস ফোরের ওই ছাত্রীর ব্যবহারে অস্বাভাবিকতা লক্ষ্য করে তার কারণ জানতে চান প্রতিবেশীরা। আর তার কাছে সব কথা শোনার পর স্থানীয় পুলিশকে খবর দেন তাঁরা। এরপরই অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়।

[আরও পড়ুন- সত্যিই কি হিমালয়ের বুকে তুষারমানবের অস্তিত্ব? কী বলছেন গবেষকরা]

সোমবার এপ্রসঙ্গে গুরুগ্রাম পুলিশের এসিপি(অপরাধ) সমশের সিং বলেন, “মায়ের মৃত্যুর পর বাবার সঙ্গে গুরুগ্রামের পাটৌদি এলাকায় থাকত ওই নাবালিকা। প্রথম দিকে কোনও সমস্যা না থাকলেও গত কয়েকমাস ধরে তাকে লাগাতার ধর্ষণ করছিল নিজের বাবা। প্রতিদিন রাতে মদ খেয়ে বাড়ি ফিরে তাকে ধর্ষণ করা হত বলেই অভিযোগ জানিয়েছে নির্যাতিতা। তবে, গত সপ্তাহ থেকে তাকে দিন দু’বার করে ধর্ষণ করতে শুরু করে। এর ফলে গত কয়েকদিন ধরে তার ব্যবহারে অস্বাভাবিকতা লক্ষ্য করেন প্রতিবেশীরা। কী কারণে সে এই ব্যবহার করছে জানতে চাইলে প্রতিবেশীদের সব কথা খুলে বলে ওই নাবালিকা। এরপরই পুলিশের কাছে অভিযুক্তের নামে অভিযোগ জানান প্রতিবেশীরা। ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে তার বিরুদ্ধে শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।” বর্তমানে ওই নাবালিকাকে উদ্ধার করে শিশুদের পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র পাঠানো হয়েছে। সেখানে তার কাউন্সেলিং করছেন মনোবিদরা।

[আরও পড়ুন-নাগরিকত্ব নিয়ে প্রশ্ন, নোটিস পাঠিয়ে রাহুলের কাছে জবাব চাইল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক]

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত ১৯ এপ্রিল স্ত্রী’র সঙ্গে ঝগড়ার পর নিজের ১৩ বছরের মেয়েকে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে এক যুবকের বিরুদ্ধে। এই ঘটনাটিও ঘটেছে হরিয়ানা সংলগ্ন দিল্লির গুরুগ্রামে। তবে অভিযুক্তর স্ত্রীর অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ তদন্ত শুরু করলেও ওই যুবককে এখনও গ্রেপ্তার করা যায়নি।

[আরও পড়ুন-বাবার ছায়া পেরিয়ে জনপ্রিয়তার শীর্ষে যশবন্তপুত্র, জয় নিয়ে প্রত্যয়ী জয়ন্ত]

স্থানীয় পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, কিছুদিন আগে ৩৯ বছরের ওই ব্যক্তি কিশোরী মেয়ে ও স্ত্রীকে নিয়ে পালওয়াল এলাকা থেকে কাজের প্রয়োজনে গুরুগ্রামে চলে আসে। তারপর থেকে পেশায় গাড়িচালক ওই যুবক গুরুগ্রামের তিন নম্বর ডিএলএফ এলাকায় পরিবার নিয়ে ভাড়া থাকছিল।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement