১২ আষাঢ়  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ২৭ জুন ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  যেন মুম্বই হামলার স্মৃতি ফিরছে৷ সেই সমুদ্রপথ ব্যবহার করে ভারতে সন্ত্রাসের ছক তৈরি হচ্ছে৷ শ্রীলঙ্কা থেকে ১৫ জন আইএসআইএস জঙ্গি সমুদ্রপথে লাক্ষাদ্বীপে ঢুকছে। গোয়েন্দা সূত্রে এই খবর মিলতেই চরম সতর্কতা জারি করা হল কেরল উপকূলে। রাজ্যের সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকাগুলিতে কড়া নজরদারির জন্য উপকূল পুলিশ ও স্থানীয় পুলিশ স্টেশনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এপ্রসঙ্গে কেরল পুলিশের এক শীর্ষ আধিকারিক বলেন, “সাধারণত উপকূল এলাকাগুলিতে মাঝে মাঝেই নজরদারি ও তল্লাশি চালানো হয়। এবার তো আমাদের কাছে একবারে জঙ্গিদের সংখ্যা জানিয়ে খবর দেওয়া হয়েছে। এর ভিত্তিতে আমরা উপকূল পুলিশের প্রধান ও উপকূল থানাগুলিকে সতর্ক করেছি। ভারতের জলসীমায় কোনওরকম সন্দেহজনক জলযান দেখা গেলেই সেটিতে তল্লাশি চালানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।”

[আরও পড়ুন- ৫ বছরে নিজের ‘ঢাক পেটাতে’ মোদি সরকারের খরচ ৫ হাজার কোটি টাকা!]

সূত্রের খবর, লাক্ষাদ্বীপ ও সংলগ্ন এলাকায় ধারাবাহিক বিস্ফোরণের পরিকল্পনা নিয়েছে আইএসআইস জঙ্গিরা। তাই একটি সাদা নৌকায় চেপে শ্রীলঙ্কা থেকে লাক্ষাদ্বীপে আসছে। গত ২৩ মে শ্রীলঙ্কার কাছ থেকে এই খবর পাওয়ার পরেই নড়েচড়ে বসেছে ভারত। কেরল উপকূলে থাকা সমস্ত বোটে নজরদারি চালানো হচ্ছে। পাশাপাশি সমুদ্রে মাছ ধরতে যাওয়া মৎস্যজীবী ও জাহাজগুলিকে সতর্ক করা হয়েছে।

উপকূল পুলিশ সূত্রে জানানো হয়েছে, শ্রীলঙ্কায় জঙ্গি হামলার পর এই রকম কিছু হতে পারে বলে ধারণা ছিল। তাই সতর্ক ছিলাম। গোয়েন্দা সূত্রে খবর পাওয়ার পর নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে কোনও সন্দেহজনক নৌকা দেখলে প্রশাসনকে খবর দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

[আরও পড়ুন- জয়ের পরই চরম পরিণতি, গুলিতে ঝাঁজরা স্মৃতি ইরানির প্রচারসঙ্গী]

শ্রীলঙ্কায় ধারাবাহিক বোমা বিস্ফোরণের পরে সতর্কতা জারি করা হয়েছিল কেরলে। পরে এনআইএ-র তরফে আইএসআইএস জঙ্গিরা কেরলে জঙ্গি হামলা ছক কষছে বলে জানানো হয়। এর ফলে বাড়ানো হয় আরও নিরাপত্তা। ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থাগুলির মতে, একসময় কেরল থেকে প্রচুর মানুষ আইএস-এ যোগ দিতে সিরিয়া গিয়েছিলেন। সম্প্রতি সিরিয়া ও ইরাক থেকে বিতাড়িত করা হয় আইএসআইএস জঙ্গিদের। কিন্তু, কেরল থেকে যোগ দেওয়া লোকেরা এখনও ইসলামিক স্টেট ছাড়েনি। কেরলে ইতিমধ্যে সংগঠনও বাড়িয়ে ফেলেছে। এদের মধ্যে কেউ কেউ লাক্ষাদ্বীপ ও সংলগ্ন এলাকায় ধারাবাহিক বিস্ফোরণ ঘটানোর ছক কষতেই পারে।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং