BREAKING NEWS

২৮ শ্রাবণ  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১৩ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

তামিলনাড়ুর থানায় বাবা ও ছেলেকে পিটিয়ে খুনের ঘটনায় গ্রেপ্তার ৪ পুলিশকর্মী

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: July 2, 2020 5:41 pm|    Updated: July 2, 2020 5:56 pm

An Images

মৃত বাবা ও ছেলে (ফাইল ফটো)

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: অবশেষে তামিলনাড়ুর সান্তনকুলম থানায় বাবা ও ছেলেকে পিটিয়ে খুনের ঘটনায় জড়িত চার পুলিশকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হল। বুধবার তাদের গ্রেপ্তার করে তামিলনাড়ু সিআইডি (CID) -এর আইজির নেতৃত্বাধীন স্পেশ্যাল ব্রাঞ্চের একটি টিম। এর পাশাপাশি আরও একজন কনস্টেবলকে গ্রেপ্তারের পর জেরা করা হচ্ছে। তবে তার নাম এখনও এফআইআর (FIR) -এ নথিভুক্ত করা হয়নি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মামলা হাতে নেওয়ার পরেই বুধবার গভীর রাতে প্রথমে সাব ইনস্পেক্টর রঘু গণেশকে গ্রেপ্তার করে সিআইডির বিশেষ তদন্তকারী দল। পরে বৃহস্পতিবার ভোরে অন্য তিন অভিযুক্ত সান্তনকুলম (Sathankulam) থানার ইনস্পেক্টর শ্রীধর, সাব ইনস্পেক্টর বালাকৃষ্ণন ও কনস্টেবল মুরুগানকে গ্রেপ্তার করা হয়। ধৃতদের জেরা করে সান্তনকুলম থানায় কর্মরত আরও একজন কনস্টেবল মুথুরাজকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবে তার নাম এখনও এফআইআরে নথিভুক্ত করা হয়নি।

[আরও পড়ুন: বানভাসি অসমে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৩, ক্ষতিগ্রস্ত ১৫ লক্ষের বেশি মানুষ]

তামিলনাড়ু প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, বুধবার রাত থেকে বৃহস্পতিবার সকালের মধ্যে বাবা ও ছেলের হত্যাকাণ্ডে জড়িত পাঁচ জন পুলিশকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ধৃতদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির একাধিক জামিন অযোগ্য ধারায় মামলাও রুজু হয়েছে। পাশাপাশি ১২টি বিশেষ দল গঠন করে সান্তনকুলম থানার বাকি অভিযুক্ত পুলিশকর্মীদের গ্রেপ্তার করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে নৃশংসভাবে খুনের ঘটনায় জড়িত পুলিশ আধিকারিকদের গ্রেপ্তারির খবর প্রকাশ্য আসতেই খুশির আমেজ ছড়িয়েছে তুতিকোরিনের সান্তনকুলমে। রীতিমতো বাজিয়ে ফাটিয়ে উৎসব পালন করা হচ্ছে বিভিন্ন জায়গায়। এর মাঝেই অবশ্য তুতিকোরিনের ঘটনায় রাজ্য সরকার দেরিতে ব্যবস্থা নিয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী করুণানিধির কন্যা ডিএমকে সাংসদ কানিমোঝি।

তামিলনাড়ুর সান্তনকুলমে একটি মোবাইলের দোকান চালাতেন পি জয়রাজ ও তাঁর ছেলে পেন্নাস। লকডাউনের মধ্যে দিনের একটি নির্দিষ্ট সময়েই দোকান খোলার অনুমতি দিয়েছে পালানিস্বামীর সরকার। কিন্তু সেই নির্দিষ্ট সময়ের পরেও জয়রাজ ও তাঁর ছেলে দোকান খুলে রেখেছিলেন বলে অভিযোগ। এর জেরে সান্তনকুলম থানার পুলিশ জয়রাজ ও তাঁর ছেলেকে প্রচণ্ড মারধর করে। তাতেই মৃত্যু হয় তাঁদের। ব্যবসায়ী ও তাঁর ছেলের শরীরে পরিজনরা আঘাতের চিহ্ন দেখেছেন বলে অভিযোগ করেন। এরপরই উত্তাল হয়ে ওঠে তামিলনাড়ুু।

[আরও পড়ুন: সিন্ধিয়া ঘনিষ্ঠ ১৩ জন পেলেন মন্ত্রিত্ব! ফের মধ্যপ্রদেশের ক্ষমতার ভরকেন্দ্রে ‘মহারাজ’]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement