১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ইভিএমে প্রতীকের নিচে দলের নাম, বিজেপির বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনে তৃণমূল

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: April 28, 2019 9:22 pm|    Updated: April 28, 2019 9:22 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ইভিএম-এ কারচুপির অভিযোগ নিয়ে লোকসভা ভোটের মাঝেই বিজেপি বিরোধী ঐক্য চোখে পড়ল দিল্লির দরবারে৷ রবিবার দিল্লি নির্বাচন কমিশনের অফিসে একত্রে অভিযোগ নিয়ে গেলেন তৃণমূল, কংগ্রেস শীর্ষ নেতৃত্ব৷ মক পোলিংয়ের সময় ইভিএম-এ পদ্ম প্রতীক চিহ্নের নিচে ‘BJP’-র নাম লেখা ছিল৷ বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের ঘটনায় এনিয়ে নির্বাচন কমিশনে একযোগে অভিযোগ জানিয়েছিলেন তৃণমূল এবং সিপিএম প্রার্থী৷ কিন্তু তাঁদের অভিযোগ উড়িয়ে কমিশন জানায়, ইভিএম-এ কোনও কারচুপি নেই৷ যা লেখা ছিল, তা দলের প্রতীকের একটা অংশ৷ কমিশনের অনুমতিক্রমে তা ব্যবহার করে বিজেপি৷

mock poll

[আরও পড়ুন : SBI সেভিংস অ্যাকাউন্টে কমছে সুদের হার, জেনে রাখুন পাঁচটি তথ্য]

কিন্তু ছবিতে বারবার দেখা গিয়েছে, মক পোলিংয়ের সময় প্রতীক চিহ্নের নিচে নাম লেখা ছিল বিজেপির৷ সেই কারণে এবার সরাসরি দিল্লির দ্বারস্থ হল তৃণমূল৷ রবিবার বারাকপুরের তৃণমূল প্রার্থী দীনেশ ত্রিবেদী নিজে গেলেন কমিশনের অফিসে৷ সঙ্গে ছিলেন দলের জাতীয় মুখপাত্র ডেরেক ও’ ব্রায়েন, প্রাক্তন মন্ত্রী মণীশ গুপ্ত৷ ছিলেন এরাজ্য থেকে তৃণমূলের সমর্থনে রাজ্যসভার সাংসদ হওয়া কংগ্রেস নেতা অভিষেক মনু সিংভি৷ সিপিএম-এর তরফে অবশ্য কাউকে দেখা যায়নি৷ এদিন তাঁরা মুখ্য নির্বাচনী কমিশনার সুনীল অরোরার সঙ্গে দেখা করে বিস্তারিত অভিযোগ জানান৷ দাবি তোলেন, হয় ইভিএম বদল করে দিতে হবে, নয়তো মেশিন থেকে লেখাটি মুছে দিতে হবে৷ অভিষেক মনু সিংভি বলেন, ‘ইভিএমে পদ্মের নিচে দলের নাম লেখা স্পষ্ট৷ কোনও দলই এভাবে প্রতীকের নিচে নাম ব্যবহার করতে পারে না৷’

[আরও পড়ুন : জিতলেই দেওয়া হবে বাড়ি, মুম্বইয়ের বসতিবাসীদের প্রতিশ্রুতি রাহুলের]

নির্বাচন কমিশনের এক আধিকারিক ঘনিষ্ঠ সূত্রের খবর, তৃণমূল এবং কংগ্রেসের এই অভিযোগকে গুরুত্ব দিতে নারাজ৷ ইভিএম নিয়ে তাঁরা ভুল বুঝেছেন বলে দাবি কমিশনের৷ ২০১৩ সালে বিজেপি একইধরনের অভিযোগ তুলে কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছিল৷ তাঁদের অভিযোগ ছিল, ইভিএম-এ তাঁদের প্রতীকের ছাপ খুব হালকা৷ বিজেপির দাবি মেনে প্রতীকটি আরেকটু ভালভাবে ছাপানো হয় এবং পদ্মের নিচে জলের ছবি সমেত সেই প্রতীকটিকে অনুমোদন দেয় নির্বাচন কমিশন৷ ২০১৪ সালে সেই প্রতীকটিই ব্যবহৃত হয়েছিল৷ এবারের অভিযোগের ভিত্তিতে দিল্লি নির্বাচন কমিশন রাজ্যের নির্বাচনী আধিকারিকদের সতর্ক করেছে৷ ইভিএম সংক্রান্ত কোনও সমস্যা যাতে না হয়, চতুর্থ দফার ভোটে সেদিকে নজরদারি বাড়ানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement