২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

অর্ণব আইচ: আশা ছিল ছেলে হবে, কিন্তু হয়েছিল মেয়ে। তিন মাস ধরে ক্ষোভে গুমরে মরছিল এক যুবক। চেয়েছিল স্ত্রীকে শিক্ষা দিতে। তাই বুধবার সকালে তাঁর সামনেই সাড়ে ৩ মাসের মেয়েকে নৃশংসভাবে খুন করল সে। বিছানার উপর বারবার আছাড় দেওয়ার পরও ক্ষান্ত হয়নি ওই যুবক। শিশুটির হাত-পা মুচড়ে দেয় সে, এমনকী  ভেঙে দেয় ঘাড়ও। বারবার আঘাত করে তার মুখে। শিশুটির মা বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেও কোনও লাভ হয়নি। পরে কোনওমতে হাসপাতালে নিয়ে গেলে শিশুটিকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। নিজের মেয়েকে খুনের অভিযোগে রাতেই শেখ রাজু (২৫) নামে ওই যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। স্ত্রী নিজেই গিয়ে স্বামীর বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন।

[আরও পড়ুন- মেট্রোয় ফের আত্মহত্যার চেষ্টা, সকালের ব্যস্ত সময়ে ব্যাহত পরিষেবা]

পুলিশ জানিয়েছে, বুধবার সকাল পৌনে এগারোটা নাগাদ দক্ষিণ বন্দর থানার কোল বার্থ রোডে ঘটনাটি ঘটে। এই এলাকার বাসিন্দা মহম্মদ রাজুর ৬ বছর আগে একবার বিয়ে হয়েছিল। তখন ওই দম্পতির একটি কন্যাসন্তানও জন্মায়। কিন্তু, শিশুটির যখন তিন বছর বয়স, তখন তার মায়ের মৃত্যু হয়। কিছুদিন পরে ফের বিয়ে করে রাজু। বিয়ের পর দ্বিতীয় স্ত্রী আফসারি বেগমকে ওই যুবক বলে দিয়েছিল, যেহেতু তার মেয়ে রয়েছে তাই এবার ছেলে চাই। স্ত্রী অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার পর থেকেই বিষয়টি নিয়ে চলত গোলমাল। সংসারে অভাবও ছিল। রাজু বিশেষ কিছুই করত না। তা নিয়েও স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়া হত। সাড়ে তিন মাস আগে কন্যাসন্তান জন্ম দেন রাজুর স্ত্রী। শিশুটির মা তার নাম দেন সুলতানী খাতুন। কিন্তু, মেয়ের জন্মের পর থেকে স্ত্রীর উপর চলতে থাকে অত্যাচার। শিশুকন্যাটিকেও ঘৃণার চোখে দেখতে শুরু করে রাজু।

অভিযোগ, এই আচরণের আপত্তি করলে অত্যাচার বাড়ে। বুধবার সকাল থেকেই বিষয়টি নিয়ে পারিবারিক গোলমাল শুরু হয়। সেসময় হঠাৎই শিশুটিকে তুলে নেয় সে। বিছানার উপর বারবার আছাড় মারতে শুরু করে। স্ত্রী বাধা দিতে চাইলে তাঁকে মেরে সরিয়ে দেয়। এরপর নৃশংসভাবে স্ত্রীর সামনেই হাত, পা, ঘাড় মুচড়ে শিশুকে খুন করে বিছানায় ফেলে রেখে বের হয়ে যায়। চিৎকার করে কাঁদতে থাকেন রাজুর স্ত্রী। সেই শুনে ছুটে আসেন রাজুর মা আনোয়ারা বেগম। যদিও রাজু ছিল নির্বিকার।

[আরও পড়ুন- ‘দুষ্কৃতীদের রেয়াত নয়’, সাম্প্রতিক ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রীকে খোলা চিঠি মুসলিম নাগরিকদের]

শাশুড়ি ও পুত্রবধূ মিলে শিশুটিকে প্রথমে শরৎ বোস রোডের উপর একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানকার চিকিৎসকরা শিশুটিকে দেখার পর তাকে এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলেন। এসএসকেএম-এর চিকিৎসকরা শিশুটিকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। সন্ধ্যায় দক্ষিণ বন্দর থানায় গিয়ে রাজুর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন তাঁর স্ত্রী। ধৃত যুবককে জেরা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং